শিরোনাম
প্রকাশ : বুধবার, ৩১ মার্চ, ২০২১ ০০:০০ টা
আপলোড : ৩০ মার্চ, ২০২১ ২৩:১৭

হেফাজতের কর্মসূচির সঙ্গে বিএনপির সম্পর্ক নেই

নিজস্ব প্রতিবেদক

হেফাজতের কর্মসূচির সঙ্গে বিএনপির সম্পর্ক নেই

হেফাজতে ইসলামের সাম্প্রতিক কর্মসূচিতে বিএনপির কোনো সম্পর্ক নেই বলে জানিয়েছেন দলটির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর। তিনি বলেন, ‘হেফাজতের এ কর্মসূচিগুলোর সঙ্গে বিএনপির কোনো সম্পর্ক নেই। সরকার যে হত্যাকান্ড ঘটিয়েছে, তার প্রতিবাদ আমরা করেছি। সভা-সমাবেশ করা বাংলাদেশের মানুষের গণতান্ত্রিক ও মৌলিক অধিকার।’ গতকাল বিকালে গুলশানে বিএনপি চেয়ারপারসনের কার্যালয়ে এক জরুরি সংবাদ সম্মেলনে তিনি এ দাবি করেন। বিএনপি মহাসচিব অভিযোগ করে বলেন, সরকার করোনা নিয়ে অনেক তথ্য গোপন করছে। করোনা সংক্রমণ নিয়ন্ত্রণে সরকারের দৃশ্যমান কোনো উদ্যোগ নেই। এখনো করোনার যে টেস্ট হচ্ছে তা খুবই কম। শুধু ঢাকাতেই নয়, সারা দেশেও টেস্ট হচ্ছে না। তিনি বলেন, সরকার কখনোই এটাকে সঠিকভাবে উপলব্ধি করেনি। একটা জাতীয় ঐক্য সৃষ্টি করে সবাইকে নিয়ে ঐক্যবদ্ধভাবে কাজেরও চেষ্টা করেনি। আজকে করোনা সংক্রমণ মারাত্মকভাবে, ভয়ঙ্করভাবে বাড়ছে। এ অবস্থার জন্য সম্পূর্ণ দায়ী সরকার। মির্জা ফখরুল বলেন, উৎসব পালন করতে বিদেশি মেহমান আসার অনেক আগেই স্বাস্থ্য বিভাগ থেকে বলা হয়েছিল, করোনা খুব মারাত্মকভাবে আসছে, অবিলম্বে উৎসব বন্ধ করুন। কিন্তু তখন সরকার তা করেনি।

এখন যেহেতু উৎসব শেষ হয়েছে, অতিথিরা চলে গেছেন, এখন স্থাস্থ্য বিভাগ বিষয়টাকে আবার সামনে আনছে। করোনা নিয়ন্ত্রণে স্বাস্থ্য বিভাগ একটা ১৮ দফা নির্দেশনা জারি করেছে। কিন্তু এটা বাস্তবায়ন করার জন্য সরকারের দৃশ্যমান কোনো উদ্যোগ লক্ষ্য করা যায়নি।

বিএনপির এই মুখপাত্র বলেন, আজকে দেশে একটা মিথ্যা প্রচারণা করা হচ্ছে, সরকার করোনা সমস্যা চমৎকারভাবে সমাধান করছে। তারা করোনাকে নিয়ন্ত্রণ রাখতে পেরেছে। কিন্তু এটা একেবারেই মিথ্যা কথা। স্বাস্থ্য বিভাগ ১৮ দফা দিয়েছে পালন করার জন্য। সরকারের উদ্যোগটা কোথায়? সরকারের পক্ষ থেকে যে দৃশ্যমান একটা প্রচার থাকবে, উদ্যোগ থাকবে-সেটা লক্ষ্য করা যাচ্ছে না।

করোনা সংক্রমণ থেকে রক্ষা মাস্ক পরার বিষয়ে প্রচারণা চালানোর প্রসঙ্গ টেনে মির্জা ফখরুল বলেন, জনগণের মধ্যে সচেতনতার অভাব আমরা দেখতে পাচ্ছি। অনেকেই মাস্ক পরছেন না। কেন পরেন না? কারণ, সরকার সেটা তাদের বুঝাতে সক্ষম হয়নি। যে প্রচার চালানোর দরকার ছিল বা যে উদ্যোগ নেওয়ার দরকার ছিল সেই উদ্যোগটা নেয়নি সরকার। যার ফলে সংক্রমণ মারাত্মকভাবে বাড়ছে।

সংবাদ সম্মেলনে দলের সৈয়দ এমরান সালেহ প্রিন্স, শহীদ উদ্দিন চৌধুরী এ্যানী, রিয়াজ উদ্দিন নসু, তাইফুল ইসলাম টিপু ও শায়রুল কবির খান প্রমুখ নেতা উপস্থিত ছিলেন।


আপনার মন্তব্য