শিরোনাম
প্রকাশ : সোমবার, ৩১ মে, ২০২১ ০০:০০ টা
আপলোড : ৩০ মে, ২০২১ ২৩:১৫

করোনা প্যাকেজের সুদ ভর্তুকিতে ১০ হাজার কোটি টাকা

বরাদ্দ বাড়ছে রেমিট্যান্স প্রণোদনায়

রুকনুজ্জামান অঞ্জন

করোনা প্যাকেজের সুদ ভর্তুকিতে ১০ হাজার কোটি টাকা
Google News

করোনা মহামারীর জন্য সরকার ঘোষিত প্রণোদনা প্যাকেজের সুদ ভর্তুকিতে ১০ হাজার কোটি টাকার কিছু বেশি বরাদ্দ রাখা হতে পারে আসন্ন বাজেটে। পাশাপাশি রেমিট্যান্সে প্রণোদনা বাবদ বরাদ্দ দেওয়া হতে পারে ৪ হাজার কোটি টাকা, যা চলতি অর্থবছরের বরাদ্দের চেয়ে প্রায় ৩৫ শতাংশ বেশি। অর্থ মন্ত্রণালয় সূত্রে এসব তথ্য জানা গেছে।

সূত্র জানায়, বাজেটে প্রণোদনা ও ভর্তুকি বাবদ যে বরাদ্দ থাকে এবার তার সঙ্গে নতুন আরেকটি খাত যুক্ত হচ্ছে- করোনা মহামারী মোকাবিলায় সরকারের প্রণোদনা প্যাকেজের সুদ ও সার্ভিস চার্জ পরিশোধে।

সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয়ের এক কর্মকর্তা জানান, চলমান মহামারী মোকাবিলায় সরকারের পক্ষ থেকে মোট ১ লাখ ২৮ হাজার ৪৫১ কোটি টাকার ২৩টি প্রণোদনা প্যাকেজ ঘোষণা করা হয়েছে। এসব প্যাকেজের কোনো কোনোটিতে  ব্যাংকঋণের সুদ ভর্তুকি দিচ্ছে সরকার। আবার করোনার কারণে আয় কমে যাওয়ায় প্রধানমন্ত্রী ৩৫ লাখ পরিবারকে আড়াই হাজার কোটি টাকা নগদ অর্থ দিয়েছেন মোবাইল ব্যাংকিং-এ। এর বাইরে বিভিন্ন ধরনের সামাজিক নিরাপত্তা ভাতাও এখন মোবাইল ব্যাংকিং সিস্টেমে ক্যাশ ট্রান্সফার করা হচ্ছে। এই সুদ ভর্তুকি ও ক্যাশ ট্রান্সফার বাবদ ব্যয় মেটাতে বাজেটে অন্যান্য ভর্তুকি বাবদ প্রায় ১০ হাজার কোটি টাকা বরাদ্দ প্রস্তাব করা হচ্ছে। কোভিড-১৯ মহামারীর কারণে ক্ষতিগ্রস্ত শিল্প ও সার্ভিস সেক্টরের প্রতিষ্ঠানগুলোর জন্য ওয়ার্কিং ক্যাপিটাল সুবিধা বাবদ যে ৩০ হাজার কোটি টাকার প্রণোদনা ঘোষণা করা হয়েছে,  তার সুদের হার ৯ শতাংশ। এর মধ্যে গ্রাহক দিচ্ছে ৪ দশমিক ৫০ শতাংশ বাকিটা ব্যাংকগুলোকে সুদ ভর্তুকি দিচ্ছে সরকার।  ক্ষুদ্র ও মাঝারি শিল্প প্রতিষ্ঠানগুলোর মূলধন সুবিধা দিতে ঘোষিত ২০ হাজার কোটি টাকার প্রণোদনা তহবিলে আবার সরকার সুদ ভর্তুকি দিচ্ছে ৫ শতাংশ হারে। ঘোষিত প্রণোদনার এসব সুদ ভর্তুকি দিতেই বাজেটে বরাদ্দ রাখা হচ্ছে।

রেমিট্যান্সে প্রণোদনায় বরাদ্দ বাড়ছে : সরকার বৈধপথে রেমিট্যান্স আয় বাড়াতে ২ শতাংশ হারে প্রণোদনা ঘোষণা করার পর বেড়েছে প্রবাসী আয়। ফলে এ বাবদ সরকারের ব্যয়ও বেড়েছে। চলতি অর্থবছরে রেমিট্যান্স প্রণোদনা বাবদ ৩ হাজার ৬৪ কোটি টাকা বরাদ্দ প্রাক্কলন করা হলেও আসন্ন বাজেটে এ বাবদ প্রায় ১ হাজার কোটি টাকা বেশি বরাদ্দ দেওয়া হচ্ছে। নতুন বাজেটে রেমিট্যান্স প্রণোদনা দিতে বরাদ্দ প্রস্তাব করা হতে পারে ৪ হাজার কোটি টাকা। অর্থ মন্ত্রণালয়ের কর্মকর্তারা জানান, ২০১৯-২০ অর্থবছর থেকে রেমিট্যান্স আয়ে প্রণোদনা দেওয়া শুরু করে সরকার। ওই বছর আসে ১ হাজার ৮২০  কোটি ডলার। আর ২০২০-২১ অর্থবছরের প্রথম ১০ মাসেই এসেছে ২ হাজার ৬৬ কোটি ডলার। এর মধ্যে ঈদ সামনে রেখে গত এপ্রিলে ২০৬ কোটি ডলার পাঠিয়েছেন প্রবাসীরা। রেমিট্যান্স আয় বাড়ায় এ বাবদ সরকারের প্রণোদনা ব্যয়ও বাড়ছে, যা গত বছরের তুলনায় প্রায় ৩৫ শতাংশ বেশি।

এই বিভাগের আরও খবর