৬ আগস্ট, ২০২২ ১৫:০৭

কাঁচা সড়কে ১০ গ্রামের দুর্ভোগ

সখীপুর (টাঙ্গাইল) প্রতিনিধি

কাঁচা সড়কে ১০ গ্রামের দুর্ভোগ

কাঁচা সড়কে ১০ গ্রামের দুর্ভোগ

টাঙ্গাইলের সখীপুরে ১২০০ মিটার কাঁচা সড়কের জন্য দুর্ভোগ পোহাচ্ছেন দশ গ্রামের কয়েক হাজার মানুষ। উপজেলার শালগ্রামপুর নজরুলের চায়ের দোকান থেকে কৈয়ামধু বাজার পর্যন্ত এ দুর্ভোগ। সামান্য বৃষ্টি হলেই প্রায় আট কিলোমিটার সড়ক ঘুরে স্থানীয় ইউনিয়ন পরিষদ, উপজেলা পরিষদ ও উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে যেতে হয় এলাকাবাসীর।

সরেজমিন দেখা যায়, উপজেলার কৈয়ামধু, আবাদী, দাড়িয়াপুর, খোলাঘাটা, গিলাবাড়ি, বেতুয়াপাড়া, কাঙ্গালিছেও, আকন্দপাড়া, দেওবাড়ি ও কল্যাণপুর গ্রামের মানুষের চলাচলের একমাত্র সড়কের মাঝখানে ১২০০ মিটার সড়ক কাঁচা। কৈয়ামধু-শালগ্রামপুরের সড়ক ঘেঁষেই রয়েছে কৈয়ামধু সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়। বৃষ্টি হলেই শিক্ষার্থীরা বিদ্যালয়ে যেতে পারে না বলে স্থানীয়রা জানান।

বিভিন্ন সময়ে এ সড়কের সামনে-পেছনে পাকাকরণ হলেও কৈয়ামধু বাজার থেকে শালগ্রামপুর সড়কের নজরুলের চায়ের দোকান পর্যন্ত এখনো কাঁচা রয়েছে। সামান্য বৃষ্টি হলে এ সড়ক চলাচলের অনুপযোগী হয়ে পড়ে। কোনো প্রকার যানবাহন চলাচল করতে পারে না। যেকারণে দুর্ভোগ পোহাচ্ছেন কয়েক হাজার মানুষ।

স্থানীয় সাবেক ইউপি সদস্য ফজলুল হক বলেন, ভোটের সময় অনেক বড়বড় নেতারা আশ্বাস দিয়ে যায় এই বছর রাস্তা হবেই। কিন্তু আজ পর্যন্ত হলো না। আর কবে হবে, তা আল্লাহই জানে।

কৈয়ামধু সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মো. সাইফুল ইসলাম বলেন, এই বিদ্যালয়ে প্রায় আড়াইশত ছেলে-মেয়ে আছে। বর্ষা মৌসুমে সামান্য বৃষ্টি হলে শিশু ও প্রথম শ্রেণির শিক্ষার্থীদের বিদ্যালয়ে আসতে খুব কষ্ট হয়। তাই এই সড়ক পাকা করা খুবই প্রয়োজন।

দাড়িয়া ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আনছার আলী আসিফ বলেন, কৈয়ামধু বাজার থেকে শালগ্রামপুর পর্যন্ত সামান্য কিছু সড়ক দীর্ঘদিন ধরে কাঁচা থাকায় অনেক মানুষ দুর্ভোগে আছেন। বিষয়টি এমপিকে জানানো হয়েছে। তিনি প্রতিশ্রুতি দিয়েছেন অল্পদিনের মধ্যেই এই সড়কটি পাকা করে দেবেন।

এ বিষয়ে উপজেলা নির্বাহী প্রকৌশলী বিদ্যুৎ কুমার দাসকে কয়েকবার ফোন দিলেও তিনি ফোন রিসিভ করেন নাই।

বিডি প্রতিদিন/এমআই

এই বিভাগের আরও খবর

সর্বশেষ খবর