শিরোনাম
রবিবার, ২৬ নভেম্বর, ২০২৩ ০০:০০ টা

অর্থনৈতিক প্রক্রিয়া বাধাগ্রস্ত

------ সামীর সাত্তার

নিজস্ব প্রতিবেদক

অর্থনৈতিক প্রক্রিয়া বাধাগ্রস্ত

হরতাল-অবরোধ এবং যে কোনো সহিংস কর্মসূচি অর্থনৈতিক প্রক্রিয়াকে বাধাগ্রস্ত করে। তাই অর্থনৈতিক সম্ভাবনাকে অগ্রাধিকার বিবেচনায় নিয়ে সবাইকে হরতাল-অবরোধের মতো কর্মসূচি থেকে বিরত থাকার আহ্বান জানিয়েছেন ঢাকা চেম্বার অব কমার্স অ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রির (ডিসিসিআই) সভাপতি ব্যারিস্টার সামীর সাত্তার। তিনি বলেন, যারা হরতাল-অবরোধের মতো সহিংস কর্মসূচি দেন তাদের কাছে  আমাদের একটাই প্রত্যাশা, ব্যবসায়ীরা যেন নির্ভয়ে ব্যবসা করতে পারেন এবং সাধারণ মানুষ যেন নির্ভয়ে চলাফেরা করতে পারে সেদিকে নজর দিতে হবে। গতকাল বাংলাদেশ প্রতিদিনের সঙ্গে আলাপকালে তিনি এসব কথা বলেন।

সামীর সাত্তার বলেন, হরতাল-অবরোধের মতো পরিস্থিতি ব্যবসার বাধা বাড়িয়ে দিয়েছে এবং অর্থনীতিকে আরও পিছিয়ে দেবে। এটা কোনোভাবেই কাম্য হতে পারে না। হরতাল-অবরোধে নানা ধরনের ক্ষতি হয়। প্রথমত, সম্পদের ক্ষতি। দ্বিতীয়ত, উৎপাদনের ক্ষতি। চলমান অস্থিরতা দেশের সরবরাহ ব্যবস্থাপনাকে মারাত্মকভাবে ব্যাহত করছে, ফলে মুদ্রাস্ফীতি বাড়বে এবং বৈদেশিক বাণিজ্য কমবে। এই পরিস্থিতিতে ব্যবসা করার খরচ বাড়ার পাশাপাশি জীবনযাত্রার মান কমিয়ে দিচ্ছে।

ঢাকা চেম্বারের সভাপতি বলেন, যেহেতু হরতাল-অবরোধ দেশের সব খাতকেই আক্রান্ত করছে এবং দেশের অর্থনৈতিক স্থিতিশীলতাকে ব্যাহত করছে; সে কারণে এ অস্থিরতা দীর্ঘায়িত হলে এলডিসি থেকে উত্তরণও কঠিন হয়ে পড়বে। সুতরাং এই সংকট নিরসনের পাশাপাশি অর্থনীতি যাতে আর ক্ষতিগ্রস্ত না হয়, সেদিকে সবাইকে খেয়াল রাখতে হবে। হরতাল-অবরোধের আরেক ধরনের ক্ষতি হচ্ছে, দেশের ভাবমূর্তির ক্ষতি।

ইকোনমিস্ট ইন্টেলিজেন্স ইউনিট পূর্বাভাস দিয়েছে, বাংলাদেশ ২০৪১ সালের মধ্যে ২০তম অর্থনৈতিক শক্তিতে পরিণত হবে। এখন হরতাল-অবরোধের মতো কর্মসূচি বিদেশে বাংলাদেশ সম্পর্কে নেতিবাচক বার্তা দিচ্ছে। আমরা যে সুনাম অর্জন করেছি, তার ওপর নেতিবাচক প্রভাব ফেলছে। এর ফলে বিদেশি বিনিয়োগকারীরা আগামী দিনগুলোতে বাংলাদেশে বিনিয়োগের ক্ষেত্রে দ্বিতীয়বার চিন্তা করবে। আমরা এরই মধ্যে বেসরকারি বিনিয়োগ এবং বেসরকারি খাতে ঋণ প্রবাহের ক্রমহ্রাসমান প্রবণতা লক্ষ্য করেছি। বেসরকারি খাতের ঋণ প্রবাহের হার ৯.৮২ শতাংশে নেমে এসেছে। এ পরিপ্রেক্ষিতে উৎপাদন ও সাধারণ অর্থনৈতিক কর্মকান্ড ব্যাহত হলে বাংলাদেশের অর্থনৈতিক পরিবেশ খারাপ হওয়ার পাশাপাশি উৎপাদন, কর্মসংস্থান ও আন্তর্জাতিক বাজারে অবস্থান হারাবে।

সর্বশেষ খবর