শিরোনাম
প্রকাশ : শনিবার, ১৫ ফেব্রুয়ারি, ২০২০ ০০:০০ টা
আপলোড : ১৪ ফেব্রুয়ারি, ২০২০ ২৩:৩১

বগুড়া ও ধানমন্ডি কে হবেন নৌকার মাঝি

নিজস্ব প্রতিবেদক, ঢাকা ও বগুড়া

বগুড়া ও ধানমন্ডি  কে হবেন নৌকার মাঝি

ঢাকার ধানমন্ডি ও বগুড়ার উপনির্বাচন নিয়ে জোর লবিং চলছে আওয়ামী লীগে। ধানমেিত শক্তিশালী প্রার্থীরা আওয়ামী লীগের মনোনয়নপত্র নিয়েছেন। সর্বশেষ সাঈদ খোকনের মনোনয়নপত্র সংগ্রহে নতুন চমক তৈরি হয়েছে।

জানা গেছে, ধানমন্ডি (ঢাকা-১০) আসনে মনোনয়ন চান ব্যবসায়ী নেতা শফিউল ইসলাম মহিউদ্দিন। গত মঙ্গলবার এফবিসিসিআইর সাবেক এ সভাপতি আওয়ামী লীগের মনোনয়নপত্র সংগ্রহ করেন। দক্ষিণ সিটি করপোরেশন নির্বাচনে মেয়র পদে দলীয় মনোনয়নের দৌড়ে শেখ ফজলে নূর তাপসের কাছে হেরে যাওয়া সাঈদ খোকন এবার তাপসের ছেড়ে দেওয়া এ সংসদীয় আসনে আওয়ামী লীগের মনোনয়ন চান। গতকাল   বিকালে দলীয় মনোনয়নের আবেদনপত্র জমা দিয়েছেন ঢাকা দক্ষিণ সিটির এ বিদায়ী মেয়র। এ ছাড়া এই উপনির্বাচনে প্রার্থী হতে ক্ষমতাসীন দলের মনোনয়ন ফরম সংগ্রহ করেছেন মেজর ইয়াদ আলী ফকির, অ্যাডভোকেট বশির, আদম তমিজী হক, ড. আবদুল ওয়াদুদ, মোয়াজ্জেম হোসেন খান মজলিশ, মো. কুদ্দুসুর রহমান, এ এস এম কামরুল আহসান ও কাজী মোর্শেদ হোসেন কামাল। আগামী ২১ মার্চ ভোট হবে এ আসনে। একাধিক শক্তিশালী প্রার্থী দলীয় মনোনয়নপত্র তোলায় এ আসনে রাজনৈতিক সমীকরণ ভিন্ন মাত্রা নিয়েছে। মনোনয়ন পেতে নীতিনির্ধারণী পর্যায়ে জোর লবিং শুরু করেছেন সম্ভাব্য একাধিক প্রার্থী। তবে সবাই তাকিয়ে আছেন দলের সভানেত্রীর দিকে।

এদিকে বগুড়া-১ (সারিয়াকান্দি-সোনাতলা) আসনের উপ-নির্বাচনে মনোনয়ন পেতে আওয়ামী লীগের সম্ভাব্য প্রার্থীরা দৌড়-ঝাঁপ শুরু করেছেন। প্রয়াত এমপি আবদুল মান্নানের আসনের কে হচ্ছেন নৌকার মাঝি তা নিয়ে সারিয়াকান্দি ও সোনাতলা উপজেলার পাশাপাশি বগুড়াজুড়ে চলছে গুঞ্জন। মনোনয়ন প্রত্যাশীদের মধ্যে প্রয়াত এমপি আবদুল মান্নানের স্ত্রী সাহাদারা মান্নানের সঙ্গে মনোনয়ন পাওয়ার দৌড়ে আছেন স্বেচ্ছাসেবক লীগ নেতা আবদুর রাজ্জাক।

বগুড়া-১ আসনে মোট ভোটার ৩ লাখ ৮ হাজার ৯০২ জন। এর মধ্যে সারিয়াকান্দি উপজেলার ভোটার সংখ্যা ১ লাখ ৬৭ হাজার ৭৮২  এবং সোনাতলা উপজেলার ভোটার সংখ্যা ১ লাখ ৪১ হাজার ১২০ জন।

বগুড়া-১ আসনে আওয়ামী লীগ থেকে মনোনয়ন প্রত্যাশা করছেন প্রয়াত এমপি আবদুল মান্নানের স্ত্রী সাহাদারা মান্নান শিল্পী কিংবা তাঁর একমাত্র ছেলে সাখাওয়াত হোসেন সজল। দুই উপজেলার আওয়ামী লীগের একটি বড় অংশ তাদের যে কোনো একজনের মনোনয়ন প্রত্যাশা করছেন। সারিয়াকান্দি উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও বগুড়া জেলা পরিষদ সদস্য সাহাদারা মান্নান শিল্পীর প্রয়াত এমপির সহধর্মিণী হিসেবে জনমানুষের সঙ্গে এলাকায় কাজ করার অভিজ্ঞতা রয়েছে। এর পাশাপাশি কেন্দ্রীয় স্বেচ্ছাসেবক লীগের সহসভাপতি ও ডাকসুর সাবেক সদস্য ম. আবদুর রাজ্জাক প্রয়াত এমপি আবদুল মান্নানের সঙ্গে সব সময় থেকে স্থানীয় উন্নয়ন কর্মকান্ডে  অংশ নেওয়ার কারণে নির্বাচনী এলাকায় বেশ জনপ্রিয় মুখ। এদিকে প্রার্থী হওয়ার ঘোষণা দিয়ে আওয়ামী লীগের মনোনয়ন ফরম কিনেছেন বগুড়া জেলা আওয়ামী লীগের সাবেক সহসভাপতি অ্যাডভোকেট রেজাউল করিম মন্টু, জেলা আওয়ামী লীগের সাবেক দফতর সম্পাদক অ্যাডভোকেট জাকির হোসেন নবাব, সারিয়াকান্দি পৌরসভার মেয়র ও উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আলমগীর শাহী সুমন, আওয়ামী লীগের সাবেক এমপি মরহুম সিরাজুল ইসলাম সুরুজের ছেলে মোজাহেদুল ইসলাম বিপ্লব, সাবেক সরকারি কর্মকর্তা প্রকৌশলী খাবিরুজ্জামান বাদশা, আবদুল মান্নানের ভায়রা ও যুক্তরাষ্ট্র আওয়ামী লীগের সভাপতি ড. সিদ্দিকুর রহমান ও ডা. মোকবুলার রহমান। সম্ভাব্য সব প্রার্থীই বলছেন প্রয়াত এমপি আবদুল মান্নানের অসমাপ্ত কাজ সমাপ্ত করাসহ উন্নয়ন এগিয়ে নিতেই প্রার্থী হতে চান তারা।


আপনার মন্তব্য

এই বিভাগের আরও খবর