শিরোনাম
প্রকাশ : ৩০ মার্চ, ২০২১ ২২:২০
প্রিন্ট করুন printer

নন্দীগ্রামে সম্মান রক্ষার লড়াই মমতার

দীপক দেবনাথ, কলকাতা

নন্দীগ্রামে সম্মান রক্ষার লড়াই মমতার

পশ্চিমবঙ্গে ২৯৪ টি বিধানসভার কেন্দ্রের মধ্যে প্রথম দফার নির্বাচন শেষ। আগামী ১ এপ্রিল পশ্চিমবঙ্গে দ্বিতীয় দফায় রাজ্যটির বাঁকুড়া, পূর্ব মেদিনীপুর, পশ্চিম মেদিনীপুর এবং দক্ষিণ চব্বিশ পরগনা- এই চার জেলার ৩০ টি আসনে ভোটগ্রহণ হবে। যার মধ্যে অন্যতম পূর্ব মেদিনীপুর জেলার ‘নন্দীগ্রাম’ আসনটি। এই কেন্দ্র থেকে এবার ক্ষমতাসীন দল তৃণমূল কংগ্রেসের প্রার্থী হয়েছেন রাজ্যটির মুখ্যমন্ত্রী মমতা ব্যনার্জি। 

এই কেন্দ্রে তার প্রধান বিরোধী প্রতিপক্ষ কয়েক মাস আগে তৃণমূল ছেড়ে বিজেপিতে যোগ দেওয়া রাজ্যের সাবেক মন্ত্রী শুভেন্দু অধিকারী। সংযুক্ত মোর্চার প্রার্থী হয়েছেন সিপিআইএম মনোনীত মীনাক্ষি মুখার্জি।  

ফলে নন্দীগ্রামে এবারে সম্মান রক্ষার লড়াই মমতার। তৃণমূলের লক্ষ্য ফের তৃতীয় বারের জন্য রাজ্যের ক্ষমতায় আসা। তাই ভোটের কয়েকটা দিন নন্দীগ্রামেই ঘাঁটি গেড়েছেন তিনি। তার থাকা ও নির্বাচনী কাজকর্ম পরিচালনার জন্য ইতিমধ্যে সেখানে ঘরও নিয়েছেন তিনি। কিন্তু তার আগে নির্বাচনের কয়টা দিন আহত পা নিয়ে হুইল চেয়ারে বসেই কখনও রোড শো আবার কখনও জনসভা করে চলেছেন তিনি। 

মঙ্গলবার দ্বিতীয় দফার ভোটের প্রচারণার শেষ দিনেও নন্দীগ্রামের ভাঙাবেড়া শহিদ বেদী থেকে সোনাচূড়া পর্যন্ত রোড শো করেন মমতা। রোড শো শেষে সোনাচূড়াতে একটি জনসভায় উপস্থিত থেকে নিজের প্রার্থীপদ পরিচয় করিয়ে দেন আত্মবিশ্বাসী মমতা। তিনি বলেন ‘আমি এই এলাকা থেকে দাঁডাচ্ছি। আমার প্রতীক জোড়া ফুল চিহ্ন, ইভিএমের ২ নাম্বারে নাম আছে..। 

নন্দীগ্রাম কেন্দ্রে প্রার্থী হওয়া প্রসঙ্গে মমতা বলেন ‘আমি নিজেই ইচ্ছা করেই নন্দীগ্রামে দাঁড়িয়েছি। আমি বাংলার যেকোনো জায়গায় দাঁড়াতে পারতাম, যেকোন জায়গায় জিততে পারতাম কিন্তু ভূমি আন্দোলন নিয়ে আমি যখন ২৬ দিন ধরে অনশন করি আপনারা সে সময় যেভাবে আন্দোলন করেছিলেন, তাকে স্যালুট জানানোর জন্যই আমি নন্দীগ্রামে দাঁড়িয়েছি। আপনাদের সকলের আশীর্বাদ সহযোগিতা চাই। কেউ যদি ভয় দেখায়, আপনারা ভয় পাবেন না। আপনারা মনটাকে শক্ত করে ভোট দেবেন। নিজের ভোট নিজে দিয়ে আসবেন। এখানে ইভিএম খারাপ করে দেওয়া হতে পারে, এক্ষেত্রে আপনারা কিছু সময় অপেক্ষা করবেন।’  

প্রতিপক্ষকে হুঁশিয়ারি দিয়ে মমতা বলেন ‘আপনারা ভয় পাবেন না। মাথা উঁচু করে দাঁড়াবেন। আর মনে রাখবেন আমি যখন একবার নন্দীগ্রামে ঢুকেছি, আর বেরোচ্ছি না। নন্দীগ্রাম আমার জায়গা, আমার মাটি, আমি এখানে থাকবো।’  

কেন্দ্রের ক্ষমতাসীন দল বিজেপিকে তোপ দেগে তিনি বলেন ‘বিজেপির লোকেরা নন্দীগ্রাম সহ গোটা বাংলায় গুন্ডামি করে বেড়াচ্ছে, সন্ত্রাস করে বেড়াচ্ছে। এমনকি আমার কাছে এমন খবর আছে যে নিজেদের একটা মেয়েকে খুন করে বলবে তৃণমূল খুন করেছে। পরে দাঙ্গা লাগিয়ে দেওযার চেষ্টা করবে। এটা আমি আপনাদের আগে থেকে জানিয়ে দিলাম। এরা মানুষকে বিশ্বাস করে না, মানুষের ভোটকে বিশ্বাস করে না।’ 

বাংলা থেকে বিজেপিকে বোল্ড আউট করে এই দলটিকে রাজনৈতিক কবর দেওয়ারও আর্জি জানান তৃণমূল নেত্রী। তার অভিযোগ ‘নির্বাচনের সময় পুলিশের গড়ি, কেন্দ্রীয় বাহিনীর গাড়ি থেকে রুপি বিলানো হচ্ছে। এমনকি মন্ত্রীরাও হোটেলে বসে রুপি বন্টন করছেন। সারাদেশ থেকে রুপি আসছে এবং বিলানো হচ্ছে।’ 

বিডি প্রতিদিন/হিমেল


আপনার মন্তব্য

এই বিভাগের আরও খবর