মঙ্গলবার, ৩১ আগস্ট, ২০২১ ০০:০০ টা

খুনের পর আমেরিকায়

মির্জা মেহেদী তমাল

খুনের পর আমেরিকায়

‘এবার আমি যা বলি, তাই শুনতে থাকো। আমার স্বামীকে ছাড়তে হবে না। পারলে ওকে দুনিয়া থেকে মাইনাস করে দেও। ওর কাছে তোমাদের পাওনা আছে ১০ লাখ। আমি দেব তার চেয়েও বেশি। কিন্তু কথা একটাই। ফাইনাল। আমি ফাইনাল ফল চাই। এ বিষয়ে আর কোনো গল্প নেই।’

সাইফুল কবিরকে অপহরণ করার পর দুর্বৃত্তরা তার স্ত্রী সামিনাকে ফোন করে মুক্তিপণ দাবি করে। কিন্তু স্ত্রী উল্টো সেই দুর্বৃত্তদের সঙ্গে কন্ট্রাক্ট করেন স্বামীকে মেরে ফেলার জন্য। সামিনার কথা শুনে পাওনাদাররা হতবাক। বলে কী! স্বামীকে ফেরত না নিয়ে উল্টো মাইনাস করতে কন্ট্রাক্ট করতে চাচ্ছেন! টাকার লোভ সামলাতে পারেননি পাওনাদাররা। রাজি হয়ে যান তারা। সাইফুল কবিরকে আটকে রেখেই শুরু হয় দরকষাকষি। ১২ লাখ টাকায় কন্ট্রাক্ট করতে চান সামিনা। কিন্তু মানেন না পাওনাদাররা। সাড়ে ১২ লাখ? প্রশ্ন রাখেন সামিনা। ২০ লাখের নিচে নামবেন না সাফ জানিয়ে দেন পাওনাদাররা। একসময় কথা পাকাপাকি হয়। ১৮ লাখ টাকা। এর মধ্যে ১৬ লাখ টাকা খুনের জন্য। বাকি ২ লাখ লাশ গুমের খরচ। এরপর শুরু হয় সাইফুল কবিরের ওপর অকথ্য নির্যাতন। একপর্যায়ে নিভে যায় সাইফুল কবিরের প্রাণপ্রদীপ। গর্ত করে মাটিচাপা দেওয়া হয় সাইফুল কবিরের লাশ। খুনের পরদিনই সাইফুলের স্ত্রী পালিয়ে যান আমেরিকায়। কিন্তু লাশ বেশি দিন গুম থাকেনি। পুলিশ খবর পায়। মাটি খুঁড়ে উদ্ধার করে লাশ। গ্রেফতার হন দুই খুনি। কিন্তু সামিনা তো লাপাত্তা! পাবে কোথায়? মামলার তদন্ত কর্মকর্তা আমেরিকায় অবস্থানকারী সামিনার সঙ্গে যোগাযোগ করেন। প্রেমের ফাঁদ পাতেন তিনি। সামিনাকে টাকা পয়সার লোভ দেখানো হয়। ঘটনার তিন মাস ১৭ দিন পর ঢাকা আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে এসে অবতরণ করেন সামিনা। ঠিক তখনই পাকড়াও করা হয় কিলার সামিনাকে। ফাঁস হয় এক নারী সিরিয়াল কিলারের আরও খুনের কাহিনি। ঘটনাটি রাজধানীর খিলক্ষেতের। ২০১৪ সালের ১০ ডিসেম্বর একটি গ্যারেজের ভিতরের মাটি খুঁড়ে ব্যবসায়ী সাইফুল কবিরের লাশ উদ্ধার করা হয়। এ সময় গ্রেফতার করা হয় দুই ব্যক্তিকে। তারা বলেছেন, সাইফুলকে ২ ডিসেম্বর হত্যা করা হয়েছে। আর এই হত্যার পেছনের হোতা আর কেউ নন, তিনি সাইফুলের দ্বিতীয় স্ত্রী।

