শিরোনাম
প্রকাশ : ২০ জানুয়ারি, ২০২০ ১৫:৫২

সাহাবায়ে কিরামের প্রতি ভালোবাসা

মুফতি এহসানুল হক জিলানী : পেশ ইমাম

সাহাবায়ে কিরামের প্রতি ভালোবাসা

রসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামকে যিনি ইমানের সঙ্গে দেখেছেন এবং ইমান অবস্থায় মৃত্যুবরণ করেছেন তিনি সাহাবি। সাহাবি শব্দটি এসেছে ‘সুহবত’ থেকে। যার অর্থ সঙ্গলাভ করা। প্রিয় নবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামের সঙ্গ পেয়ে ধন্য হয়েছে যে কাফেলা, ইতিহাসে তাঁরাই সাহাবায়ে কিরাম। সাহাবির প্রকৃত সংখ্যা সুনির্দিষ্টভাবে ইতিহাসে পাওয়া না গেলেও বিজ্ঞ আলেমদের ভাষ্যমতে তাঁরা ছিলেন লক্ষাধিক। আল্লাহতায়ালা তাঁদের বিশ্বনবীর সঙ্গী হওয়ার জন্য নির্বাচিত করেছেন। সাহাবায়ে কিরামের প্রতি ভালোবাসা ইমানের অংশ। তাঁদের সমালোচনা করা মারাত্মক গোনাহ ও আল্লাহর লানতের শিকার হওয়ার কারণ। একজন মুসলমানের ইমান ও আখেরাত বরবাদ হওয়ার জন্য সাহাবায়ে কিরামের সমালোচনায় লিপ্ত হওয়াই যথেষ্ট। রসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম এ ব্যাপারে উম্মতকে অত্যন্ত কঠোরভাবে সতর্ক করে গেছেন।

তিনি বলেন, ‘আল্লাহকে ভয় কর, আল্লাহকে ভয় কর আমার সাহাবিদের ব্যাপারে। আমার পর তাদের নিন্দা ও সমালোচনার পাত্র বানিও না। যে ব্যক্তি তাদের ভালোবাসে, সে আমার ভালোবাসার কারণে তাদের ভালোবাসে এবং যে ব্যক্তি তাদের প্রতি বিদ্বেষ রাখে সে আমার প্রতি বিদ্বেষের কারণে তাদের প্রতি বিদ্বেষ রাখে। যে তাদের কষ্ট দেয় সে আমাকে কষ্ট দেয় এবং যে আমাকে কষ্ট দেয় সে আল্লাহকে কষ্ট দেয়। আর যে আল্লাহকে কষ্ট দেয় তাকে অচিরেই আল্লাহতায়ালা আজাবে গ্রেফতার করবেন।’ তিরমিজি। তিনি আরও বলেন, ‘যাদেরকে তোমরা আমার সাহাবিদের সমালোচনা করতে দেখ, তাদেরকে বলে দাও, তোমাদের ওপর আল্লাহর অভিশাপ।’ তিরমিজি।

