শিরোনাম
প্রকাশ : সোমবার, ২১ সেপ্টেম্বর, ২০২০ ০০:০০ টা
আপলোড : ২০ সেপ্টেম্বর, ২০২০ ২৩:১৮

নতুন শর্তের বেড়াজালে কাঁকড়া রপ্তানি

লোকসানে দক্ষিণাঞ্চলের ২৫ হাজার খামারি

সামছুজ্জামান শাহীন, খুলনা

নতুন শর্তের বেড়াজালে কাঁকড়া রপ্তানি

করোনা পরিস্থিতিতে দক্ষিণাঞ্চলের কাঁকড়া রপ্তানিতে বিপর্যয় নেমেছে। কাঁকড়ার সবচেয়ে বড় ক্রেতা চীনে রপ্তানি বন্ধ হওয়ায় স্থানীয় বাজারগুলোতে ভয়াবহ দরপতন হয়েছে। এতে লোকসানে পড়েছেন খুলনা, সাতক্ষীরা ও বাগেরহাটের প্রায় ২৫ হাজার খামারি।

রপ্তানিকারকরা জানান, চীনে কাঁকড়া রপ্তানির ক্ষেত্রে ঘেরের বর্ণনা, পানি, তাপমাত্রা, পরিবেশ, চাষির তথ্য, কাঁকড়ার মান যাচাই, স্বাস্থ্যসনদসহ বেশ কয়েকটি নতুন শর্ত জুড়ে দেওয়া হয়েছে। জটিল এ শর্ত মেনে কাঁকড়া রপ্তানি কঠিন হয়ে পড়েছে। খুলনার পাইকগাছা কাঁকড়া ব্যবসায়ী সমবায় সমিতি লিমিটেডের সভাপতি দেবব্রত দাস জানান, বড় আকারের কাঁকড়া (প্রতিটি ওজন প্রায় ২০০ গ্রাম) চলতি বছরের শুরুতেও কেজি প্রতি ১২০০-১৫০০ টাকা দরে বিক্রি হয়েছে। বাজারে ক্রেতা সংকটে বর্তমানে তা ৩৫০-৪০০ টাকা দরে বিক্রি হচ্ছে। উৎপাদিত কাঁকড়া বিক্রি করতে না পেরে চাষিরা নিঃস্ব হয়ে গেছেন।

জানা যায়, স্বাভাবিক সময় প্রতিদিন গড়ে ২৫ টন কাঁকড়া রপ্তানিকারকদের কাছে এখান থেকে পাঠানো হতো। কিন্তু চীনে রপ্তানি বন্ধ থাকায় বর্তমানে রপ্তানিকারকরাও কাঁকড়া কিনছে না। এদিকে সময়মতো আহরণ না করায় খামারেই কাঁকড়া মরতে শুরু করেছে। মৎস্য পরিদর্শন ও মান নিয়ন্ত্রণ অফিসের তথ্য অনুযায়ী, ২০১৯-২০ অর্থবছরের অক্টোবর-ডিসেম্বর পর্যন্ত তিন মাসে দক্ষিণাঞ্চল থেকে কাঁকড়া রপ্তানি হয়েছে ১২৮.৫২ মেট্রিক টন। করোনার কারণে চীনে রপ্তানি বন্ধ হওয়ায় জানুয়ারি-মার্চে রপ্তানি কমে দাঁড়িয়েছে ৩৫.৯৬ মেট্রিক টন। বাংলাদেশ লাইভ অ্যান্ড চিল ফুড এক্সপোর্টার্স অ্যাসোসিয়েশনের তথ্য মতে, বাংলাদেশ থেকে প্রতিবছর প্রায় এক হাজার কোটি টাকার কাঁকড়া রপ্তানি হয়। তবে করোনা পরিস্থিতি ও রপ্তানির ক্ষেত্রে চীনের নতুন শর্তের কারণে ধস নেমেছে।

রপ্তানিকারক প্রতিষ্ঠান দিব্য এন্টারপ্রাইজের পরিচালক তপন কুমার জানান, এখন কাঁকড়া রপ্তানিতে ঘেরের তথ্য যাচাই, খামারির পরিচিতি, পরিবেশ, স্বাস্থ্যসনদসহ বেশ কয়েকটি নতুন শর্ত দিয়েছে চীন। রপ্তানিকারকরা এসব শর্ত নিয়ে বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের সঙ্গে বৈঠক করেছে। তারা শর্ত পূরণও করতে রাজি আছেন। তবে এ ক্ষেত্রে সরকারের দ্রুত হস্তক্ষেপ প্রয়োজন। অন্যথায় কাঁকড়া রপ্তানির বড় বাজার হারাবে বাংলাদেশ।


আপনার মন্তব্য

এই বিভাগের আরও খবর