শিরোনাম
প্রকাশ : শনিবার, ১৯ সেপ্টেম্বর, ২০২০ ০০:০০ টা
আপলোড : ১৮ সেপ্টেম্বর, ২০২০ ২৩:৩০

চিকিৎসা-ভ্রমণে বিদেশ যায় হাজার হাজার কোটি টাকা

► নেই বিশ্বমানের চেইন হাসপাতাল ► সরকারি হাসপাতালে চরম অব্যবস্থাপনা ► প্রয়োজন বেসরকারি বিনিয়োগ ► দেশীয় পর্যটনের ব্র্যান্ডিংয়ের অভাব

মাহমুদ আজহার ও জয়শ্রী ভাদুড়ী

চিকিৎসা-ভ্রমণে বিদেশ যায় হাজার হাজার কোটি টাকা

উন্নত চিকিৎসাসহ ভ্রমণে প্রতি বছর দেশের বাইরে চলে যাচ্ছে হাজার হাজার কোটি টাকা। দেশে নেই বিশ্বমানের চেইন হাসপাতাল। অনেকে বাধ্য হয়েই বিদেশে বিপুল পরিমাণ অর্থ ব্যয় করে চিকিৎসাসেবা নিচ্ছেন। ভ্রমণ করছেন বিভিন্ন দেশ। বাংলাদেশে নামে গুটি কয়েক অভিজাত হাসপাতাল থাকলেও সেগুলো নিয়ে রোগীদের অভিযোগের শেষ নেই। সরকারি হাসপাতালগুলোতেও রয়েছে চরম অব্যবস্থাপনা। এ ছাড়া বাংলাদেশের পর্যটনকেও আন্তর্জাতিক পরিমন্ডলে যথাযথভাবে ব্র্যান্ডিং করা হচ্ছে না। সংশ্লিষ্টরা বলছেন, এ খাতে বাজেট অপ্রতুল। লোকবলের অভাব। এ ছাড়া সমন্বয়হীনতা কাজ করছে পর্যটনে। 

বাংলাদেশ ট্যুরিজম বোর্ড ও ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ট্যুরিজম অ্যান্ড হসপিটালিটি ম্যানেজমেন্ট বিভাগের সংশ্লিষ্টদের সঙ্গে কথা বলে

জানা গেছে, গত ২০১৯ সালে বিশ্বের বিভিন্ন দেশে ৩৭ লাখ বাংলাদেশি ভ্রমণে গেলেও বিপরীতে মাত্র ৭-৮ লাখ বিদেশি পর্যটক হিসেবে বাংলাদেশ ভ্রমণ করেছেন। একই বছরে চিকিৎসাসহ বিদেশ ভ্রমণে প্রায় ৪০ হাজার কোটি টাকা দেশের বাইরে চলে গেছে। এর মধ্যে ভারতে এক বছরে প্রায় ২২ লাখ বাংলাদেশি ভ্রমণ করেছেন। বাংলাদেশিদের ভ্রমণে পছন্দের তালিকায় ভারতের পাশাপাশি শীর্ষস্থানে রয়েছে মালয়েশিয়া, সিঙ্গাপুর, থাইল্যান্ড ও চীন। এ ছাড়া দেশের ভিতরে বিভিন্ন পর্যটন কেন্দ্রে প্রায় ১ কোটি ২০ লাখ বাংলাদেশি ভ্রমণ করছেন। সম্প্রতি জাতীয় অর্থনৈতিক পরিষদের (এনইসি) সম্মেলন কক্ষে ‘বাংলাদেশের  প্রেক্ষিত পরিকল্পনা ২০২১-২০৪১ জন অবহিতকরণ’ সভায় প্রধানমন্ত্রীর মুখ্য সচিব ড. আহমদ কায়কাউস বলেন, চিকিৎসা খাতে প্রতি বছর বিদেশে চলে যাচ্ছে ৩০ হাজার কোটি টাকা। আমাদের স্বাস্থ্য ও শিক্ষা ব্যবস্থা যদি ভালো হতো, উন্নত হতো, তাহলে এত টাকা বিদেশে চলে যেত না। এই টাকা ধরে রাখতে হলে দেশের স্বাস্থ্য খাতের উন্নয়ন করতে হবে।

বাংলাদেশ ট্যুরিজম বোর্ডের উপ-পরিচালক (পরিকল্পনা ও গবেষণা) মোহাম্মাদ সাইফুল হাসান বাংলাদেশ প্রতিদিনকে বলেন, ‘বিদেশ ভ্রমণে আমাদের অনেক টাকা দেশের বাইরে চলে যায়। এর মধ্যে একটি অংশ যান চিকিৎসার জন্য, বাকিরা যান ঘুরতে। করোনাভাইরাসের কারণে আগামীতে হয়তো দেশের অভ্যন্তরীণ ভ্রমণ বেড়ে যাবে। এতে দেশের অর্থনৈতিক চাকা আরও সচল হবে।’

