Bangladesh Pratidin || Highest Circulated Newspaper
শিরোনাম
প্রকাশ : মঙ্গলবার, ১০ জুলাই, ২০১৮ ০০:০০ টা
আপলোড : ৯ জুলাই, ২০১৮ ২৩:১৩

আমানতের ৬ শতাংশ সুদ মানছে না অনেক ব্যাংকই

নিজস্ব প্রতিবেদক

আমানতের ৬ শতাংশ সুদ মানছে না অনেক ব্যাংকই

এখনো অনেক ব্যাংক বাংলাদেশ ব্যাংকের বেঁধে দেওয়া রেট আমানতের সুদ হার ৬ শতাংশ কার্যকর করেনি। বিভিন্ন ব্যাংকের ওয়েবসাইট ঘেঁটে ভিন্ন ভিন্ন সুদ হারের তথ্য পাওয়া গেছে। এ ছাড়া একাধিক ব্যাংকের আমানতকারী ও ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে কোনো কোনো ব্যাংক এখনো ৭ থেকে ৯ শতাংশ পর্যন্ত সুদ দিয়ে আমানত সংগ্রহের চেষ্টা করছে। এ অবস্থা বাংলাদেশ ব্যাংকের নির্দেশনাকে উপেক্ষিত করার শামিল বলে মনে করছেন বিশেষজ্ঞরা। জানা গেছে, বেসরকারি খাতের ওয়ান ব্যাংক এখনো ৯ শতাংশ হারে এবং প্রাইম ব্যাংক ৭ শতাংশ সুদ দিয়ে আমানত সংগ্রহ করছে। বাংলাদেশ ব্যাংকের এ নির্দেশনা না মানাকে ঔদ্ধত্য বলে মনে করছেন বিশেষজ্ঞরা। এতে ব্যাংক খাতে নতুন করে এক ধরনের অস্থিরতার আশঙ্কা করা হচ্ছে। কেননা আমানতে সুদ হার বেঁধে দেওয়া সত্ত্বেও ব্যাংকগুলো তা মানছে না। এতে একদিকে বাংলাদেশ ব্যাংকের নির্দেশনা উপেক্ষিত হচ্ছে। অন্যদিকে আমানত সংগ্রহের ক্ষেত্রে ব্যাংক খাতে শুরু হওয়া অসম প্রতিযোগিতার অবসান হচ্ছে না বলে মনে করছেন অর্থনীতিবিদরা। এদিকে বাংলাদেশ পেট্রোলিয়াম করপোরেশন (বিপিসি) সরকারি আমানত রাখার অংশ হিসেবে এখনো কিছু কিছু ব্যাংককে ৯ শতাংশ সুদে দেওয়ার প্রতিশ্রুতি দিচ্ছে। এতেও বাংলাদেশ ব্যাংকের  বেঁধে দেওয়া আমানতের সুদ হারের নির্দেশনা উপেক্ষিত হচ্ছে বলে মনে করছেন সংশ্লিষ্টরা। অথচ বেসরকারি ব্যাংক মালিকদের সংগঠন বাংলাদেশ অ্যাসোসিয়েশন অব ব্যাংকসের (বিএবি) ও বাংলাদেশ ব্যাংকের সিদ্ধান্ত অনুযায়ী সব ব্যাংকের আমানতের সুদ হার ৬ শতাংশের বেশি হওয়ার কথা নয়। কিন্তু এ সিদ্ধান্ত মানতে গিয়ে কোনো কোনো ব্যাংক আমানতের সুদহার আড়াই শতাংশেও নামিয়েছে। আবার কেউ কেউ উচ্চ সুদে আমানত নিচ্ছে। বিএবির সিদ্ধান্তের সঙ্গে খাপ খাওয়াতে ৯১ দিন, ১৮২ দিনসহ বিভিন্ন মেয়াদি নতুন নতুন আমানত প্রকল্প ঘোষণা করেছে ব্যাংকগুলো। এ বিষয়ে জানতে চাইলে বাংলাদেশ ব্যাংকের সাবেক গভর্নর ড. সালেহউদ্দিন আহমেদ বাংলাদেশ প্রতিদিনকে বলেন, এখানে বাংলাদেশ ব্যাংকের নজরদারি বাড়াতে হবে। আর ব্যাংকগুলোরও নির্দেশনা মেনে চলার মানসিকতা থাকতে হবে। পাশাপাশি নিয়ন্ত্রক সংস্থা হিসেবে বাংলাদেশ ব্যাংকের ভূমিকা আরও কার্যকর হতে হবে বলে তিনি মনে করেন।


আপনার মন্তব্য

এই বিভাগের আরও খবর