২৪ ডিসেম্বর, ২০২১ ০৮:২৪

আল্লাহর ভালোবাসা ও সন্তুষ্টির মর্মকথা

আল্লামা আশরাফ আলী থানবি (রহ.)

আল্লাহর ভালোবাসা ও সন্তুষ্টির মর্মকথা

পবিত্র কোরআনে আল্লাহ ও মুমিনের পারস্পরিক সম্পর্কের বর্ণনা এভাবে তুলে ধরা হয়েছে, ‘আল্লাহ তাদের ভালোবাসেন এবং তারাও আল্লাহকে ভালোবাসে।’ (সুরা : মায়িদা, আয়াত : ৫৪)

অর্থাৎ আল্লাহ ও বান্দার সম্পর্ক পারস্পরিক। মূলত বান্দা যখন আল্লাহরমুখী হয়, তখন আল্লাহও তাকে ভালোবাসার ছায়ায় আশ্রয় দেন। রাসুলুল্লাহ (সা.) বলেন, যে ব্যক্তি আল্লাহর সঙ্গে সাক্ষাৎ হওয়াকে ভালোবাসে, আল্লাহও তার সঙ্গে সাক্ষাৎ হওয়াকে ভালোবাসেন; আর যে ব্যক্তি আল্লাহর সঙ্গে সাক্ষাৎ হওয়াকে অপছন্দ করে, আল্লাহও তার সঙ্গে সাক্ষাৎ হওয়াকে অপছন্দ করেন। (সহিহ বুখারি, হাদিস : ৬৫০৮)

ভালোবাসার মর্মকথা : মনের এমন কোনো জিনিসের প্রতি আকৃষ্ট হওয়া, যার দ্বারা স্বাদ অনুভব হয়। এ আকর্ষণ যদি শক্তিশালী হয়, তাহলে তাকে ‘ইশক’ বলে।

যেভাবে আল্লাহর ভালোবাসা পাওয়া যায় : আল্লাহর ভালোবাসা লাভে প্রথম কাজ হলো জাগতিক সম্পর্কগুলোকে ছিন্ন করা। অর্থাৎ গাইরুল্লাহর ভালোবাসাকে মন থেকে বের করে দেওয়া। কেননা দুই জিনিসের ভালোবাসা এক অন্তরে জমা হতে পারে না। পাশাপাশি আল্লাহর শ্রেষ্ঠত্ব, তাঁর গুণাবলি ও নিয়ামতগুলোর কথা স্মরণ করা এবং তা নিয়ে চিন্তা-গবেষণা করা।

আল্লাহর প্রতি অনুরাগ : যেহেতু মুমিন আল্লাহকে সবচেয়ে বেশি ভালোবাসে, তাই মুমিন তাঁর অন্তরে সব সময় আল্লাহর প্রতি অনুরাগ অনুভব করবে। অনুরাগ হলো এমন প্রিয় ও কাঙ্ক্ষিত বস্তু, যার কিছুটা জানা ও কিছুটা অজানা, তাকে পরিপূর্ণ জানা ও দেখার সহজাত আগ্রহ। অনুরাগ ভালোবাসার জন্য অপরিহার্য। রাসুলুল্লাহ (সা.) দোয়া করতেন, হে আল্লাহ! আমি আপনার কাছে আপনার পবিত্র চেহারার দর্শন এবং আপনার সাক্ষাতের প্রতি অনুরাগ ও আগ্রহ প্রার্থনা করছি। (সুনানে নাসায়ি, হাদিস : ১৩০৫)

অনুরাগীর প্রতি আল্লাহর অঙ্গীকার : যারা আল্লাহর প্রতি অনুরাগ পোষণ করে, তাদের ব্যাপারে আল্লাহর অঙ্গীকার হলো, ‘যে আল্লাহর সাক্ষাতের আশা পোষণ করে, তার জন্য আল্লাহর নির্ধারিত সময় অবশ্যই আছে।’ (সুরা : আনকাবুত, আয়াত : ৫)

ভালোবাসার পুরস্কার সন্তুষ্টি : যারা আল্লাহকে ভালোবাসে এবং তাঁর ওপর সন্তুষ্ট থাকে, তাদের জন্য আল্লাহর পুরস্কার হলো তাঁর সন্তুষ্টি। আল্লাহ বলেন, ‘আল্লাহ তাদের প্রতি সন্তুষ্ট হয়েছেন এবং তারা আল্লাহর প্রতি সন্তুষ্ট হয়েছে।’ (সুরা : তাওবা, আয়াত : ১০০)

আল্লাহর ওপর সন্তুষ্টিতেই সৌভাগ্য : বান্দার জন্য সবচেয়ে বড় সৌভাগ্যের বিষয় হলো আল্লাহর সিদ্ধান্তে সন্তুষ্ট হতে পারা। রাসুলুল্লাহ (সা.) বলেন, মানুষের সৌভাগ্যের অন্যতম হলো, আল্লাহ তার জন্য যে ফায়সালা করেছেন তার ওপর সন্তুষ্ট থাকা। (সুনানে তিরমিজি, হাদিস : ২১৫১)

আল্লাহর সিদ্ধান্তের ওপর সন্তুষ্ট থাকার অর্থ হলো অন্তরে কোনো দ্বিধা ও আপত্তি না থাকা এবং মুখে অসন্তোষ প্রকাশ না করা। যখন বান্দা আল্লাহর সিদ্ধান্তে পুরোপুরি সন্তুষ্ট থাকে, তখন তার মনের ভেতর কোনো কষ্ট অনুভব করে না।

‘তালিমুদ্দিন’ থেকে মো. আবদুল মজিদ মোল্লার ভাষান্তর

বিডি-প্রতিদিন/সালাহ উদ্দীন

সর্বশেষ খবর