মামলার প্রথম তদন্ত কর্মকর্তা খিলক্ষেত থানার তৎকালীন এস আই মনিরুল ইসলাম বর্তমানে বিমানবন্দর থানায় কমর্রত। তিনি বলেন, ‘ক্লুলেস মার্ডার তদন্ত করতে গিয়ে চাঞ্চল্যকর তথ্য বেরিয়ে আসে। আমেরিকায় পালিয়ে যাওয়া সামিনাকে দেশে ফেরত আনতে প্রেমের ফাঁদ পাততে হয়। সাইফুল কবিরের দ্বিতীয় স্ত্রী সামিনা ওরফে ঝিলিক একজন মহিলা কিলার। তাদের কাছে খবর রয়েছে, একইভাবে তিনি আরও চারজনকে বিয়ে করেছেন। টাকা পয়সা হাতিয়ে নিয়ে প্রত্যেককেই তিনি কন্ট্রাক্টে খুন করিয়েছেন। এর মধ্যে উখিয়ায় নিয়ে হত্যা করা হয় আবদুর রব নামে তার আরেক স্বামীকে।’ জেরার মুখে গ্রেফতারকৃতরা জানিয়েছেন, বিদেশে লোক পাঠানোর জন্য সাইফুল কবিরকে ১০ লাখ টাকা দিয়েছিলেন ওয়াদুদ ও কামাল। তাদের কয়েকজন লোককে শ্রমিক হিসেবে মালয়েশিয়ায় চাকরি দেওয়ার কথা দিয়েছিলেন সাইফুল। ওই টাকা দেওয়ার দীর্ঘ কয়েক মাস পার হলেও মালয়েশিয়া লোক পাঠাতে পারেননি সাইফুল। দেব-দিচ্ছি করে টাকাও ফেরত দিতে পারেননি তিনি। এই লেনদেন নিয়ে সাইফুল কবিরের সঙ্গে ওয়াদুদ ও কামাল হোসেনের বাগবিতন্ডাও হয়েছে। খিলক্ষেত এলাকার একটি বাসায় স্ত্রীসহ থাকতেন সাইফুল। গত ২ ডিসেম্বর রাতে অটোমোবাইলের ওয়ার্কশপে টাকার ব্যাপারে আলোচনা করা হবে এমন কথা বলে ডেকে নেওয়া হয় সাইফুল কবিরকে। এরপর তারা যোগাযোগ করেন সাইফুল কবিরের স্ত্রী সামিনার সঙ্গে। সামিনা উল্টো তাদের কন্ট্রাক্ট করেন খুনের জন্য।

