শিরোনাম
প্রকাশ : বৃহস্পতিবার, ১১ অক্টোবর, ২০১৮ ০০:০০ টা
আপলোড : ১০ অক্টোবর, ২০১৮ ২৩:১২

তিতলি পরিণত প্রবল ঘূর্ণিঝড়ে

৪ নম্বর সংকেত জারি

নিজস্ব প্রতিবেদক

তিতলি পরিণত প্রবল ঘূর্ণিঝড়ে
ধেয়ে আসছে ঘূর্ণিঝড় ‘তিতলি’। সতর্কতা জারি হয়েছে নৌযান চলাচলে। চট্টগ্রামের ফিশারিঘাটে অলস সময় কাটছে জেলেদের —বাংলাদেশ প্রতিদিন

বঙ্গোপসাগরে সৃষ্ট ঘূর্ণিঝড় ‘তিতলি’ আরও ঘনীভূত হয়ে প্রবল ঘূর্ণিঝড়ের রূপ নিয়ে উত্তর-উত্তর-পশ্চিম দিকে ভারতের উড়িষ্যা ও অন্ধ্র উপকূলের দিকে অগ্রসর হচ্ছে। ঘূর্ণিঝড়ের প্রভাবে সাগর বিক্ষুব্ধ থাকায় চট্টগ্রাম, কক্সবাজার, মোংলা ও পায়রা সমুদ্রবন্দরকে ৪ নম্বর স্থানীয় হুঁশিয়ারি সংকেত দেখাতে বলেছে আবহাওয়া অধিদফতর। আবহাওয়ার বিশেষ বুলেটিনে বলা হয়েছে, ঘূর্ণিঝড় তিতলি গতকাল দুপুর ১২টায় চট্টগ্রাম সমুদ্রবন্দর থেকে ৯১০ কিলোমিটার দক্ষিণ-পশ্চিম, কক্সবাজার সমুদ্রবন্দর থেকে ৮৭০ কিলোমিটার দক্ষিণ-পশ্চিম, মোংলা থেকে ৭৭৫ কিলোমিটার দক্ষিণ-পশ্চিম ও পায়রা সমুদ্রবন্দর থেকে ৭৮০ কিলোমিটার দক্ষিণ-পশ্চিমে অবস্থান করছিল। ওই সময় ঘূর্ণিঝড় কেন্দ্রের ৬৪ কিলোমিটারের মধ্যে বাতাসের একটানা সর্বোচ্চ গতিবেগ ছিল ঘণ্টায় ৯০ কিলোমিটার, যা দমকা অথবা ঝড়ো হাওয়ার আকারে ঘণ্টায় ১১০ কিলোমিটার পর্যন্ত বাড়ছিল। উত্তর বঙ্গোপসাগরে অবস্থানরত সব মাছ ধরার নৌকা, ট্রলারকে পরবর্তী নির্দেশ না দেওয়া পর্যন্ত নিরাপদ আশ্রয়ে থাকার পরামর্শ দিয়েছে আবহাওয়া অধিদফতর।

ভারতীয় আবহাওয়া দফতর বলছে, ঘূর্ণিঝড় তিতলি আরও শক্তি সঞ্চয় করে বুধবার মধ্যরাতের দিকে অতি প্রবল ঘূর্ণিঝড়ের রূপ নিতে পারে। আজ (বৃহস্পতিবার) ভোরের দিকে ঘূর্ণিঝড়টি গোপালপুর ও কলিঙ্গপত্তমের মাঝামাঝি এলাকা দিয়ে উড়িষ্যা ও অন্ধ্র উপকূল অতিক্রম করতে পারে। ওই সময় বাতাসের একটানা সর্বোচ্চ গতিবেগ হতে পারে ঘণ্টায় ১২০-১৩০ কিলোমিটার, যা দমকা অথবা ঝড়ো হাওয়ার আকারে ঘণ্টায় ১৪৫ কিলোমিটার পর্যন্ত বাড়তে পারে। ভারতের আবহাওয়ার পূর্বাভাসে বলা হয়েছে, স্থলভাগে ওঠার পর তিতলি কিছুটা বাঁক নিয়ে পশ্চিমবঙ্গের দিকে অগ্রসর হতে হতে ধীরে ধীরে দুর্বল হয়ে আসতে পারে। আর সে ক্ষেত্রে ঘূর্ণিঝড়ের কিছুটা প্রভাব বাংলাদেশের সুন্দরবন, সাতক্ষীরা, বাগেরহাট, খুলনা এলাকায় পড়তে পারে বলে বাংলাদেশের আবহাওয়াবিদরা মনে করছেন। আবহাওয়া অধিদফতর বলছে, প্রবল এ ঘূর্ণিঝড়ের প্রভাবে ঢাকাসহ দেশের বিভিন্ন অংশের আকাশে মেঘের ঘূর্ণি দেখা যাচ্ছে। তবে বাংলাদেশে তিতলির কারণে শঙ্কিত হওয়ার মতো কিছু এখনো দেখছেন না তারা।