পর্যটন সংশ্লিষ্টরা বলছেন, বাংলাদেশের সৌন্দর্য বা আকর্ষণের কোনো ঘাটতি নেই। বাংলাদেশ ষড়ঋতুর দেশ। সবচেয়ে বড় সমস্যা পর্যাপ্ত বাজেট না থাকা ও লোকবলের অভাব। এ খাতে সমন্বয়হীনতাও আছে। বাংলাদেশের জিডিপিতে ৪.৪ শতাংশ পর্যটন খাত অবদান রাখছে এবং কর্মসংস্থানে ২.২ শতাংশ ভূমিকা রাখছে। পর্যটনে যত বাজেট রয়েছে তার মধ্যে বেসামরিক বিমান ও পরিবহনেই ৮০ ভাগ বাজেট চলে যায়। মাত্র ২০ ভাগ শুধু পর্যটনে ব্যয় করা হয়। উক্ত খাতের বাজেটের ৫০ ভাগই পর্যটনে ব্যবহার করতে হবে। বাজেট বরাদ্দ বাড়াতে হবে। পর্যটনের জন্য আলাদা মন্ত্রণালয় দরকার। বিমানের সঙ্গে পর্যটন মন্ত্রণালয়কে জুড়ে দেওয়া ঠিক নয়। এ প্রসঙ্গে গতকাল ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ট্যুরিজম অ্যান্ড হসপিটালিটি ম্যানেজমেন্ট বিভাগের চেয়ারম্যান ড. বদরুজ্জামান ভূঁইয়া বাংলাদেশ প্রতিদিনকে বলেন, ‘ব্র্যান্ডিংয়ের ক্ষেত্রে প্রতিটি দেশেরই একটি স্লোগান থাকে। আন্তর্জাতিক পরিমন্ডলে আমাদের স্লোগান হচ্ছে ‘বিউটিফুল বাংলাদেশ’। আমাদের ব্র্যান্ডিংটাকে আমরা সঠিকভাবে কাজে লাগাতে পারছি না। আমাদের যে সৌন্দর্য, আকর্ষণ বা বৈচিত্র্যময় দেশ-সেটাকে আমরা বৈদেশিক বাজারে তুলে ধরতে পারছি না। এ জন্য আমাদের সমন্বিত উদ্যোগের অভাব আছে। আমাদের পর্যটন খাত ১৪ থেকে ১৫টি মন্ত্রণালয়ের সঙ্গে সম্পৃক্ত। এক্ষেত্রে কাজে ব্যাপক দীর্ঘসূত্রতা হয়। অনেক কাজ বিলম্বিত হয়। যদি একটি মন্ত্রণালয়ের সঙ্গে এ খাত সম্পৃক্ত থাকত তাহলে কাজে আরও গতি আসত। আমাদের প্রচার-প্রসারের যথেষ্ট অভাব আছে। থাইল্যান্ডকে যদি আমরা উদাহরণ হিসেবে দেখি, তারা শুধু পর্যটন পুলিশের সঙ্গে সমন্বয় করে এ খাতকে সামনের দিকে এগিয়ে নিয়ে যাচ্ছে।’ 

নেই নামিদামি চেইন হাসপাতাল : রোগে আক্রান্ত হলে উচ্চবিত্তরা যান সিঙ্গাপুর, যুক্তরাজ্য, যুক্তরাষ্ট্র, থাইল্যান্ড, মালয়েশিয়াসহ বিভিন্ন দেশে। আর মধ্যবিত্ত সাধ্যের মধ্যে ভারতে গিয়ে চিকিৎসা করান। প্রতিবছর বিদেশ গিয়ে স্বনামধন্য চেইন হাসপাতালগুলোতে চিকিৎসা নেওয়া রোগীর সংখ্যা বাড়ছে। দেশের স্বাস্থ্যসেবার অব্যবস্থাপনা ও আস্থাহীনতায় বিদেশমুখিতা ঊর্ধ্বমুখী। এই হাসপাতালগুলোর শাখা দেশে খোলার ব্যাপারে নেই কোনো উদ্যোগ। দেশে মাত্র দুটি চেইন হাসপাতাল ‘এভারকেয়ার’ এবং ‘এএফসি হেলথ ফরটিস হার্ট ইনস্টিটিউট’। রাজধানীতে এভারকেয়ারের একটি শাখা রয়েছে। চট্টগ্রাম, খুলনা ও কুমিল্লাতে রয়েছে এএফসি হেলথ ফরটিস হার্ট ইনস্টিটিউটের শাখা। ক্লিনিক, ডায়াগনস্টিক সেন্টারের ছড়াছড়ি থাকলেও মানসম্পন্ন সেবা দিতে চেইন হাসপাতাল গড়ার আগ্রহ দেখা যায় না। বেসরকারি বিনিয়োগ না থাকায় সেবার মান বাড়ানো নিয়ে নেই কোনো সুস্থ প্রতিযোগিতা। চলতি বছর বিশ্বের সেরা ১০০ হাসপাতাল নিয়ে করা একটি র?্যাংকিংয়ে ঠাঁই হয়নি বাংলাদেশের কোনো হাসপাতালের। তালিকায় দক্ষিণ এশিয়ার একমাত্র দেশ হিসেবে ভারতের মাত্র একটি হাসপাতালের জায়গা হয়েছে। নয়াদিল্লিতে অবস্থিত অল ইন্ডিয়া ইনস্টিটিউট অব মেডিকেল সায়েন্সেস প্রথমবারের মতো বিশ্বের সেরা ১০০ হাসপাতালের তালিকায় ঠাঁই পেয়েছে। সম্প্রতি আমেরিকার সংবাদবিষয়ক বিখ্যাত সাপ্তাহিক ম্যাগাজিন নিউজউইক বিশ্বের সেরা ১০০ হাসপাতাল নিয়ে এ র?্যাংকিংটি প্রকাশ করে। 

