শিরোনাম
প্রকাশ : ৫ ফেব্রুয়ারি, ২০২১ ২১:৫৮
আপডেট : ৫ ফেব্রুয়ারি, ২০২১ ২২:০২
প্রিন্ট করুন printer

জাতিসংঘের নতুন মহাসচিব নির্বাচনে প্রক্রিয়া শুরু

অনলাইন ডেস্ক

জাতিসংঘের নতুন মহাসচিব নির্বাচনে প্রক্রিয়া শুরু

জাতিসংঘের নতুন মহাসচিব নিয়োগে নির্বাচন প্রক্রিয়া শুরু করা হয়েছে। বৃহস্পতিবার সংস্থাটির নতুন মহাসচিব নির্বাচনে এই প্রক্রিয়ার ঘোষণা করা হয়।

সংস্থাটির বর্তমান মহাসচিব অ্যান্তোনিও গুতেরেস দ্বিতীয় মেয়াদেও এই পদে থাকার আগ্রহ প্রকাশ করেছেন। সাবেক এই পর্তুগিজ প্রধানমন্ত্রী দ্বিতীয় মেয়াদে নির্বাচনের জন্য নিরাপত্তা পরিষদের পাঁচ স্থায়ী সদস্যের সমর্থন পাচ্ছেন।
 
বৃহস্পতিবার নিরাপত্তা পরিষদে গৃহীত এক চিঠিতে বলা হয়, ‘প্রার্থীদের প্রমাণিত নেতৃত্ব ব্যবস্থাপনা দক্ষতা এবং আন্তর্জাতিক সম্পর্কের ব্যাপারে ব্যাপক অভিজ্ঞতা, বলিষ্ঠ কূটনৈতিক দক্ষতা, যোগাযোগ ও বহুভাষিক দক্ষতা থাকতে হবে।’

অন্তত একটি দেশ ২০২২-২০২৬ মেয়াদে জাতিসংঘের নতুন মহাসচিব হিসেবে একজন নারীকে দেখতে চায়।

হন্ডুরাস মহাসচিব হিসেবে একজন নারীকে নির্বাচিত করার দাবি জানিয়েছে।

১৯৪৫ সালে জাতিসংঘ প্রতিষ্ঠার পর থেকে সকল মহাসচিবই ছিলেন পুরুষ।

আগামী মে-জুন নাগাদ সংস্থাটি প্রার্থীদের সঙ্গে অনানুষ্ঠানিক আলোচনার মাধ্যমে মহাসচিব নির্বাচন প্রক্রিয়া শুরু করবে। সূত্র : বাসস

বিডি প্রতিদিন/আরাফাত


আপনার মন্তব্য

পরবর্তী খবর

প্রকাশ : ২৫ ফেব্রুয়ারি, ২০২১ ১০:২৫
প্রিন্ট করুন printer

অস্ত্রোপচার শেষে হাসপাতাল ছাড়লেন সৌদি যুবরাজ

অনলাইন ডেস্ক

অস্ত্রোপচার শেষে হাসপাতাল ছাড়লেন সৌদি যুবরাজ

সফল অস্ত্রোপচার শেষে হাসপাতাল ছাড়লেন সৌদি যুবরাজ মোহাম্মদ বিন সালমান।

বুধবার সকালে কিং ফয়সাল বিশেষায়িত হাসপাতালে তার অ্যাপেনডিক্স অপসারণে অস্ত্রোপচার হয়।

ল্যাপরোস্কপিক অপারেশন করা হয় ৩৫ বছর বয়সী ক্রাউন প্রিন্সের শরীরে। তেমন কোনও শারীরিক জটিলতা দেখা না দেওয়ায় বিকালেই তাকে ছেড়ে দেন চিকিৎসকরা। হাসপাতাল থেকে স্বাভাবিকভাবেই হেঁটে গাড়িতে উঠতে দেখা যায় তাকে।

গত কয়েক বছরে সৌদি প্রশাসনের প্রভাবশালী ব্যক্তিত্ব হয়ে উঠেছেন যুবরাজ সালমান। সূত্র: ইয়াহু নিউজ, রিপাবলিক ওয়ার্ল্ড

