২৫ জানুয়ারি, ২০২৩ ১৪:২০

মোংলা বন্দর চ্যানেলে ৫০০ মেট্রিক টন সার নিয়ে ডুবল লাইটার জাহাজ

বাগেরহাট প্রতিনিধি

মোংলা বন্দর চ্যানেলে ৫০০ মেট্রিক টন সার নিয়ে ডুবল লাইটার জাহাজ

মোংলা বন্দর চ্যানেলের পশুর নদীর সুন্দরবনের হারবাড়িয়া এলাকায় শাহজালাল এক্সপ্রেস-২ নামে সারবোঝাই একটি লাইটার জাহাজ ডুবে গেছে।

মঙ্গলবার দিবাগত রাত সাড়ে ৩টার দিকে বন্দরের হারবাড়িয়া এলাকায় এ দুর্ঘটনা ঘটে। ডুবে যাওয়া লাইটার জাহাজটিতে ৫০০ মেট্রিক টন এমওপি সার রয়েছে।

দুর্ঘটনার সময় জাহাজটিতে থাকা ৮ জন নাবিক নদীতে ছিটকে পড়ে। খবর পেয়ে দ্রুত ঘটনাস্থলে গিয়ে কোস্টগার্ড তাদের উদ্ধার করে। দুর্ঘটনার পর মোংলা বন্দরের জাহাজ চলাচল স্বাভাবিক রয়েছে বলে জানিয়েছে বন্দর কর্তৃপক্ষ। এঘটনায় মোংলা বন্দর কর্তৃপক্ষ একটি তদন্ত কমিটি গঠন করেছে। এদিকে সুন্দরবনের অভ্যন্তরে ৫০০ মেট্রিক টন এমওপি সার নিয়ে লাইটার জাহাজ ডুবির ঘটনায় ওয়ার্ল্ড হ্যারিটেজ সাইড এই বনের জলজপ্রানী ও ম্যানগ্রোভ উদ্ভিদের ক্ষতির আশংকা করছেন পরিবেশবাদীরা। 

মোংলা বন্দর কর্তৃপক্ষের হারবার মাস্টার ক্যাপ্টেন শাহীন মজিদ জানান, লাইবেরিয়ার পতাকাবাহী এমভি ভিটা অলিম্পিক জাহাজটি গত ২১ জানুয়ারি ৩১ হাজার ৪৫৯ মেট্রিকটন এমওপি সার নিয়ে মোংলা বন্দরের পশুর চ্যানেলর সুন্দরবনের হারবাড়িয়ার ৯ নম্বর বয়ায় নোঙ্গর করে। এমভি ভিটা অলিম্পিক থেকে ৫০০ মেট্রিক টন এমওপি সার বোঝাই করে শাহজালাল এক্সপ্রেস-২ নামের লাইটার জাহাজটি মঙ্গলবার দিবাগত রাতে যশোরের নওয়াপাড়া নৌবন্দরের উদ্দেশ্যে রওনা দেয়। রাত সাড়ে ৩টার দিকে হারবাড়িয়ার-৮ বয়ার সুন্দরীকোঠা-১ এলাকায় ক্লিংকার নিয়ে অবস্থান করা সুপ্রিম ভ্যালর নামের একটি বিদেশি জাহাজের পিছনে লাইটার জাহাজটির প্রচণ্ড ধাক্কা লেগে তলা ফেটে যায়। তলা ফেটে যাওয়ায় লাইটার জাহাজটি প্রোপেলারসেড ভেঙে ইঞ্জিন রুমে পানি ঢুকে বন্দরের পশুর চ্যানেলে ডুবে যায়। এসময়ে সময় লাইটার জাহাজটিতে থাকা ৮ জন নাবিক নদীতে পড়ে যান। খবর পেয়ে নদীতে পড়ে ভাসতে থাকা অবস্থায় কোস্টগার্ড এসে ৮ জন নাবিক উদ্ধার করে। বুধবার সকালে মোংলা বন্দর কর্তৃপক্ষের একটি দল ডুবে যাওয়া লাইটর জাহাজটি মারকিং করে রাখেছে। এঘটনায় মোংলা বন্দর কর্তৃপক্ষ একটি তদন্ত কমিটি গঠন করেছে। মোংলা বন্দরের মূল চ্যানেলের বাইরে দুর্ঘটনায় লাইটার জাহাজ ডুবলেও বন্দরের পশুর চ্যানেল ঝঁকিমুক্ত থাকায় বন্দরের জাহাজ চলাচল স্বাভাবিক রয়েছে বলেও জানান বন্দরের এই কর্মকর্তা।

বিডি-প্রতিদিন/সালাহ উদ্দীন 

এই বিভাগের আরও খবর

সর্বশেষ খবর