আবদুল্লাহ ইবনে মাসউদ (রা.) বর্ণনা করেন, ‘মুহাম্মদ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামের সাথীরা ছিলেন এই উম্মতের শ্রেষ্ঠ জামাত। অন্তরের পবিত্রতায়, ইলমের গভীরতায় এবং আড়ম্বরহীনতায় তাঁরা ছিলেন সর্বোত্তম। আল্লাহ তাঁদের স্বীয় পয়গম্বরের সঙ্গলাভ ও দীন প্রতিষ্ঠার নিমিত্ত মনোনীত করেছেন। সুতরাং তোমরা তাঁদের শ্রেষ্ঠত্ব স্বীকার করে নাও এবং তাঁদের আখলাক ও আদর্শ অনুসরণ কর। কেননা তাঁরা ছিলেন সরল পথের পথিক।’ মিশকাত। রসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামের পুণ্য সান্নিধ্যের বরকতে সাহাবায়ে কিরাম ছিলেন নফস ও প্রবৃত্তির সবরকম মলিনতা থেকে পবিত্র। মানুষের মুক্তি ও মানবতার কল্যাণে তাঁরা ছিলেন সদা উৎসর্গিত। ইকামতে দীন তথা পথহারা মানব কাফেলাকে আল্লাহর পথে ফিরিয়ে আনা এবং স্রষ্টার সঙ্গে পরিচয় করিয়ে দেওয়াই ছিল তাঁদের জীবনের চরম ও পরম লক্ষ্য। এজন্য যে সীমাহীন ত্যাগ ও কোরবানি তাঁরা দিয়েছেন এবং যে অবর্ণনীয় নিপীড়ন ও নির্যাতন তাঁরা সয়েছেন পৃথিবীর অন্য কোনো ধর্মের ইতিহাসে তার নজির নেই। যখন সব দিকে ছিল শিরক ও কুফরির ভয়ঙ্কর অন্ধকার, ছিল অধর্ম ও পাশবিকতার জয়জয়কার; মানবতার সেই চরম দুর্দিনে সাহাবিদের এ ক্ষুদ্র কাফেলাই রুখে দাঁড়িয়েছিল পৃথিবীর সব তাগুতি শক্তির বিরুদ্ধে। বদর, উহুদ, খন্দক, ইয়ারমুক, কাদেসিয়ায় তাঁদের বুকের তাজা খুনে লেখা হয়েছিল ইসলামের বিজয়গাথা। তাই তো মহান আল্লাহ আল কোরআনের বেশ কয়েক স্থানে তাঁদের প্রতি নিজের সন্তুষ্টি প্রকাশ করে বলেছেন, ‘আল্লাহ তাদের প্রতি সন্তুষ্ট, তারাও আল্লাহর প্রতি সন্তুষ্ট।’ এ আয়াত দ্বারা সব সাহাবি জান্নাতি হওয়া প্রমাণিত হয়। মুহাম্মদ বিন কাব কুরজিকে জিজ্ঞাসা করা হলো, সাহাবিদের ব্যাপারে আপনার মতামত কী? তিনি বললেন, তাঁরা সবাই জান্নাতি। তার কাছে প্রমাণ চাওয়া হলে তিনি বললেন, কোরআনের ওই আয়াত যাতে আল্লাহ তাঁদের সবার ওপর সন্তুষ্টির ঘোষণা দিয়েছেন। তাফসিরে মা’আরেফুল কোরআন। সূরা হাদিদে ইরশাদ হচ্ছে, ‘আল্লাহ তাদের প্রত্যেককে জান্নাতের ওয়াদা দিয়েছেন।’ জাবির ইবনে আবদুল্লাহ (রা.) বর্ণনা করেন, ‘আমি রসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামকে বলতে শুনেছি, যে মুসলমান আমার দর্শন লাভ করেছে, জাহান্নামের অগ্নি তাকে স্পর্শ করবে না।’ তিরমিজি। সাহাবায়ে কিরামের ফজিলত ও মর্যাদা সম্পর্কে কোরআন ও হাদিসে অসংখ্য বর্ণনা রয়েছে। সামগ্রিকভাবে সাহাবায়ে কিরামের অশেষ মর্যাদা ঘোষণার পাশাপাশি ব্যক্তি পর্যায়ে, গোত্রকেন্দ্রিক ও বিভিন্ন যুদ্ধে অংশগ্রহণের ভিত্তিতে বিশেষ মর্যাদা ও শ্রেষ্ঠত্বের ঘোষণা করেছেন স্বয়ং আল্লাহ ও তাঁর রসুল। সাহাবিদের পরে তাবেয়ি থেকে নিয়ে এখন পর্যন্ত যত অলি, বুজুর্গ পৃথিবীতে এসেছেন এবং কিয়ামত পর্যন্ত মানুষ আসবে কেউই একজন সাধারণ সাহাবির সমতুল্য হতে পারবে না। এ মর্মে ইবনে ওমর (রা.) বলেন, ‘তোমরা মুহাম্মদ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামের সাহাবিদের গালি দিও না। কেননা এক মুহূর্তের জন্য যিনি রসুলের সুহবতে ধন্য হয়েছেন তাঁর আমল তোমাদের সারা জীবনের আমল থেকে শ্রেষ্ঠ।’ ইবনে মাজাহ।

প্রিয় নবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামের হাতে গড়া সাহাবায়ে কিরাম দীন ও ইমানের মহান দাওয়াত নিয়ে ছড়িয়ে পড়েছিলেন পৃথিবীর দিকে দিকে। তাঁদের মহান ত্যাগ ও কোরবানির বদৌলতে আমরা দীন পেয়েছি। পেয়েছি আল্লাহর সর্বকালের সর্বশ্রেষ্ঠ মনোনীত দীন ইসলাম। তাই আমাদের ওপর তাঁদের ইহসান, অনুগ্রহ অপরিসীম। তাই তাঁদের প্রতি ভালোবাসা পোষণ করা আমাদের ইমানি দায়িত্ব। আর এ ভালোবাসার দাবি হলো, আমরা তাঁদের নাম শুনে ‘রাদি আল্লাহু আনহু’ (আল্লাহ তাঁদের ওপর সন্তুষ্ট হন) পড়ব। তাঁদের ইমানের ক্ষেত্রে মাপকাঠি বলে বিশ্বাস করব। সব সাহাবিকে সম্মানের নজরে দেখব। দীনের সব বিষয়ে তাঁদের অনুসরণ করব। আল্লাহ রব্বুল আলামিন আমাদেরকে সাহাবায়ে কিরাম রাজি আল্লাহু আনহুমের প্রতি প্রকৃত ভালোবাসা লালন করার তৌফিক দান করুন।


আপনার মন্তব্য