শিরোনাম
৯ জানুয়ারি, ২০২৪ ১৮:৩৭

বগুড়ায় জামানত হারালেন ৪৫ প্রার্থী

নিজস্ব প্রতিবেদক, বগুড়া

বগুড়ায় জামানত হারালেন ৪৫ প্রার্থী

প্রতীকী ছবি

দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে বগুড়ার ৭টি সংসদীয় আসনে ৫৮ জন প্রার্থী অংশ নিয়ে সাবেক দুই সংসদ সদস্যসহ ৪৫ জন তাদের জামানত হারিয়েছেন। মোট প্রদত্ত ভোটের ৮ ভাগের একভাগ ভোট না পাওয়ায় তাদের জামানত বাজেয়াপ্ত হয়। এই তালিকায় আলোচিত কনটেন্ট ক্রিয়েটর আশরাফুল ইসলাম আলম ওরফে হিরো আলমসহ জাতীয় পার্টির দুই প্রার্থী ও একাদশ জাতীয় সংসদের সংসদ সদস্য রয়েছেন।

জানা যায়, গত ৭ জানুয়ারি দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়। জেলার সাতটি সংসদীয় আসনের মোট ভোটার ছিল ২৮ লাখ ৩০ হাজার ৬০৪ ভোট। মোট ভোটারের ২৭ শতাংশ ভোটার ভোটাধিকার প্রয়োগ করেন। নির্বাচনে ৭টি আসনের মধ্যে ৫টিতে নৌকার প্রার্থীরা বিজয়ী হন। আর বাকি দুটির একটিতে জাতীয় পার্টির প্রার্থী এবং অন্যটিতে আওয়ামী লীগের স্বতন্ত্র প্রার্থী বিজয়ী হয়েছেন।

বগুড়া জেলা সিনিয়র জেলা নির্বাচন কর্মকর্তা মাহমুদ হাসান জানান, প্রতিটি আসনে মোট প্রদত্ত ভোটের ৮ ভাগের একভাগ ভোট না পেলে তার জামানত ফিরে পাওয়ার কোনো সুযোগ নেই। সেই হিসেবে বগুড়ায় ৫৮ জন প্রার্থীর মধ্যে মাত্র ১৩ জন তাদের জামানতের টাকা ফেরত পাবেন। অবশিষ্ট ৪৫ জন প্রার্থীর জামানত ফেরত দেওয়ার কোনো সুযোগ নেই। নির্বাচনি বিধিমালা অনুযায়ী, মনোনয়নপত্র দাখিলের সময় প্রতিদ্বন্দ্বী প্রত্যেক প্রার্থীকে জামানত হিসেবে ২০ হাজার টাকা জমা দিতে হয়। তাদের মধ্যে যারা সংশ্লিষ্ট আসনে নির্বাচনে প্রদত্ত মোট ভোটের ৮ ভাগের এক ভাগ ভোট পাবেন- কেবল তাদেরকেই ওই অর্থ ফেরত দেওয়া হয়।

বগুড়া জেলা নির্বাচন অফিস সূত্রে জানা যায়, বগুড়া-১ (সারিয়াকান্দি-সোনাতলা) আসনে ১০ জন প্রার্থীর মধ্যে মাত্র ৩ জন জামানতের টাকা ফেরত পাওয়ার মতো ভোট পেয়েছেন। তারা হলেন-আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী নৌকা প্রতীক (বিজয়ী) সাহাদারা মান্নান এমপি, স্বতন্ত্র প্রার্থী তবলা প্রতীক শাহাজাদী আলম লিপি ও ঈগল প্রতীক মোস্তাফিজুর রহমান শ্যামল। যে ৭ জন জামানত হারালেন তারা হলেন-তৃণমূল বিএনপি’র এনএম আবু জিহাদ, বাংলাদেশ তরিকত ফেডারেশনের আনোয়ার হোসেন, জাতীয় পার্টির গোলাম মোস্তফা বাবু, বাংলাদেশ খেলাফত আন্দোলনের নজরুল ইসলাম, জাসদের হাসান আকবর আফজাল এবং স্বতন্ত্র প্রার্থী সাবেক বিএনপি নেতা মো. শোকরানা ও ইয়াছির রহমতুল্লাহ ইন্তাজ।

বগুড়া-২ (শিবগঞ্জ) আসনে ৭ জন প্রার্থীর মধ্যে ২ জন জামানতের টাকা ফেরত পাওয়ার মতো ভোট পেয়েছেন। তারা হলেন- জাতীয় পার্টি মনোনীত প্রার্থী শরিফুল ইসলাম জিন্নাহ এমপি লাঙ্গল প্রতীক ও স্বতন্ত্র প্রার্থী ট্রাক প্রতীক বিউটি বেগম। জামানত হারিয়েছেন ৫ জন। তারা হলেন-তৃণমূল বিএনপি’র বজলুর রহমান, বাংলাদেশ কংগ্রেসের মুনছুর রহমান শেখ, বিএনএফ’র বরকত উল্লাহ, স্বতন্ত্র প্রার্থী আওয়ামী লীগ নেতা আকরাম হোসেন ও আল ফারাবী মো. নূরুল ইসলাম।