সেই দিন ওয়ার্কশপে ঢোকামাত্রই ওয়াদুদ ও কামাল হামলে পড়েন সাইফুলের ওপর। লাঠি আর রড দিয়ে পিটিয়ে হত্যার পর তার লাশ গুম করার চেষ্টাও হয়। এ জন্যই মাটির পাঁচ ফুট তিন ইঞ্চি গভীরে লাশ চাপা দেওয়া হয়। ১০ ডিসেম্বর পুলিশ সংবাদ পায়, একটি গ্যারেজে লাশ পুঁতে রাখা হয়েছে। পুলিশ খিলক্ষেত থানার এক নম্বর সড়কের বি ব্লকের তিন নম্বর বাড়ির নিচ তলার ওই অটোমোবাইল ওয়ার্কশপের পেছন থেকে মাটি খুঁড়ে সাইফুল কবিরের লাশ উদ্ধার করে। ওই অটোমোবাইল ওয়ার্কশপের মালিক আবদুল ওয়াদুদ। লাশটি মাটি ও বালুর পাঁচ ফুট তিন ইঞ্চি নিচে পুঁতে রাখা হয়েছিল। পুলিশের সুরতহাল প্রতিবেদনে দেখা যায়, নিহতের নাক, ঠোঁট পচে দুর্গন্ধ ছড়াচ্ছিল। চোখ বন্ধ অবস্থায় ছিল। তার পেছনের কাঁধে আঘাতের চিহ্ন ছিল। পুরুষাঙ্গ ফোলা ছিল। পেটের নাড়িভুঁড়ি চার থেকে পাঁচ ইঞ্চি বাইরে বেরোনো ছিল। পুলিশ জানিয়েছে, পিংক সিটি এলাকার ওই ওয়ার্কশপে ব্যবসায়ী সাইফুলকে হত্যা করে লাশ মাটিতে পুঁতে রাখা হয়েছে খবর পায় পুলিশ। তাৎক্ষণিকভাবে রাত প্রায় সাড়ে ৯টায় সেখানে অভিযান চালায় পুলিশ। এ সময় লাশ উদ্ধার এবং ওয়াদুদ ও কামালকে গ্রেফতার করা হয়। কিন্তু লাশ উদ্ধারের পর নিহতের কোনো স্বজনকে খুঁজে পাওয়া যায়নি। নিহত ব্যবসায়ী সাইফুল কবিরের জাতীয় পরিচয়পত্র ও পাসপোর্ট অনুসারে যাত্রাবাড়ী ও নবাবপুরের ঠিকানা পাওয়া গেলেও সেখানে তার কোনো স্বজনকে পাওয়া যায়নি। এমনকি কেউ নিহতের গ্রামের বাড়ি ও স্বজনদের নাম-ঠিকানা দিতে পারেননি। পরে ওই রাতেই খিলক্ষেত থানার উপ-পরিদর্শক মনিরুল ইসলাম বাদী হয়ে একটি হত্যা মামলা দায়ের করেন। এতে ওয়াদুদ, কামালসহ ছয়জনকে আসামি করা হয়। লাশ উদ্ধারের পর বিভিন্ন গণমাধ্যমে বিষয়টি প্রকাশ পেলে পরদিন খিলক্ষেত থানায় যোগাযোগ করেন নিহতের ছোট ভাই লুৎফুর ছগির। ময়নাতদন্তের পর লাশ তার ভাইয়ের কাছে হস্তান্তর করা হয়। সাইফুল কবিরের বাড়ি বরগুনা জেলা সদরের কাগুরা গ্রামে। সাইফুল কবিরের দুই স্ত্রী ও চার সন্তান রয়েছেন। দুই সন্তানসহ প্রথম স্ত্রী থাকেন গ্রামের বাড়ি। দ্বিতীয় স্ত্রী সামিনাকে নিয়ে থাকতেন সাইফুল। পুলিশ জানায়, দ্বিতীয় বিয়ের পর সাইফুল কবিরের সঙ্গে তাদের পরিবারের যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন ছিল। পুলিশ জানিয়েছে, সামিনার কোনো ঠাঁই-ঠিকানা নেই। তার কাজ ব্যবসায়ীদের টার্গেট করে বিয়ে করা। টাকা পয়সা হাতিয়ে নিয়ে তাদের হত্যা করা। সাইফুল কবিরের একটি বাড়ি ছিল দনিয়ায়। কিন্তু সামিনা তা ১ কোটি ৩০ লাখ টাকায় বিক্রি করে দেন। সেই পুরো টাকাটাই ছিল সামিনার কাছে। ২ ডিসেম্বর সামিনা সাইফুলের ব্যাপারে থানায় একটি নিখোঁজ জিডি করেন। কিন্তু পরদিন কাউকে কিছু না বলেই আমেরিকা পালিয়ে যান। খিলক্ষেতের বাসাটিও তিনি ছেড়ে দেন। এ সময় বাড়িওয়ালা তাকে কারণ জিজ্ঞাসা করলে জানান, তিনি অন্তঃসত্ত্বা। তাকে আমেরিকায় যেতে হবে। তখন বাড়িওয়ালা তাকে বলেন, ‘তোমার স্বামী নিখোঁজ বললা। তবে কেন এ অবস্থায় আমেরিকা যাবা।’ এমন প্রশ্নের জবাব তার কাছে ছিল না। পুলিশ আরও জানায়, সামিনার সঙ্গে দেশের গুরুত্বপূর্ণ ব্যক্তিদের ছবি রয়েছে; যা বড় করে বাঁধানো তার বাসায় শোভা পাচ্ছিল। নারী উদ্যোক্তা ও সিআইপি হিসেবেও তার ছবি রয়েছে। পরে পুলিশের কাছে স্বীকার করেছেন, ওগুলো সব ভুয়া। তিনি নিজেই তৈরি করে বাঁধিয়ে রেখেছিলেন।

এই রকম আরও টপিক