শিরোনাম
প্রকাশ : বৃহস্পতিবার, ১৮ জুলাই, ২০১৯ ০০:০০ টা
আপলোড : ১৭ জুলাই, ২০১৯ ২৩:৫২

রেলসেতু সংস্কার করতে বললেন প্রধানমন্ত্রী

শিক্ষার্থীরা মনোযোগী হলে আরও ভালো ফল করবে

নিজস্ব প্রতিবেদক

রেলসেতু সংস্কার করতে বললেন প্রধানমন্ত্রী

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা নতুন ট্রেন বেনাপোল ও বনলতা এক্সপ্রেসের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে বলেছেন, দ্রুত গতির ট্রেন চলাচলের জন্য উপযোগী করে পুরনো রেলসেতু সংস্কার ও রেলপথগুলোর আধুনিকায়ন করতে হবে। তিনি ২০১৯ সালের এইচএসসি এবং সমমানের পরীক্ষার ফলাফল হস্তান্তর উপলক্ষে অপর এক অনুষ্ঠানে বলেন, শিক্ষার্থীরা মনোযোগী হলে ভবিষ্যতে তারা আরও ভালো ফল করতে পারবে।

গতকাল সকালে গণভবনে বেনাপোল এক্সপ্রেসের উদ্বোধন ও বনলতা এক্সপ্রেসের রুট বাড়ানো উপলক্ষে এক অনুষ্ঠান হয়। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে পতাকা নেড়ে ও হুইসেল বাজিয়ে ট্রেন দুটোর কার্যক্রম উদ্বোধন করেন। গতকাল সকালে গণভবনে অপর এক অনুষ্ঠানে ২০১৯-এর এইচএসসি এবং সমমান পরীক্ষার ফলাফলের সার-সংক্ষেপ শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনি প্রধানমন্ত্রীর হাতে তুলে দেন। মাত্র ৫৫ দিনে ফল প্রকাশ করায় শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের সংশ্লিষ্ট সবাইকে প্রধানমন্ত্রী ধন্যবাদ জানান।

বেনাপোল ও বনলতা এক্সপ্রেসের উদ্বোধনী অনুষ্ঠান : প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এ অনুষ্ঠানে আরও বলেন, আধুনিক রেল ইঞ্জিন চালনায় দক্ষ জনবল তৈরির জন্য প্রশিক্ষণের ব্যবস্থা করতে হবে। পুরনো ব্রিজগুলোকে নতুনভাবে তৈরি করতে হবে। এখন অনেক হাইস্পিড ট্রেন আসছে, নতুন নতুন ট্রেন আসছে। আগামীতে বিদ্যুৎচালিত দ্রুতগতির ট্রেন চলাচল শুরু হবে। রেলের ব্যয়সাশ্রয়ী পরিবহনের কথা তুলে ধরে শেখ হাসিনা বলেন, আমাদের ঘনবসতিপূর্ণ দেশ। রেল আমাদের জন্য অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। দুর্ভাগ্য যে বিএনপি সরকার রেল বিভাগ বন্ধ করে দিতে চেয়েছিল এবং করেও দিয়েছিল। তিনি বলেন, আমরা সরকারে আসার পর রেল আলাদা মন্ত্রণালয় করে দিলাম, যেন এই রেল মানুষকে সেবা দিতে পারে। রেলকে আধুনিক করা, গতিশীল করা এবং যোগাযোগটাকে আরও মানুষের কাছে নিয়ে যাওয়া- এটা আমাদের লক্ষ্য। বেনাপোল এক্সপ্রেসের উদ্বোধন প্রসঙ্গে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ঢাকা- বেনাপোল রুট অনেক লম্বা। ঢাকা, টঙ্গী, টাঙ্গাইল, বঙ্গবন্ধু সেতু, সিরাজগঞ্জ, ঈশ্বরদী, পাবনা, ভেড়ামারা, পোড়াদহ, দর্শনা, চুয়াডাঙ্গা, ঝিনাইদহ হয়ে যশোর যেতে হয়। ট্রেনে যেতে হয় ৩৭০ কিলোমিটার। আমরা পদ্মা ব্রিজ করছি। পদ্মা ব্রিজে রেলসেতু দিচ্ছি। পদ্মা সেতুর মাধ্যমে ফরিদপুরের ভাঙ্গাকে ফরিদপুর হয়ে যশোরের সঙ্গে লিঙ্ক করে দেব। এতে যাত্রাপথের দূরত্ব কমে যাবে, সময়ও কমে যাবে।