বিডি প্রতিদিন/কালাম


আপনার মন্তব্য

পরবর্তী খবর

প্রকাশ : ২৫ ফেব্রুয়ারি, ২০২১ ১০:১৪
আপডেট : ২৫ ফেব্রুয়ারি, ২০২১ ১০:১৭
প্রিন্ট করুন printer

সিরিয়া সফরে ইরানি পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র, নানা ইস্যুতে আলোচনা

অনলাইন ডেস্ক

সিরিয়া সফরে ইরানি পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র, নানা ইস্যুতে আলোচনা
খাতিবজাদে ও ফয়সাল মিকদাদের বৈঠক

ইরানের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র সাঈদ খাতিবজাদে একটি প্রতিনিধিদল নিয়ে বুধবার সিরিয়া সফরে গেছেন। এরইমধ্যে তিনি সিরিয়ার পররাষ্ট্রমন্ত্রী ফয়সাল মিকদাদের সঙ্গে বৈঠক করেছেন।

ইরানের রাষ্ট্রীয় বার্তা সংস্থা ইরনা জানিয়েছে, বৈঠকে দুই পক্ষ মধ্যপ্রাচ্যের সর্বশেষ পরিস্থিতি এবং ইরান ও সিরিয়ার মধ্যে যোগাযোগ এবং পরামর্শ বাড়ানোর ওপর জোর দিয়েছে যাতে ভ্রাতৃপ্রতীম দু’ দেশের সম্পর্ক আরও জোরালো হয়। বৈঠকে দু’ দেশের স্বার্থসংশ্লিষ্ট বিভিন্ন ইস্যু নিয়ে আলোচনা হয়েছে।

ইরানের বিরুদ্ধে অবৈধ এবং অমানবিক নিষেধাজ্ঞার কথা উল্লেখ করে সিরিয়ার পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, আঞ্চলিক শান্তি ও নিরাপত্তার জন্য অভিন্ন চ্যালেঞ্জগুলো মোকাবেলা করতে যৌথ প্রচেষ্টা জোরদার করতে হবে। এসময় খাতিবজাদে সিরিয়ায় শান্তি ও স্থিতিশীলতা পুনঃপ্রতিষ্ঠার জন্য ইরানের পক্ষ থেকে সমর্থন ঘোষণা করেন।

দামেস্ক সফরে খাতিবজাদে সিরিয়ার তথ্যমন্ত্রী ইমাদ সারাহর সঙ্গেও বৈঠক করেছেন। এ বৈঠকে তিনি দুই দেশের গণমাধ্যম ও সাংস্কৃতিক অঙ্গনের সহযোগিতা বাড়ানোর উপায় নিয়ে আলোচনা করেন।

বিডি প্রতিদিন/কালাম


আপনার মন্তব্য

পরবর্তী খবর

প্রকাশ : ২৫ ফেব্রুয়ারি, ২০২১ ১০:১৩
প্রিন্ট করুন printer

হৃদরোগে আক্রান্ত হয়ে মৃত্যুর পরেও ফাঁসিতে ঝোলানো হল নারীর নিথর দেহ!

অনলাইন ডেস্ক

হৃদরোগে আক্রান্ত হয়ে মৃত্যুর পরেও ফাঁসিতে ঝোলানো হল নারীর নিথর দেহ!

ফাঁসির আগেই হৃদরোগে আক্রান্ত হয়ে মৃত্যু হল এক নারীর। কিন্তু এরপরও সেই নিথর দেহকেই ফাঁসিতে ঝোলানো হল। এমন ঘটনা ঘটেছে ইরানের রাজাই শাহর জেলে। মৃত ওই নারীর নাম জাহরা ইসমাইলি। তার বিরুদ্ধে নিজের স্বামীকে হত্যার অভিযোগ ছিল। সেই অভিযোগেই জাহরার ফাঁসির শাস্তি হয়। যদিও ওই নারীর স্বামীর বিরুদ্ধে আলিরেজা জামানি জাহরা এবং তার মেয়ের উপরে অত্যাচার করতেন বলে অভিযোগ ছিল।