সরকারি হাসপাতালে অব্যবস্থাপনা : সরকারি হাসপাতালে অব্যবস্থাপনার অভিযোগ আগেও ছিল এখনো আছে। সরকার বদল হচ্ছে, সময় গড়িয়ে যাচ্ছে, হাসপাতালের সংখ্যা বাড়ছে কিন্তু রোগীর ভোগান্তি কমছে না। হাসপাতালের ব্যবস্থাপনা, নিয়মশৃঙ্খলা, রোগীর সঙ্গে চিকিৎসক ও স্বাস্থ্যকর্মীদের খারাপ আচরণ নিয়ে অভিযোগের অন্ত নেই। হাসপাতালে রোগীর স্বজনদের সঙ্গে ঘটছে মারপিটের ঘটনা। কখনো রোগীর স্বজনরা মেরে আহত করছেন চিকিৎসককে, আবার কখনো ইন্টার্ন চিকিৎসকরা মিলে পিটুনি দিচ্ছেন রোগীর স্বজনদের। প্রায়ই ঘটছে এ ধরনের ঘটনা। হাসপাতালে গিয়ে সেবা না পেয়ে ভোগান্তিতে পড়ছে মানুষ। রোগীর অনুপাতে দেশে হাসপাতালে শয্যা ও চিকিৎসক সংখ্যায় বিশাল ফারাক। হাসপাতালের মেঝেতে থাকছেন দুরারোগ্য ব্যাধিতে আক্রান্ত রোগীরা। ক্যান্সার ইনস্টিটিউটের পাশের একটি ভবনের বারান্দায় দেখা যায়, গাদাগাদি করে থাকছেন ২০ জন মানুষ। এর মধ্যে রোগী আছেন সাতজন। করোনাভাইরাস মহামারীর মধ্যেও এভাবে থাকছেন তারা। রাজধানীতে থাকার জায়গা নেই। হোটেলে ভাড়া দিয়ে থাকার সামর্থ্য নেই তাদের। কেমোথেরাপি দেওয়ার জন্য নিয়মিত আসতে হয় তাদের। হাসপাতালে দীর্ঘ লাইন পেরিয়ে সিরিয়াল পাওয়ার জন্য আগে থেকেই এসে অপেক্ষা করছেন তারা। মাদারীপুর থেকে আসা রোগীর স্বজন মোক্তাদির হোসেন বলেন, আমার চাচি ব্রেস্ট ক্যান্সারে আক্রান্ত। এক বছর ধরে কেমোথেরাপি চলছে। আমাদের ভারতে নিয়ে চিকিৎসা করানোর সামর্থ্য নেই। এই ক্যান্সার ইনস্টিটিউটই শেষ ভরসা। আর্নস্ট অ্যান্ড ইয়ংয়ের (ইওয়াই) প্রতিবেদনে বলা হয়, বাংলাদেশ থেকে ভারতে যাওয়া রোগীদের ৬২ শতাংশই অসংক্রামক নানা ব্যাধির (এনসিডি) চিকিৎসার জন্য যাচ্ছে। রোগীদের বিদেশমুখী স্রোত শুরু হলেও দেশের সেবার মান উন্নয়নে কোনো উদ্যোগ নেই। করোনাভাইরাস মহামারীতে ফুটে উঠেছে  দেশের স্বাস্থ্যসেবার ভঙ্গুর চিত্র। এ ব্যাপারে ফাউন্ডেশন ফর ডক্টরস সেইফটি, রাইটস অ্যান্ড রেসপনসিবিলিটিস (এফডিএসআর) এর চেয়ারম্যান অধ্যাপক ডা. আবুল হাসনাৎ মিল্টন বাংলাদেশ প্রতিদিনকে বলেন, দেশের উচ্চবিত্ত শ্রেণির কিছু মানুষ বিদেশে যাবেই। তবে উচ্চমধ্যবিত্ত ও মধ্যবিত্তের বিদেশগামিতা কমাতে হলে দেশে বেসরকারি খাতে হাসপাতালে সেবার মান বাড়ানোর দিকে মনোযোগী হতে হবে। একটু উদ্যোগী হলে বেসরকারি স্বাস্থ্য খাতে প্রচুর বিদেশি বিনিয়োগ আকৃষ্ট করা সম্ভব। সেক্ষেত্রে দেশেই মানুষ উন্নতমানের আধুনিক চিকিৎসা পাবে, যা রোগীদের বিদেশগামিতা কমাতে সহায়তা করবে।


আপনার মন্তব্য

এই বিভাগের আরও খবর