বগুড়া-৩ (আদমদীঘি-দুপচাঁচিয়া) আসনে ১২ জন প্রার্থীর মধ্যে মাত্র ২ জন জামানতের টাকা ফেরত পাওয়ার মতো ভোট পেয়েছেন। আর যে ১০ জন জামানত হারালেন তারা হলেন-এই আসনের বর্তমান সাংসদ ও জাতীয় পার্টির প্রার্থী নূরুল ইসলাম তালুকদার, বাংলাদেশ সুপ্রিম পার্টির আফরিনা পারভীন, তৃণমূল বিএনপির আব্দুল মোত্তালেব, জাসদের আব্দুল মালেক সরকার, বাংলাদেশ কংগ্রেসের তাজ উদ্দিন মণ্ডল, বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী আন্দোলনের রফিকুল ইসলাম সরদার, স্বতন্ত্র প্রার্থী আফজাল হোসেন, জাকারিয়া হোসেন, নজরুল ইসলাম ও ফেরদৌস স্বাধীন ফিরোজ।

বগুড়া-৪ (কাহালু-নন্দীগ্রাম) আসনে ৬ জন প্রার্থীর মধ্যে মাত্র ২ জন জামানত পেয়েছেন। যে ৪ জন জামানত হারালেন তারা হলেন-বাংলাদেশ কংগ্রেসের প্রার্থী আশরাফুল ইসলাম আলম ওরফে হিরো আলম, জাতীয় পার্টির শাহীন মোস্তফা কামাল, গণতন্ত্রী পার্টির মনজুরুল ইসলাম এবং স্বতন্ত্র প্রার্থী সাবেক আওয়ামী লীগ নেতা মোশফিকুর রহমান।

বগুড়া-৫ (শেরপুর-ধুনট) আসনে ৫ জন প্রার্থীর মধ্যে একমাত্র বিজয়ী প্রার্থী জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি মজিবর রহমান মজনু জামানতের টাকা ফেরত পাওয়ার মতো ভোট পেয়েছেন। এই আসনে ৪ জন জামানত হারিয়েছেন। তারা হলেন-বিএনএফ’র আলী আসলাম হোসেন রাসেল, ইসলামী ঐক্যজোটের নজরুল ইসলাম, বাংলাদেশ কংগ্রেসের মামুনার রশিদ ও জাসদের রাসেল মাহমুদ।

বগুড়া-৬ (সদর) আসনে ৫ জন প্রার্থীর মধ্যে ২ জন জামানতের টাকা ফেরত পাওয়ার মতো ভোট পেয়েছেন। যে ৩ জন জামানত হারালেন তারা হলেন-জাতীয় পার্টির আজিজ আহম্মেদ রুবেল, ন্যাশনাল পিপলস পার্টির শহিদুল ইসলাম এবং স্বতন্ত্র প্রার্থী সৈয়দ কবির আহম্মদ মিঠু। জামানতের টাকা ফেরত পাওয়ার মতো ভোট পেয়েছেন জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক রাগেবুল আহসান রিপু এমপি, স্বতন্ত্র প্রার্থী আবদুল মান্নান আকন্দ।

বগুড়া-৭ (গাবতলী-শাজাহানপুর) আসনে ১৩ জন প্রার্থীর মধ্যে শুধুমাত্র বিজয়ী প্রার্থী আওয়ামী লীগের ডা. মোস্তফা আলম নান্নু জামানতের টাকা ফেরত পাওয়ার মতো ভোট পেয়েছেন। অন্য ১২ প্রার্থী জামানত হারালেন। তারা হলেন- একাদশ জাতীয় সংসদের সংসদ সদস্য ও স্বতন্ত্র প্রার্থী রেজাউল করিম বাবলু, জাতীয় পার্টির এটিএম আমিনুল ইসলাম, বাংলাদেশ কংগ্রেসের মেহেরুল আলম মিশু, জাসদের আব্দুর রাজ্জাক, জাতীয় পার্টির (জেপি) আব্দুল মজিদ, বাংলাদেশ সাংস্কৃতিক মুক্তিজোটের এনামুল হক, ন্যাশনাল পিপলস পার্টির ফজলুল হক, বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী আন্দোলনের মো. রনি, স্বতন্ত্র প্রার্থী সাবেক বিএনপি নেতা সরকার বাদল, নজরুল ইসলাম, আমজাদ হোসেন ও নজরুল ইসলাম মিলন।

বগুড়া সিনিয়র জেলা নির্বাচন কর্মকর্তা মাহমুদ হাসান আরও জানান, যারা জামানত ফেরত পাওয়ার যোগ্য বলে বিবেচিত হয়েছেন, তারা নিয়ম অনুযায়ী তা ফেরত পাবেন। আর ৪৫ জন প্রার্থী জামানত ফিরে পাচ্ছেন না।

বিডি প্রতিদিন/এমআই

এই বিভাগের আরও খবর

সর্বশেষ খবর