সারা দেশে নৌযান চলাচল বন্ধ : ঘূর্ণিঝড় তিতলির প্রভাবে আবহাওয়া বিরূপ থাকায় সারা দেশে অভ্যন্তরীণ রুটে নৌযান চলাচল বন্ধ রাখতে বলেছে বাংলাদেশ অভ্যন্তরীণ নৌপরিবহন কর্তৃপক্ষ (বিআইডব্লিউটিএ)। গতকাল দুপুরের পর বিআইডব্লিউটিএ অভ্যন্তরীণ নৌযান চলাচল বন্ধেও এ নির্দেশনা দেয়।

প্রস্তুত বাগেরহাটের ২৩৪টি আশ্রয় কেন্দ্র : তিতলি ধেয়ে আসায় আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়েছে বাগেরহাটের উপকূলীয় এলাকার মানুষের মধ্যে। ঘূর্ণিঝড় তিতলির তাণ্ডব মোকাবিলায় গতকাল বিকালে বাগেরহাট জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ে প্রস্তুতিমূলক সভা হয়েছে। মোংলা বন্দর কর্তৃপক্ষ বন্দরে বিশেষ সতর্কবার্তা অ্যালার্ট-২ ঘোষণা করেছে। ঘূর্ণিঝড় সতর্কতার কারণে মোংলা বন্দরে বিদেশি জাহাজ আগমন ও নিগর্মন বন্ধ রাখা হয়েছে। সুন্দরবনের সব পর্যটককে সন্ধ্যার আগেই নিরাপদ আশ্রয়ে সরিয়ে নিয়েছে বন বিভাগ। প্রাকৃতিক দুর্যোগপ্রবণ বাগেরহাটের শরণখোলা, মোংলা, মোরেলগঞ্জ ও রামপালের স্থানীয় প্রশাসন, ফায়ার সার্ভিস, মেডিকেল টিম, রেড ক্রিসেন্টসহ জেলার ২৩৪টি আশ্রয় কেন্দ্র প্রস্তুত রাখা হযেছে। ঘূর্ণিঝড় তিতলির প্রভাবে গতকাল সকালে বাগেরহাটসহ মোংলা বন্দর ও আশপাশ উপকূলীয় এলাকায় দমকা হাওয়া সেইসঙ্গে মুষলধারে বৃষ্টি শুরু হয়েছে।

চট্টগ্রাম বন্দরের বহির্নোঙরের পণ্য খালাস বন্ধ : বৈরী আবহাওয়ার কারণে সাগর উত্তাল থাকায় চট্টগ্রাম বন্দরের বহির্নোঙরের জাহাজ থেকে খোলা পণ্য খালাস হচ্ছে না। বিশেষ করে গম, সার, চিনিজাতীয় পণ্য খালাস বন্ধ রয়েছে। বঙ্গোপসাগরে সৃষ্ট ঘূর্ণিঝড় তিতলির কারণে আবহাওয়া অধিদফতর দেশের সমুদ্রবন্দরগুলোকে ৪ নম্বর স্থানীয় হুঁশিয়ারি সংকেত দেখাতে বলেছে।

বরগুনায় জরুরি সভা : বঙ্গোপসাগরে সৃষ্ট ঘূর্ণিঝড় তিতলি মোকাবিলায় বরগুনা জেলা প্রশাসন ও জেলা দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা কমিটির পক্ষ থেকে জরুরি প্রস্তুতি সভা করা হয়েছে। গতকাল দুপুর ১টায় জেলা প্রশাসকের সম্মেলনকক্ষে এ সভা অনুষ্ঠিত হয়। জেলা প্রশাসক ও দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা কমিটির সভাপতি কবীর মাহমুদ বলেন, ‘বঙ্গোপসাগরে সৃষ্ট ঘূর্ণিঝড় মোকাবিলায় প্রস্তুত আছি। সেইসঙ্গে সরকারি-বেসরকারি কর্মকর্তা-কর্মচারীদের দুর্যোগ পরিস্থিতির ওপর নির্ভর করে স্টেশন ত্যাগের নির্দেশনা দিয়েছি। প্রয়োজনে সরকারি কর্মকর্তাদের ছুটি বাতিল করাও হতে পারে।’


আপনার মন্তব্য