শিরোনাম
বৃহস্পতিবার, ৪ জানুয়ারি, ২০২৪ ০০:০০ টা

‘ভার্চুয়াল’ গণধর্ষণের শিকার ব্রিটেনের কিশোরী!

‘ভার্চুয়াল’ গণধর্ষণের শিকার ব্রিটেনের কিশোরী!

যত সময় যাচ্ছে ততই যেন রিয়েলিটি আর ভার্চুয়াল রিয়েলিটির মধ্যে ফারাক কমে আসছে। আর এ পরিস্থিতিতে জন্ম নিচ্ছে নতুন নতুন অপরাধও। এবার ব্রিটেনে ১৬ বছরের এক কিশোরী গণধর্ষিতা হলো মেটাভার্সে! শুনতে আশ্চর্য লাগলেও এমনই অভিযোগ। বলা হচ্ছে, যদিও শারীরিকভাবে ধর্ষণ হয়নি, তবু নির্যাতিতা কিশোরী একই রকম মানসিক আঘাত পেয়েছে যা একজন ধর্ষিতাকে পেতে হয়। ভার্চুয়াল মাধ্যমে ওই ধর্ষণের ঘটনায় তদন্ত শুরু করেছে যুক্তরাজ্য পুলিশ। ভার্চুয়াল মাধ্যমে ‘ধর্ষণের’ ঘটনার অভিযোগে বিশ্বে সম্ভবত এটাই প্রথম পুলিশি তদন্ত। মেটাভার্স ইন্টারনেটের ভার্চুয়াল দুনিয়াকে ‘জ্যান্ত’ করে তুলছে। সহজভাবে বললে এটা একটা ত্রিমাত্রিক কল্পবিশ্ব। আর সেখানেই এ পাশবিক আক্রমণের মুখে পড়তে হলো ওই কিশোরীকে! তার অভিযোগ, সে ভার্চুয়াল রিয়েলিটি হেডসেট পরে একটি গেম খেলছিল (কোন গেম তা এখনো জানা যায়নি)। আর তখনই তার ডিজিটাল অবতারকে গণধর্ষণ করে কয়েকজন অনলাইন দুষ্কৃতি।

তদন্তের সঙ্গে জড়িত এক সিনিয়র পুলিশ অফিসার সংবাদমাধ্যমের সঙ্গে কথা বলার সময় জানিয়েছেন, ‘ওই কিশোরীকে একই রকম মানসিক ট্রমার শিকার হতে হয়েছে, যা শারীরিকভাবে ধর্ষিতাকে হতে হয়। আর এই মানসিক আঘাত শারীরিক ক্ষতের থেকে দীর্ঘস্থায়ী হয়।’ তবে এ ধরনের অপরাধের মোকাবিলা বর্তমান আইন ব্যবস্থায় করা কঠিন বলেও জানান তিনি।

এ ধরনের মামলা ও তার তদন্ত ঘিরে একটা প্রশ্ন থেকেই যায়। বহু ‘বাস্তব’ ধর্ষণের মামলা যেখানে ঝুলে রয়েছে সেখানে তা ছেড়ে এ ধরনের ধর্ষণকে কি প্রাধান্য দেওয়া যায়। এ আপত্তি আওড়াচ্ছেন ব্রিটেনের স্বরাষ্ট্র সচিব জেমস ক্লেভারলি। তার কথা, ‘জানি সহজেই এটা উড়িয়ে দেওয়া যায়, কেননা এটা বাস্তব নয়। কিন্তু আসল কথা হলো এ ধরনের ভার্চুয়াল অভিজ্ঞতার প্রভাব অবিশ্বাস্য। আর এটাও বোঝা যায়, এক নাবালিকাকে যে বা যারা এ ধরনের নির্যাতন করতে পারে, তারা সত্যিকারের পৃথিবীতেও একই অপরাধ ঘটাতে পারে।’

সর্বশেষ খবর