উচ্চ মাধ্যমিকের ফলাফল যথেষ্ট ভালো ও গ্রহণযোগ্য : গতকাল গণভবনে ২০১৯-এর এইচএসসি এবং সমমানের পরীক্ষার ফলাফল হস্তান্তর অনুষ্ঠানে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেন, শিক্ষার্থীরা আরও মনোযোগী হলে ভবিষ্যতে তারা আরও ভালো ফল করতে পারবে। ৭৩ দশমিক ৯৩ ভাগ পাস করেছে। এটা যথেষ্ট ভালো এবং গ্রহণযোগ্য ফল। আমি মনে করি শিক্ষার প্রতি শিক্ষার্থীরা আরও মনোযোগী হলে তারা আরও ভালো ফল করতে পারবে, সেটা আমার বিশ্বাস।

সশস্ত্র বাহিনীকে বিশ্বমানে উন্নয়নে নিরবচ্ছিন্ন কাজ করে যাচ্ছি : গতকাল দুপুরে ঢাকা সেনানিবাসে রেজিমেন্ট সদর দফতরে প্রেসিডেন্ট গার্ডস রেজিমেন্টের (পিজিআর) ৪৪তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উপলক্ষে আয়োজিত অনুষ্ঠানে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেন, আমরা স্বাধীন দেশ। এর স্বাধীনতা ও সার্বভৌমত্ব সুরক্ষার দায়িত্ব সশস্ত্র বাহিনীর কাছে ন্যস্ত করা হয়েছে। তাই, স্বাধীন দেশের মতো করে সশস্ত্র বাহিনীর উন্নয়ন করে আন্তর্জাতিক মানে উন্নীত করতে আমরা নিরবচ্ছিন্নভাবে কাজ করে যাচ্ছি।  পিজিআর সদস্যদের প্রশংসা করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, এই রেজিমেন্টের সদস্যরা অত্যন্ত সাহস, আন্তরিকতা ও নিষ্ঠার সঙ্গে দায়িত্ব পালন করে যাচ্ছে। আপনাদের সততা, একনিষ্ঠতা এবং দেশপ্রেম সত্যিই মানুষকে উদ্বুদ্ধ করে।

পিজিআরের কমান্ডার ব্রিগেড়িয়ার জেনারেল জাহাঙ্গীর আলম অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তব্য দেন। পরে প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীর বিশেষ প্রীতিভোজে অংশ নেন প্রধানমন্ত্রী। এর আগে দুপুরে রেজিমেন্ট সদর দফতরে পৌঁছে একদল চৌকস গার্ডের অভিবাদন গ্রহণ করেন প্রধানমন্ত্রী। পরিদর্শন বইয়ে সই করার পর তিনি ঘুরে ঘুরে পিজিআর সদস্যদের সঙ্গে শুভেচ্ছা বিনিময় করেন। প্রধানমন্ত্রী রেজিমেন্ট সদর দফতরে একটি গাছের চারা রোপণ করেন। এরপর প্রধানমন্ত্রীর সফঙ্গ পিজিআর সদস্যরা ফটোসেশনে অংশ নেন। রেজিমেন্টের যেসব সদস্য দায়িত্ব পালনের সময় মারা গেছেন প্রধানমন্ত্রী সেসব শহীদের পরিবারের সদস্যদের উপহার ও অনুদান দেন।

দেশের জন্য নিবেদিতপ্রাণ হয়ে কাজ করতে তরুণ প্রজন্মের প্রতি আহ্বান : সকালে গণভবনে দেশব্যাপী সৃজনশীল মেধা অন্বেষণ-২০১৯-এর জাতীয় পর্যায়ে নির্বাচিত ১২ জন সেরা মেধাবীর হাতে পুরস্কার তুলে দিয়ে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেন, তোমরা মুক্তিযুদ্ধের চেতনাকে ধারণ করে দেশকে সবসময় ভালোবাসবে। দেশের মানুষকে ভালোবাসবে এবং দেশকে গড়ে তোলার জন্য নিবেদিতপ্রাণ হয়ে কাজ করবে। শেখ হাসিনা বলেন, নিজের জীবনকে যেমন সুন্দরভাবে গড়ে তুলবে, পাশাপাশি এই দেশকেও গড়ে তুলবে। এই চিন্তাচেতনা যেন সবসময় তোমাদের মাঝে থাকে। অনুষ্ঠানে ২০১৯ সালের সেরা মেধাবী ১২ জন শিক্ষার্থীর প্রত্যেককে পুরস্কারস্বরূপ সনদপত্র, মেডেল এবং এক লাখ টাকার চেক প্রদান করা হয়।


আপনার মন্তব্য