Bangladesh Pratidin || Highest Circulated Newspaper
শিরোনাম
প্রকাশ : বৃহস্পতিবার, ২০ সেপ্টেম্বর, ২০১৮ ০০:০০ টা
আপলোড : ২০ সেপ্টেম্বর, ২০১৮ ০২:৪৪

নড়িয়া বাঁচাতে ১ হাজার ৭৭ কোটি টাকার প্রকল্প

নিজস্ব প্রতিবেদক

নড়িয়া বাঁচাতে ১ হাজার ৭৭ কোটি টাকার প্রকল্প

শরীয়তপুর জেলার জাজিরা ও নড়িয়া উপজেলার নদী ভাঙন রোধে ১ হাজার ৭৭ কোটি ৫৮ লাখ টাকার একটি প্রকল্পের দরপ্রস্তাবসহ রেকর্ডসংখ্যক ২২টি দরপ্রস্তাবের অনুমোদন দিয়েছে সরকারি ক্রয় সংক্রান্ত মন্ত্রিসভা কমিটি। শরীয়তপুর জেলাধীন নদী ভাঙন রোধ প্রকল্পটি বাস্তবায়ন করবে রাষ্ট্রীয় প্রতিষ্ঠান খুলনা শিপইয়ার্ড লিমিডেট। শিগগিরই কাজ শুরু হবে গতকাল অনুমোদিত এ প্রকল্পটির। অবশ্য প্রকল্প শুরু হওয়ার আগেই নড়িয়া উপজেলার প্রায় ৪০০ পরিবারের জমি-জমাসহ বসতভিটা নদীগর্ভে বিলীন হয়ে গেছে। গতকাল সচিবালয়ে মন্ত্রিপরিষদ বিভাগের সম্মেলন কক্ষে অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিতের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত ক্রয় কমিটির বৈঠকে এ প্রস্তাব অনুমোদন দেওয়া হয়। বৈঠক শেষে মন্ত্রিপরিষদ বিভাগের অতিরিক্ত সচিব নাসিমা বেগম সাংবাদিকদের এ তথ্য জানান।

তিনি বলেন, বাংলাদেশ পানি উন্নয়ন বোর্ডের বাস্তবায়নাধীন ‘শরীয়তপুর জেলার জাজিরা ও নড়িয়া উপজেলায় পদ্মা নদীর ডান তীর রক্ষা’ শীর্ষক প্রকল্পের আওতায় ৮ দশমিক ৯০ কিলোমিটার নদীতীর সংরক্ষণ কাজ ৯ দশমিক ৭৫ কিলোমিটার ড্রেজিং, ০.০৮৯ কিলোমিটার ইন্ড টার্মিনেশন এবং ৮টি আরসিসি পাকা ঘাট নির্মাণ কাজ সরাসরি ক্রয় পদ্ধতিতে বাস্তবায়নের ক্রয় প্রস্তাবের অনুমোদ দেওয়া হয়েছে। এতে ব্যয় হবে ১ হাজার ৭৭ কোটি ৫৮ লাখ টাকা। এটি বাস্তবায়ন করবে খুলনা শিপইয়ার্ড লিমিটেড।

২ লাখ মেট্রিক টন সার আমদানির সিদ্ধান্ত : সভায় ৫৪৪ কোটি ২৭ লাখ টাকা ব্যয়ে ১ লাখ ৭৫ হাজার টন ইউরিয়া ও ডিএমপি সার আমদানির সিদ্ধান্ত নিয়েছে সরকার। এর মধ্য ১ লাখ ৫০ হাজার টন ইউরিয়া সার সরবরাহের কাজ পেয়েছে মেসার্স প্রোটন ট্রেডার্স লিমিটেড। বাকি ২৫ হাজার মেট্রিক টন ডিএমপি সার জিটুজি (সরকার টু সরকার) ভিত্তিতে আমদানি করা হবে। এ সংক্রান্ত তিনটি ক্রয়ের প্রস্তাবের অনুমোদন দিয়েছে অর্থনৈতিক ক্রয় সংক্রান্ত মন্ত্রিসভা কমিটি।

আশকোনায় হচ্ছে র‌্যাবের হেডকোয়ার্টার : ঢাকার উত্তরার আশকোনায় নির্মাণ হচ্ছে র‌্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়নের (র‌্যাব) হেডকোয়ার্টার্স কমপ্লেক্স। এ জন্য ব্যয় হবে ৪৩৭ কোটি ২০ লাখ টাকা। এ কমপ্লেক্স জয়েন্টভেঞ্চারে নির্মাণের কাজ পেয়েছে জিকেবিপিএল এবং এমএসসিএল লিমিটেড। এ সংক্রান্ত একটি ক্রয় প্রস্তাবের অনুমোদন দিয়েছে অর্থনৈতিক ক্রয় সংক্রান্ত মন্ত্রিসভা কমিটি। এগুলোসহ মোট ২২টি ক্রয় প্রস্তাবের অনুমোদন দেয় কমিটি।


আপনার মন্তব্য