শিরোনাম
প্রকাশ : ৯ মার্চ, ২০২১ ১৮:৫৫
প্রিন্ট করুন printer

পু‌লিশ স্টাফ ক‌লেজ হ‌বে পু‌লি‌শের থিংক ট্যাংক: আইজিপি

অনলাইন প্রতিবেদক

পু‌লিশ স্টাফ ক‌লেজ হ‌বে পু‌লি‌শের থিংক ট্যাংক: আইজিপি

'পুলিশ স্টাফ কলেজ বাংলাদেশ' কে পুলিশের 'থিংক ট্যাংক' অভিহিত করে আইজিপি ড. বেনজীর আহমেদ বলেছেন, পেশাগত দক্ষ পুলিশ বাহিনী গড়ে তোলার ক্ষেত্রে পিএসসি অনন্য সাধারণ ভূমিকা রাখছে। বিশ্বের অনেক উন্নত দেশের বিশ্ববিদ্যালয়ের সাথে এ প্রতিষ্ঠানের সমঝোতা স্মারক (এমওইউ) রয়েছে। ভবিষ্যতে এর আওতা আরও বাড়বে বলে তিনি আশা প্রকাশ করেন। 

মঙ্গলবার বিকালে রাজধানীর মিরপুরে পুলিশ স্টাফ কলেজ বাংলাদেশ (পিএসসি) এ মাস্টার্স ইন অ্যাপ্লাইড ক্রিমিনোলজি এন্ড পুলিশ ম্যানেজমেন্ট (এমএসিপিএম) ডিগ্রির সার্টিফিকেট প্রদান অনুষ্ঠানে তিনি এ কথা বলেন। ডিগ্রিপ্রাপ্ত গ্রাজুয়েটদের অভিনন্দন জানিয়ে আইজিপি বলেন, পেশাগত চ্যালেঞ্জ মোকাবেলায় লব্ধ জ্ঞান কাজে লাগাতে হবে। 

পুলিশের পেশাকে একটি ইন্টারন্যাশনাল সার্ভিস হিসেবে উল্লেখ করে পুলিশ প্রধান বলেন, সভ্য সমাজে পুলিশ ছাড়া কোনো দেশ কল্পনা করা যায় না। প্রধানমন্ত্রীর নেতৃত্বে গত ১২ বছরে পুলিশের সক্ষমতা অনেক বেড়েছে। দেশ এগিয়ে যাচ্ছে। পুলিশের প্রতি মানুষের প্রত্যাশা বেড়েছে। আমরা গণতান্ত্রিক মূল্যবোধে সমুন্নত একটি সুসংহত পুলিশ বাহিনী গড়ে তুলতে চাই। 

আইজিপি বলেন, পুলিশের নিয়োগ প্রক্রিয়া পুনর্গঠন করা হয়েছে। জাতিসংঘ শান্তিরক্ষা মিশনে বাংলাদেশ পুলিশ অত্যন্ত সফলতার সাথে কাজ করছে। আমরা বাংলাদেশকে প্রতিনিধিত্বকারী পুলিশ চাই। 

পুলিশ স্টাফ কলেজ বাংলাদেশ এর রেক্টর ড. মোহাম্মদ নাজিবুর রহমানের সভাপতিত্বে ইন্টারন্যাশনাল কনফারেন্স সেন্টারে আয়োজিত অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি ছিলেন জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের উপ উপাচার্য প্রফেসর ড. মো. মশিউর রহমান। অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তব্য রাখেন এমডিএস (একাডেমিক এন্ড রিসার্চ) মো. গোলাম রসুল। গোপালগঞ্জ জেলার পুলিশ সুপার আয়েশা সিদ্দিকা ডিগ্রি অর্জনকারী গ্রাজুয়েটদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন। 

উপ উপাচার্য বলেন, সবার জন্য নিরাপদ বাংলাদেশ গড়ে তোলার ক্ষেত্রে পুলিশ গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখছে। কোভিড-১৯ মোকাবেলায় সম্মুখযোদ্ধা হিসেবে পুলিশ অনন্য অবদান রেখেছেন, যা জাতি শ্রদ্ধার সাথে স্মরণ করে। তিনি বলেন, পুলিশের পেশাগত দায়িত্বের প্রতি বিশেষ দৃষ্টি রেখে কোর্সটি সাজানো হয়েছে, যার ফলে তাদের পেশাগত উৎকর্ষ সাধিত হবে। 

অনুষ্ঠানে অতিরিক্ত আইজি (এএন্ডও) ড. মো. মইনুর রহমান চৌধুরী, অতিরিক্ত আইজি এসবি মীর শহীদুল ইসলাম, এপিবিএন'র অতিরিক্ত আইজি মোশারফ হোসেন, টিএন্ডআইএম'র অতিরিক্ত আইজি মোহাম্মদ ইব্রাহিম ফাতেমী, অতিরিক্ত আইজি (অর্থ) এস. এম. রুহুল আমিন, অতিরিক্ত আইজি (এইচআরএম) মোঃ মাজহারুল ইসলাম, এটিইউ'র অতিরিক্ত আইজি মোঃ কামরুল আহসান, ঊর্ধ্বতন পুলিশ কর্মকর্তাগণ, পিএসসি'র ফ্যাকাল্টিগণ, জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তাগণ এবং আমন্ত্রিত অতিথি উপস্থিত ছিলেন।। 

অনুষ্ঠানে প্রথম, দ্বিতীয় ও তৃতীয় ব্যাচের মোট ৫৭ জন গ্রাজুয়েটকে সার্টিফিকেট প্রদান করা হয়। এর মধ্যে প্রথম ব্যাচে ১৪ জন, দ্বিতীয় ব্যাচে ১৯ জন এবং তৃতীয় ব্যাচে ২৪ জন রয়েছেন। তাদের মধ্যে বাংলাদেশ পুলিশের ৩১জন, সশস্ত্র বাহিনীর ৬ জন, আইনজীবী ৩ জন, কর্পোরেট সার্ভিস ৭ জন, শিক্ষক ৩ জন, চিকিৎসক ১ জন, সাংবাদিক ১ জন এবং অন্যান্য সরকারি চাকরিজীবী ৫ জন রয়েছেন। পরে প্রধান অতিথি গ্র্যাজুয়েটদের মাঝে সার্টিফিকেট বিতরণ করেন।

তিনটি ব্যাচে ডিগ্রি অর্জনকারী ৫৭ জনের মধ্যে সর্বোচ্চ ফলাফল লাভ করেছেন গোপালগঞ্জ জেলার পুলিশ সুপার আয়েশা সিদ্দিকা। 

উল্লেখ্য, ২০১৫-১৬ শিক্ষাবর্ষ হতে জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের অধীনে বাংলাদেশ পুলিশের এ্যাপেক্স ট্রেনিং ইনস্টিটিউট পুলিশ স্টাফ কলেজ বাংলাদেশ থেকে  মাস্টার্স ইন অ্যাপ্লাইড ক্রিমিনোলজি এন্ড পুলিশ ম্যানেজমেন্ট ডিগ্রি প্রদান করা হচ্ছে। 


বিডি প্রতিদিন/হিমেল


আপনার মন্তব্য

এই বিভাগের আরও খবর