যে জেলে জাহরাকে ফাঁসি দেওয়ার কথা ছিল, সেই রাজাই শাহর জেল বন্দিদের উপরে অত্যাচারের জন্য কুখ্যাত। জাহরার আইনজীবী ওমিদ মোরাদির অভিযোগ, ফাঁসির আগে আরও ১৬ জন সাজাপ্রাপ্তের পিছনে লাইনে দাঁড় করানো হয়েছিল দুই সন্তানের মা জাহরাকে। চোখের সামনে একের পর একজনকে ফাঁসিতে ঝুলতে দেখে সেই মানসিক ধাক্কা সামলাতে পারেননি জাহরা। লাইনে দাঁড়িয়েই হৃদরোগে আক্রান্ত হয়ে মৃত্যু হয় তার। কিন্তু এরপরেও তাকে ছাড় দেওয়া হয়নি।

জাহরার আইনজীবীর অভিযোগ, মৃত্যুর পরেও জাহরার দেহটি ফাঁসির মঞ্চে নিয়ে গিয়ে দড়িতে বেঁধে ঝোলানো হয়। যাতে ফাঁসিতে ঝোলানোর পর তার শাশুড়ি লাথি মেরে জাহরার পায়ের নিচ থেকে চেয়ারটি সরিয়ে দিতে পারেন। মোরাদির দাবি, ডেথ সার্টিফিকেটে জাহরার মৃত্যুর কারণ হিসেবে হৃদরোগে আক্রান্ত হওয়ার কথাই উল্লেখ করা হয়েছে। তার আরও দাবি, অত্যাচারী স্বামীর হাত থেকে দুই মেয়েকে বাঁচানোর চেষ্টা করতে গিয়েই স্বামীকে হত্যা করতে বাধ্য হন জাহরা।

ইরানে শরিয়ত আইনেই নিহত হওয়া ব্যক্তির পরিবার সদস্যদের প্রতিশোধ নেওয়ার সুযোগ দেওয়া হয়। যাতে অভিযুক্তকে সরাসরি শাস্তি দেওয়ার সুযোগ পান তারা। আর ইরানে একই দিনে ১৭ জনের ফাঁসির ঘটনাও খুব একটা অস্বাভাবিক নয়। কারণ চীনের পর ইরানেই সবচেয়ে বেশি প্রাণদণ্ডের শাস্তি দেওয়া হয়। মাদক পাচার, মদ্যপান, সমকামিতা, বিয়ের আগেই যৌন সম্পর্কের মতো অভিযোগেও সেদেশে প্রাণদণ্ডের শাস্তি দেওয়ার নজির রয়েছে।

 

বিডি-প্রতিদিন/আব্দুল্লাহ সিফাত


আপনার মন্তব্য

পরবর্তী খবর

প্রকাশ : ২৫ ফেব্রুয়ারি, ২০২১ ০৮:৫৫
প্রিন্ট করুন printer

অবসাদগ্রস্ত মানুষদের জন্য পৃথক মন্ত্রণালয় গড়ল জাপান

অনলাইন ডেস্ক

অবসাদগ্রস্ত মানুষদের জন্য পৃথক মন্ত্রণালয় গড়ল জাপান

সমীক্ষা বলছে- করোনা আবহে বেড়ে গেছে আত্মহত্যার হার। দীর্ঘদিন লকডাউনের কারণে বিশ্বের অর্থনীতি মুখ থুবড়ে পড়ায় হতাশা বেড়েছে অনেকেরই। চাকরি হারিয়েছেন বহু মানুষ। গবেষণা বলছে,  এসব কারণে এবং দীর্ঘসময় ঘরবন্দি থাকায় অবসাদগ্রস্ত হয়ে পড়েছেন অনেকেই। সঠিক সহায়তার অভাবে আত্মহত্যার দিকে মানুষ ঝুঁকছেন। 

ব্রিটেনের পর এবারে জাপানের প্রধানমন্ত্রী ইয়োশিহিদে সুগা একাকীত্ব মন্ত্রণালয়ের গঠনের ঘোষণা দিলেন। জাপার প্রথম একাকীত্ব মন্ত্রী হন তেতসুশি সাকামোতো। বলাই বাহুল্য, জাপানের এই উদ্যোগকে সাধুবাদ জানিয়েছেন সারাবিশ্বের মানুষ। আধুনিক যুগে পাল্লা দিয়ে ব্যস্ততা বৃদ্ধির সঙ্গে সঙ্গে মানুষের একাকীত্ব এবং অবসাদে ভোগার হার বাড়ছে বলেই জানাচ্ছেন মনোবিদরা। 

