সোমবার, ২৪ জানুয়ারি, ২০২২ ০০:০০ টা

সংসদে উঠল নির্বাচন কমিশন গঠন বিল

নিজস্ব প্রতিবেদক

সার্চ কমিটির মাধ্যমে নির্বাচন কমিশন গঠনের বিধান রেখে জাতীয় সংসদে উত্থাপিত হয়েছে নির্বাচন কমিশন (ইসি) গঠন বিল। ‘প্রধান নির্বাচন কমিশনার এবং নির্বাচন কমিশনার নিয়োগ বিল-২০২২’ শীর্ষক এই বিলে আইনটি প্রণয়নের আগে গঠিত সব নির্বাচন কমিশনের বৈধতা দেওয়ারও বিধান রাখা হয়েছে।

স্পিকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরীর সভাপতিত্বে সংসদে গতকালের বৈঠকে বিলটি উত্থাপন করেন আইনমন্ত্রী আনিসুল হক। এর আগে বিলটি উত্থাপনের বিরোধিতা করে বক্তব্য রাখেন বিএনপির এমপি হারুনুর রশীদ। আপত্তির জবাবে আইনমন্ত্রী আইনটির বিষয়ে বিস্তারিত ব্যাখ্যা দেন। এরপর স্পিকার সংসদে বিলটি উত্থাপনে আপত্তির বিষয়টি ভোটে দিলে তা কণ্ঠভোটে নাকচ হয়ে যায়। পরে বিলটি সাত কার্যদিবসের মধ্যে পরীক্ষা-নিরীক্ষা করে সংসদে প্রতিবেদন দিতে সংশ্লিষ্ট সংসদীয় কমিটিতে পাঠানো হয়। বিলে বলা হয়েছে, ‘প্রধান নির্বাচন কমিশনার এবং নির্বাচন কমিশনার নিয়োগদানের উদ্দেশ্যে রাষ্ট্রপতি কর্তৃক ইতিপূর্বে গঠিত অনুসন্ধান কমিটির ও তৎকর্তৃক সম্পাদিত কার্যাবলি এবং উক্ত অনুসন্ধান কমিটির সুপারিশের ভিত্তিতে প্রধান নির্বাচন কমিশনার এবং নির্বাচন কমিশনারের নিয়োগ বৈধ ছিল বলিয়া গণ্য হবে এবং উক্ত বিষয়ে কোনো আদালতে কোনো প্রশ্ন উত্থাপন করা যাবে না।’ বিলে বলা হয়েছে, রাষ্ট্রপতি ছয় সদস্যের অনুসন্ধান কমিটি গঠন করবেন, যার সভাপতি হবেন প্রধান বিচারপতি মনোনীত আপিল বিভাগের একজন বিচারক। সদস্য হিসেবে থাকবেন- প্রধান বিচারপতির মনোনীত হাই কোর্ট বিভাগের একজন বিচারক, মহাহিসাব নিরীক্ষক ও নিয়ন্ত্রক, সরকারি কমিশনের চেয়ারম্যান এবং রাষ্ট্রপতি মনোনীত দুজন বিশিষ্ট নাগরিক। সার্চ (অনুসন্ধান) কমিটি আইনে বেঁধে দেওয়া যোগ্যতা, অযোগ্যতা অভিজ্ঞতা, দক্ষতা ও সুনাম বিবেচনা করে সিইসি ও নির্বাচন কমিশনার পদে নিয়োগের জন্য রাষ্ট্রপতির কাছে সুপারিশ করবে। কমিটি সিইসি ও কমিশনারদের প্রতি পদের জন্য দুজন করে ব্যক্তির নাম সুপারিশ করতে পারবে। এ জন্য কমিটি সিইসি এবং নির্বাচন কমিশনার পদে যোগ্যদের অনুসন্ধানের জন্য রাজনৈতিক দল এবং পেশাজীবী সংগঠনের কাছ থেকে নাম আহ্বান করতে পারবে। তিনজন সদস্যের উপস্থিতিতে কমিটির সভার কোরাম হবে। এ আইন করার উদ্দেশ্য ও কারণ সম্পর্কে আইনমন্ত্রী বিলে বলেছেন, বাংলাদেশের সংবিধানে ১১৮ (১) অনুচ্ছেদে বিধান রয়েছে যে, ‘প্রধান নির্বাচন কমিশনার ও অনধিক চারজন নির্বাচন কমিশনার লইয়া বাংলাদেশের একটি নির্বাচন কমিশন থাকিবে এবং উক্ত বিষয়ে প্রণীত আইনের বিধানাবলি সাপেক্ষে রাষ্ট্রপতি ‘প্রধান নির্বাচন কমিশনারকে ও অন্যান্য নির্বাচন কমিশনারকে নিয়োগদান করিবেন।’

উক্ত বিধান বাস্তবায়ন কল্পে আইন প্রণয়ন আবশ্যক। প্রস্তাবিত বিলে প্রধান নির্বাচন কমিশনার ও নির্বাচন কমিশনার নিয়োগদানের জন্য রাষ্ট্রপতির কাছে সুপারিশ প্রদানের জন্য অনুসন্ধান কমিটি গঠন, কমিটির দায়িত্ব ও কার্যাবলি, প্রধান নির্বাচন কমিশনার ও নির্বাচন কমিশনার নিয়োগদানের জন্য যোগ্যতা ও অযোগ্যতা সংক্রান্ত বিধান অন্তর্ভুক্ত করা হয়েছে। বিলটি আইনে পরিণত হলে প্রধান নির্বাচন কমিশনার ও নির্বাচন কমিশনার নিয়োগদান স্বচ্ছ ও নিরপেক্ষ হবে, গণতন্ত্র সুসংহত ও প্রাতিষ্ঠানিক রূপ লাভ করবে এবং জনস্বার্থ সমুন্নত হবে মর্মে আশা করা যায়।’ বিলে প্রধান নির্বাচন কমিশনার ও নির্বাচন কমিশনার পদে যোগ্যতা-অযোগ্যতা নির্ধারণ করা হয়েছে।

সর্বশেষ খবর