শিরোনাম
প্রকাশ : বৃহস্পতিবার, ৭ নভেম্বর, ২০১৯ ০০:০০ টা
আপলোড : ৬ নভেম্বর, ২০১৯ ২৩:৩৫

উত্তাল জাবি পুলিশি নিরাপত্তায় ভিসি

কয়েক দফা সময় বাড়ালেও হল ত্যাগ করেননি শিক্ষার্থীরা, খাবার দোকান বন্ধ, পদত্যাগের দাবিতে অনড়

শরিফুল ইসলাম সীমান্ত, জাবি

উত্তাল জাবি পুলিশি নিরাপত্তায় ভিসি

দুর্নীতির অভিযোগে জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের (জাবি) উপাচার্য অধ্যাপক ড. ফারজানা ইসলামের অপসারণ দাবিতে আন্দোলনরত শিক্ষক-শিক্ষার্থীদের ওপর ছাত্রলীগের হামলার প্রতিবাদে উত্তপ্ত পরিস্থিতি বিরাজ করছে ক্যাম্পাসজুড়ে। মঙ্গলবার ছাত্রলীগের হামলার পর শিক্ষার্থীরা বিক্ষুব্ধ হয়ে উঠলে পরিস্থিতি ঠা-া করতে ক্যাম্পাস অনির্দিষ্টকালের জন্য বন্ধ ঘোষণা করে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন। নির্দেশ দেওয়া হয় সন্ধ্যার মধ্যে আবাসিক হল ত্যাগের। কিন্তু প্রশাসনের এ সিদ্ধান্তকে প্রত্যাখ্যান করে গতকাল দিনভর আন্দোলন চালিয়েছে শিক্ষক-শিক্ষার্থীদের সমন্বয়ে গড়ে ওঠা সংগঠন ‘দুর্নীতির বিরুদ্ধে জাহাঙ্গীরনগর’। বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন গতকাল কয়েক দফা হল ত্যাগের সময় বাড়ালেও ক্ষুব্ধ আন্দোলনকারীরা ক্যাম্পাস ত্যাগ করেননি। দিনভর উপাচার্যের অপসারণ দাবিতে বিশ্ববিদ্যালয়ের পুরাতন প্রশাসনিক ভবনের সামনে সংহতি সমাবেশ করেছেন তারা। এরপর বিকালে আবারও তারা ঘেরাও করেছেন উপাচার্যের বাসভবন। এদিকে উপাচার্যের বাসভবনের সামনে দেড় শতাধিক পুলিশ মোতায়েন করেছে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন। নাম প্রকাশ না করার শর্তে পুলিশের এক উপ-পরিদর্শক জানান, যে কোনো পরিস্থিতি মোকাবিলায় বিশ্ববিদ্যালয়ের অভ্যন্তরে দেড় শতাধিক এবং বিশ্ববিদ্যালয়-সংলগ্ন পার্শ্ববর্তী এলাকায় আরও দেড় শতাধিক পুলিশ রিজার্ভ রাখা হয়েছে। গতকাল দিনভর যা ঘটেছে : সকাল ৯টা থেকেই বিক্ষুব্ধ শিক্ষক-শিক্ষার্থীরা উপাচার্যের অপসারণ দাবিতে বিশ্ববিদ্যালয়ের নতুন কলা ও মানবিক অনুষদ ভবন-সংলগ্ন মুরাদ চত্বরের সামনে জড়ো হতে শুরু করেন। এ সময় বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রশাসনিক ভবন এবং পরীক্ষা নিয়ন্ত্রক অফিসে কর্মচারীরা প্রবেশ করতে চাইলে তাদের সরিয়ে দেন তারা। ফলে গতকালও স্বাভাবিক হয়নি বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রশাসনিক কার্যক্রম। সকাল সাড়ে ১০টায় দুই শতাধিক শিক্ষক-শিক্ষার্থীর একটি বিক্ষোভ মিছিল শুরু হয় মুরাদ চত্বর থেকে। মিছিলটি বিশ্ববিদ্যালয়ের কেন্দ্রীয় শহীদ মিনার-টারজান পয়েন্ট-ছাত্রীদের সবকটি হল-চৌরঙ্গী-পরিবহন চত্বর ঘুরে পুনরায় শহীদ মিনার হয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের পুরাতন রেজিস্ট্রার ভবনের সামনে এসে অবস্থান নেয়। সেখানে উপাচার্যের অপসারণ দাবিতে বেলা সাড়ে ৩টা পর্যন্ত সংহতি সমাবেশ পালন করেন তারা। এরপর বিকাল সাড়ে ৪টায় পুনরায় বিক্ষোভ মিছিল নিয়ে আন্দোলনকারীরা উপাচার্যের বাসভবনের সামনে অবস্থান নেন। সর্বশেষ সন্ধ্যা সাড়ে ৭টায়ও তাদের বিক্ষোভ অব্যাহত ছিল।  