গবেষণা বলছে, ১১ বছরের মধ্যে করোনা আবহে আত্মহত্যার হার কয়েকগুণ বেড়েছে জাপানে। এ প্রসঙ্গে তেতসুশি সাকামোতো জানান, "অবসাদ, একাকীত্ব কাটাতে যতরকমের প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নেওয়া জরুরি, সে সবের ব্যবস্থা খুব দ্রুতই নেওয়া হবে।" 


বিডি-প্রতিদিন/আব্দুল্লাহ সিফাত


আপনার মন্তব্য

পরবর্তী খবর

প্রকাশ : ২৫ ফেব্রুয়ারি, ২০২১ ০৮:৫৪
আপডেট : ২৫ ফেব্রুয়ারি, ২০২১ ০৯:৩৫
প্রিন্ট করুন printer

বড় ধরনের সামরিক মহড়ার আয়োজন করতে যাচ্ছে রাশিয়া!

অনলাইন ডেস্ক

বড় ধরনের সামরিক মহড়ার আয়োজন করতে যাচ্ছে রাশিয়া!

সম্প্রতি শীর্ষস্থানীয় মার্কিন এক সেনা কমান্ডার সতর্ক করে দিয়ে বলেছেন যে, রাশিয়া অথবা চীনের সঙ্গে আমেরিকার পরমাণু যুদ্ধ বেধে যাওয়ার আশঙ্কা রয়েছে। এরইমধ্যে নিজেদের শক্তিমত্তা প্রদর্শনের জন্য ক্রিমিয়া উপত্যকায় বড় ধরনের সামরিক মহড়ার আয়োজন করতে যাচ্ছে রাশিয়া। রুশ প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয় এক ঘোষণায় জানায়, আগামী মার্চ মাসের মাঝামাঝি সময়ে ক্রিমিয়া উপত্যকার ‘উপুক’ অঞ্চলে এ মহড়া অনুষ্ঠিত হবে। 

রুশ প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয় আরও জানিয়েছে, আসন্ন মহড়ায় তিন হাজারের বেশি ছত্রীসেনা ও সামরিক বাহিনীর প্রায় ২০০ ইউনিট অংশ নেবে। মহড়ায় এয়ারবোর্ন, প্যারাট্রুপার ও আর্টিলারি বাহিনী অংশ নেবে। এতে রাশিয়ার ছত্রীসেনারা অপরিচিত স্থানে অবতরণের কসরত করবেন। সেইসঙ্গে তারা কল্পিত শত্রু সেনাদের অস্ত্রশস্ত্র দখল করে নিজেদের আগের অবস্থানে ফিরে যাবেন।

এদিকে, রাশিয়ার পররাষ্ট্রমন্ত্রী সের্গেই ল্যাভরভ বলেছেন, ইরানের পরমাণু কর্মসূচি নিয়ে সৃষ্ট সমস্যা সমাধানের জন্য গঠনমূলক পন্থা অবলম্বন করতে হবে। তিনি এই পন্থা অবলম্বন করার জন্য আমেরিকার প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন।

ল্যাভরভ বুধবার জেনেভায় অনুষ্ঠিত পরমাণু নিরস্ত্রীকরণ বিষয়ক এক সম্মেলনে দেয়া ভার্চুয়াল বক্তব্যে এ আহ্বান জানান। ইরানের পরমাণু কর্মসূচিকে শান্তিপূর্ণ আখ্যায়িত করে রুশ পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, তেহরান পরমাণু সমঝোতা পুরোপুরি মেনে চলেছে। ল্যাভরভ বলেন, আমেরিকার নতুন প্রশাসন পরমাণু সমঝোতাকে পুনরুজ্জীবিত করার জন্য চেষ্টা জোরদার করবে বলে আমরা আশা করি।

বিডি প্রতিদিন/এ মজুমদার 


আপনার মন্তব্য

পরবর্তী খবর