শিরোনাম
প্রকাশ : ২৩ মে, ২০২১ ১৪:৪০
প্রিন্ট করুন printer

বিটুমিনের রাস্তা নির্মাণে নিবিড় নজরদারি চাই

অধ্যাপক ড. শামসুল হক

বিটুমিনের রাস্তা নির্মাণে নিবিড় নজরদারি চাই
Google News

দেশে বিটুমিনের রাস্তা নির্মাণে নিবিড় নজরদারি চান বিশিষ্ট যোগাযোগ বিশেষজ্ঞ ও বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়-বুয়েটের অধ্যাপক ড. শামসুল হক। তিনি বলেছেন, বিটুমিনের ব্যবহার ভালোভাবে করতে সরকারের দক্ষ ব্যবস্থাপনা নিশ্চিত করতে হবে। আমাদের মনে রাখতে হবে- সস্তায় রাস্তা বানিয়ে ভালো কিছু অর্জন করা যায় না। আমাদের এখন ২০ বছর মেয়াদি স্থায়িত্বের চিন্তা করে রাস্তা তৈরি করতে হবে।

গতকাল বাংলাদেশ প্রতিদিনের সঙ্গে আলাপকালে এসব কথা বলেন অধ্যাপক ড. শামসুল হক। তিনি আরও বলেন, সড়ক নির্মাণের জন্য ২০০ বছর ধরে বিটুমিন ব্যবহৃত হয়। বিশ্বে সড়ক নির্মাণে ৯০ শতাংশ বিটুমিন ব্যবহার হয়। অন্যান্য দেশে বিটুমিনকে রূপান্তর করে টেকসই করা হয়। তিনি বলেন, আসলে যারা দূরদৃষ্টি সম্পন্ন, তারা রাস্তা নির্মাণ খরচকে খরচ বলে না। সস্তায় রাস্তা বানিয়ে খুব বেশি কিছু অর্জন করা যায় না। আমাদের এখন ২০ বছরের স্থায়িত্ব চিন্তা করে রাস্তা তৈরি করার ওপর গুরুত্ব দিতে হবে। আমাদের দেশে নতুন নতুন রাস্তা সস্তায় বানানো হয়। আবার বারবার রাস্তা তৈরি করতে গিয়ে পরিবেশেরও দূষণ হয়। রাস্তা নির্মাণ সস্তায় করা যাবে না। তবেই টেকসই সড়ক উন্নয়ন হবে।

অধ্যাপক ড. শামসুল হক বলেন, আমাদের বিটুমিনাস সড়কগুলো দীর্ঘস্থায়ী করতে পারছি না। পানি আর জলাবদ্ধতায় রাস্তা নষ্ট হয়। আমাদের সড়ক নির্মাণের সঙ্গে জলাবদ্ধতা দূর করার ব্যবস্থা রাখতে হবে। সড়কের পাশে ভূমি উন্নয়ন নিয়ন্ত্রণ করতে হবে। সড়কটা শুকনো থাকলে, কিছু হবে না। যে নিবিড় নজরদারি রাস্তায় থাকার কথা, তা কেউ রাখছে না। নিবিড় নজরদারি না থাকলে ঠিকাদার আপস করবেই। ঠিকাদারকে দীর্ঘমেয়াদে রাস্তা মেরামত বাবদ প্রণোদনা দিতে হবে।

তার মতে, বিটুমিনের যে পরিমাণ চাহিদা আছে, তার একটি অংশ ইস্টার্ন রিফাইনারি লিমিটেড-ইআরএল ভালো মানের বিটুমিন উৎপাদন করে। কিন্তু ঠিকাদাররা সস্তায় বিটুমিন সংগ্রহ করছে। বিটুমিনের ব্যবহার ভালোভাবে করতে দক্ষ ব্যবস্থাপক লাগবে।

এই বিভাগের আরও খবর