শিরোনাম
প্রকাশ : ২৭ জুলাই, ২০২১ ১০:৩১
প্রিন্ট করুন printer

জামালপুর জেলা সমিতির নির্বাচন ৯০ দিনের মধ্যে

মোর্শেদা আহ্বায়ক, ডিউক সদস্য সচিব

যুক্তরাষ্ট্র প্রতিনিধি

জামালপুর জেলা সমিতির নির্বাচন ৯০ দিনের মধ্যে
মোর্শেদা জামান ও ডিউক খান
Google News

 

মোর্শেদা জামানকে আহ্বায়ক এবং ডিউক খানকে সদস্য-সচিব করে ১৩ সদস্যের একটি কমিটি করা হয়েছে জামালপুর জেলা সমিতির নতুন কমিটির নির্বাচন অনুষ্ঠানের জন্য। সকল জামালপুরবাসীকে ঐক্যবদ্ধ করে পরিপূর্ণ একটি সংগঠনে পরিণত করার অভিপ্রায়ে ৯০ দিনের মধ্যেই এই নির্বাচনের কথা বলা হয়েছে। 

আগের কমিটির মেয়াদ ফুরিয়ে যাওয়ায় অন্তর্বর্তীকালিন এই আহ্বায়ক কমিটির সদস্যরা হলেন ফরিদ আলম, শাহীন খান, মিন্টু মাস্টার, সালাহউদ্দিন আহমেদ কাব্য, মশিউর রহমান জাস্টিস, রবিউল ইসলাম, মোস্তাফিজুর রহমান তালুকদার খোকন, এ এফ এম আশরাফউদৌলাহ লিটন, দুলাল হোসেন, হেলাল আনসারী ও জিন্নত আলী খোকা। 

রবিবার লং আইল্যান্ডের বেলমন্ট লেইক স্টেট পার্কের পাইন প্যাভিলিয়নে উৎসবের মেজাজে অনুুষ্ঠিত বনভোজনে বিপুল করতালির মধ্যে সকলের সম্মতিতে এই ঘোষণা দেয়া হয়। 

উল্লেখ্য, এই বনভোজনে সকল বয়সী প্রবাসীর বিপুল সমাগম ঘটেছিল। প্রকৃতির অপরূপ সৌন্দর্যে ভরপুর পরিবেশে বনভোজন কেন্দ্রে পৌঁছার পরই সকলকে নাস্তা পরিবেশন করা হয়। শিশু-কিশোরের জন্যও ছিল আলাদা ব্যবস্থা। বিনোদনমূলক নানা প্রতিযোগিতার সাথে পুরনো বন্ধু-বান্ধবীদের পেয়ে অনেকে আড্ডায় মেতে উঠেন। প্রথম প্রজন্মের সাথে দ্বিতীয় প্রজন্মের পরিচিতির অন্যতম অবলম্বনেও পরিণত হয়েছিল বনভোজনের মাধ্যমে। আড্ডায় ছিলেন জামালপুর জেলা সমিতির প্রতিষ্ঠাতা আহ্বায়ক বীর মুক্তিযোদ্ধা সুরুজ্জামান, প্রতিষ্ঠাতা সদস্য-সচিব বীর মুক্তিযোদ্ধা লাবলু আনসার, সমিতির বিগত দিনে নেতৃত্ব প্রদানকারি সভাপতি ও সেক্রেটারিগণের মধ্যে মোর্শেদা জামান, ফরিদ আলম, আবু হায়াত মোস্তফা হেলাল, ডিউক খান, শাহীন খান, আশরাফুজ্জামান প্রমুখ। এই আড্ডায় অতিথির মধ্যে ছিলেন নিউইয়র্ক সিটি ইলেকশন বোর্ডে সবচেয়ে বেশি অভারটাইম পাওয়া কমিশনার খোরশেদ চৌধুরীও। 

খেলাধুলা পরিচালনা ও সমন্বয়ে ছিলেন বনভোজন কমিটির কর্মকর্তা খোকন, কাব্য, মাসুম, রফিকুল হাসান, লিটন, রবিউল ইসলাম, খোরশেদ আলম, জাকির হোসেন,শাহান শাহ, সাইফুল ইসলাম, মাসুদ কবির রসুল, হাসান আরিফ, সামিউল ইসলাম প্রমুখ। 

দিনভর খেলাধুলা, ভোজন আর জমপেশ আড্ডার পর র‌্যাফেল ড্র অনুষ্ঠিত হয়। সবশেষে বিতরণ করা হয় পুরস্কার। সে সময় পুরো এলাকা জমজমাট এক পরিবেশ তৈরী। সকলে দৃপ্ত প্রত্যয়ে ঘোষণা করেন প্রবাস প্রজন্মের স্বার্থেই সকল ভেদাভেদ ভুলে ঐক্যের বিকল্প নেই। প্রবাসের স্বপ্ন পূরণে পারস্পরিক সহায়তার দীগন্ত প্রসার রাখতে হবে। হিংসা-বিদ্বেষ দূরে ঠেলে জামালপুরের ঐতিহ্যকে সমুন্নত রাখার প্রত্যয়ও ব্যক্ত করেন অনেকে। 

বিডি-প্রতিদিন/সালাহ উদ্দীন

 

এই বিভাগের আরও খবর