আজকের কর্মসূচি : গতকাল সন্ধ্যা ৭টায় উপাচার্যের বাসভবনের সামনে আজকের কর্মসূচি সম্পর্কে আন্দোলনের মুখপাত্র দর্শন বিভাগের অধ্যাপক রায়হান রাইন বলেন, ‘আগামীকাল (আজ) সকাল ১০টায় মুরাদ চত্বরে জড়ো হয়ে বিক্ষোভ মিছিল ও সমাবেশের মধ্য দিয়ে নতুন করে আন্দোলন কর্মসূচি শুরু করব। উপাচার্যের অপসারণ দাবিতে আমাদের যে আন্দোলন, সে দাবি পূরণ হওয়া না পর্যন্ত আমরা থামব না।’ ক্যাম্পাসে অবস্থানের বিষয়ে আন্দোলনের অন্যতম সংগঠক ছাত্র ইউনিয়ন জাবি সংসদের সভাপতি নজির আমিন চৌধুরী জয় বলেন, ‘আমরা চেষ্টা করব নিজ নিজ হলে অবস্থান করার। তবে প্রশাসন যদি থাকতে না দেয় তবে আমরা রাতের মতো ক্যাম্পাস ত্যাগ করব এবং পরদিন আবার ক্যাম্পাসে এসে আন্দোলনে যোগ দেব।’ ক্যাম্পাস ছেড়েছে সাধারণ শিক্ষার্থী ও ছাত্রলীগ : গতকাল সকাল থেকে দুই দফা আবাসিক হল ত্যাগের জন্য সময় বাড়িয়েছে বিশ্ববিদ্যালয়ের হল প্রভোস্ট কমিটি। এরপর বেলা ২টায় কমিটির জরুরি বৈঠক শেষে অধ্যাপক বশির আহমেদ শেষবারের মতো বেলা সাড়ে ৩টার মধ্যে হল ত্যাগের নির্দেশ দেন। তিনি বলেন, ‘মঙ্গলবার হল ত্যাগের বিষয়ে তাৎক্ষণিক সিদ্ধান্ত হওয়ায় অনেক শিক্ষার্থীই বাসের টিকিট না পাওয়াসহ বিভিন্ন সমস্যার কারণে হলে অবস্থান করেছে। তবে আজ (গতকাল) বেলা সাড়ে ৩টার মধ্যে সব হল খালি করা হবে। এ সময়ের মধ্যে সাধারণ শিক্ষার্থী এবং ছাত্রলীগ নেতাদেরও হল ত্যাগ করতে হবে। এ সময়ের পরে প্রতিটি হল-সংলগ্ন খাবারের দোকান বন্ধ রাখার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। এ ছাড়া এ সময়ের মধ্যে হল ত্যাগ না করলে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন পরবর্তী ব্যবস্থা গ্রহণ করবে।’ জানা যায়, বেঁধে দেওয়া এ সময়ের মধ্যে হল ত্যাগ না করলে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন পুলিশের সাহায্য নিয়ে জোরপূর্বক শিক্ষার্থীদের হল ছাড়তে বাধ্য করবে। এমন ঘোষণার পর সাধারণ শিক্ষার্থীসহ ছাত্রলীগের অনেক নেতা-কর্মী হল ত্যাগ করেছেন। মঙ্গলবার আন্দোলনরত শিক্ষক-শিক্ষার্থীদের ওপর হামলায় নেতৃত্ব দেওয়া শাখা ছাত্রলীগ সভাপতি মো জুয়েল রানাও হল ত্যাগ করেন। জুয়েল রানা বলেন, ‘বিশ্ববিদ্যালয়ের আইনের প্রতি শ্রদ্ধা রেখে হল ছেড়ে দিয়েছি। ক্যাম্পাস খোলার নির্দেশ দিলে ফিরে আসব।’ এদিকে জোরপূর্বক বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে বিশ্ববিদ্যালয়ের খাবারের দোকানগুলো। ফলে থমথমে পরিবেশ বিরাজ করছে ক্যাম্পাসজুড়ে। ক্যাম্পাসে সাধারণ শিক্ষার্থীদের উপস্থিতি কমে যাওয়ায় ক্রমেই কমছে আন্দোলনকারী শিক্ষার্থীর সংখ্যা। অপসারণের পাশাপাশি উপাচার্যকে বরখাস্তের দাবি আন্দোলনকারীদের : দুর্নীতির অভিযোগ এবং আন্দোলনকারীদের ওপর হামলার ঘটনায় উপাচার্যের অপসারণের পাশাপাশি তাকে বিশ্ববিদ্যালয় থেকে বরখাস্তের দাবি জানিয়েছেন আন্দোলনকারী শিক্ষকরা। সংহতি সমাবেশে এ দাবি জানান তারা। আন্দোলনকারী শিক্ষকরা বলেন, অধ্যাপক ফারজানা ইসলামের বিরুদ্ধে যে দুর্নীতির অভিযোগ উঠেছে এর তদন্তের দিকে যেতে ভয় পান তিনি। শিক্ষক-শিক্ষার্থীদের কোনো দাবি বা আন্দোলনের প্রতি তিনি কর্ণপাত করেননি। যখন শেষ পর্যন্ত শিক্ষক-শিক্ষার্থীরা অধ্যাপক ফারজানা ইসলামকে অপসারণের দাবিতে তার বাসভবনের সামনে অবস্থান করেছেন, তখন ছাত্রলীগকে নির্দেশ দিয়ে আন্দোলনকারীদের মারধর করা হয়েছে। এ অবস্থার পর অধ্যাপক ফারজানা ইসলাম বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য হিসেবে থাকতে পারেন না। পাশাপাশি শিক্ষক হিসেবে পাঠদান করার অধিকারও তিনি হারিয়েছেন। সংহতি সমাবেশে বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক প্রক্টর তপন কুমার সাহা বলেন, ‘চার বছর বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টরের দায়িত্ব পালন করেছি কিন্তু কখনো তো বিশেষ ছাত্র সংগঠনকে নামানোর প্রয়োজন হয়নি! এখন কেন হলো? গতকালের ঘটনায় আমি ব্যথিত হয়েছি। শিক্ষক-শিক্ষার্থীরা লাঞ্ছিত হওয়ার পর উপাচার্য এটিকে ‘‘গণঅভ্যুত্থান’’ বলেছেন। এটি আসলে এই বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র এবং শিক্ষক হিসেবে দুর্ভাগ্য। জাহাঙ্গীরনগরকে রক্ষা করার দায়িত্ব আমার, আপনার, সবার। এর আগে এ আন্দোলনের সঙ্গে আসিনি কারণ নিজেকে বোঝাতে পারিনি। কিন্তু এখন পেরেছি। অধ্যাপক ফারজানা ইসলামের বিরুদ্ধে শুধু তদন্ত নয়, বরং তাকে বিচারের মুখোমুখি হতেই হবে।’ প্রশাসনিক ভবনের সামনে সংহতি সমাবেশে দর্শন বিভাগের অধ্যাপক কামরুল আহসান বলেন, ‘আমরা যে কর্মযজ্ঞে আছি তা আমরা বাস্তবায়ন করবই। দীর্ঘ তিন মাস অপেক্ষা করেছি, আন্দোলন করেছি। কিন্তু উপাচার্য তদন্ত কমিটির মুখোমুখি হতে চান না। তিনি বলেন, জামায়াত-শিবির ষড়যন্ত্র করছে। অথচ কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগ বলে, তারা ফেয়ার শেয়ার পায়নি, শাখা ছাত্রলীগ ১ কোটি ৬০ লাখ টাকা পেয়েছে। ছাত্রলীগ যেখানে নিজেই স্বীকার করছে যে তারা টাকা পেয়েছে, সেখানে উপাচার্য প্রতিনিয়ত নির্লজ্জভাবে মিথ্যাচার চালিয়ে যাচ্ছেন।’ প্রসঙ্গত, গত বছর ২৩ অক্টোবর একনেকে জাবির অধিকতর উন্নয়নের জন্য ১ হাজার ৪৪৫ কোটি টাকার বাজেট বরাদ্দ করা হয়। প্রকল্পের শুরু থেকেই অপরিকল্পিত উন্নয়ন পরিকল্পনা, সহস্রাধিক গাছ কাটা এবং শাখা ছাত্রলীগের বিরুদ্ধে টেন্ডার ছিনতাইয়ের অভিযোগে সমালোচনার মুখে পড়ে এই বিশাল প্রকল্প। এরপর এ বছর ২৩ আগস্ট বাংলাদেশ প্রতিদিনে ‘উন্নয়ন প্রকল্পের দুই কোটি টাকা ছাত্রলীগের পকেটে’ শীর্ষক একটি সংবাদ প্রকাশিত হয়। প্রকাশিত সংবাদে জানা যায়, ঈদুল আজহার ‘ঈদ সেলামি’ হিসেবে শাখা ছাত্রলীগকে এই টাকা দেয় বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন। এর পর থেকেই উপাচার্যকে দুর্নীতিবাজ আখ্যা দিয়ে তার অপসারণের দাবিতে আন্দোলন শুরু করে শিক্ষক-শিক্ষার্থীদের সমন্বয়ে গড়ে ওঠা সংগঠন ‘দুর্নীতির বিরুদ্ধে জাহাঙ্গীরনগর’। তিন মাসের লাগাতার আন্দোলনের পর সোমবার সন্ধ্যা সাড়ে ৭টায় উপাচার্যের অপসারণের দাবিতে সংগঠনটির ব্যানারে শিক্ষক-শিক্ষার্থীরা উপাচার্যের বাসভবন ঘেরাও করেন। পরদিন মঙ্গলবার শাখা ছাত্রলীগের নেতা-কর্মীরা আন্দোলনকারী শিক্ষক-শিক্ষার্থীদের ওপর অতর্কিত হামলা চালায়। এতে আট শিক্ষকসহ অন্তত ৩৫ জন আহত হন। এ ঘটনায় শিক্ষার্থীরা বিক্ষুব্ধ হয়ে উঠলে সেদিনই বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাস অনির্দিষ্টকালের জন্য বন্ধ ঘোষণা করে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন।


আপনার মন্তব্য

এই বিভাগের আরও খবর