শিরোনাম
শনিবার, ১৬ নভেম্বর, ২০১৯ ০০:০০ টা
নাজমুন নেসা পিয়ারী

তোমাকে অভিবাদন হে প্রিয়তমা

তানিয়া তুষ্টি

তোমাকে অভিবাদন হে প্রিয়তমা

ছবি : নেওয়াজ রাহুল

বাংলা সাহিত্যের সুপরিচিত কবি শহীদ কাদরী। স্বল্পপ্রজ কবি শহীদ কাদরীর দ্বিতীয় কাব্যগ্রন্থ ‘তোমাকে অভিবাদন প্রিয়তমা’ বের হয় ১৯৭৪ সালে। সে সময় ঢাকা মাতিয়ে ফেরা নজরকাড়া এক সুন্দরীকে দেখলেই ওই কবিতার চরণ বলে টিপ্পনী কাটত তরুণীর বন্ধুবান্ধব। নাম তার নাজমুন নেসা পিয়ারী। জার্মানপ্রবাসী এই লেখক-সাংবাদিক-অনুবাদক কবি শহীদ কাদরীর প্রথম ভালোবাসা, সাবেক সহধর্মিণী। জীবনের প্রয়োজনে একসময় কবির সঙ্গে এই কাব্যপ্রেমীর বিচ্ছেদ ঘটলেও একজন নাগরিক কবির উত্থানকালে তিনিই ছিলেন তার কাব্য প্রেরণার উৎস। শুধু কি তাই, শহীদ কাদরীর প্রিয়তমা পরিচয়ের বাইরে নাজমুন নেসা পিয়ারী নিজেকে প্রতিষ্ঠিত করেছেন একজন কবি ও অনুবাদক হিসেবে। সেই গল্প নিয়েই এবারের আয়োজন।

  ‘ভয় নেই, আমি এমন ব্যবস্থা করবো/স্টেটব্যাংকে গিয়ে/

গোলাপ কিম্বা চন্দ্রমল্লিকা ভাঙালে অন্তত চার লক্ষ টাকা পাওয়া যাবে/

একটি বেলফুল দিলে চারটি কার্ডিগান। ভয় নেই, ভয় নেই/ ভয় নেই,

আমি এমন ব্যবস্থা করবো/ নৌ, বিমান আর পদাতিক বাহিনী/ কেবল তোমাকেই চতুর্দিক থেকে ঘিরে-ঘিরে/নিশিদিন অভিবাদন করবে, প্রিয়তমা।’

প্রখ্যাত কবি শহীদ কাদরীর তোমাকে ‘অভিবাদন প্রিয়তমা’ কবিতাটি বাংলা কবিতাপ্রেমী প্রায় সবারই জানা। অত্যন্ত জনপ্রিয় ‘তোমাকে অভিবাদন প্রিয়তমা’ কবিতাটি কবি উৎসর্গ করেছিলেন নাজমুন নেসা পিয়ারীকে। এই কবিতাটি পরবর্তীতে কবির বন্ধু কবীর সুমনের কণ্ঠে জনপ্রিয় গান হিসেবে শ্রোতাদের মন জয় করে। ১৯৭০ সালে তাদের প্রেম এবং ১৯৭১ সালে বিয়ে হয়েছিল। নাজমুন নেসা পিয়ারীর ভাষায়Ñ ‘মুক্তিযুদ্ধ শুরুর আগের বছরে কাদরীর সঙ্গে আমার প্রথম পরিচয়। তখন আমি সিদ্ধেশ্বরী কলেজে পড়াই। ঢাকার সাহিত্য-সাংস্কৃতিক অঙ্গনে আমার উপস্থিতি ছিল নিয়মিত। অনুষ্ঠান-আড্ডা হলেই যোগ দিতাম। এ সময় কাদরী ঢাকার বিউটি বোর্ডিংয়ে কবিদের আড্ডাসহ নানা আড্ডা-অনুষ্ঠানের পরিচিত মুখ। এক অনুষ্ঠানে কথা বলতে গিয়ে কাদরী সুধীন্দ্রনাথ দত্তের একটা কবিতার লাইন মনে করতে পারছিল না। আমি সে লাইনটি বলে দিতেই আমার প্রতি তার নজর পড়ে। আমরা পরিচিত হই। তারপর একসঙ্গে পথচলা শুরু। এখনকার মতো মোবাইল যুগের কথা সেসময় ভাবা যেত না। ফিক্সড ফোনে কথা বলার ক্ষেত্রেও ছিল নানা বাধা। দেখা করাই ছিল একমাত্র উপায়। কাদরী আমার সঙ্গে নিয়মিত দেখা করতে চাইতো এবং আমরা দেখা করতাম। ঢাকার নানা আড্ডা-আলোচনায় যোগ দিতাম।’ গল্পে গল্পে নাজমুন নেসা আরও জানান, মুক্তিযুদ্ধের ভয়ংকর দিনগুলোতে যখন তাদের যোগাযোগ বজায় রাখা কষ্টকর হয়ে দাঁড়ায়, তখন তাদের প্রেমের সম্পর্ককে সামাজিক স্বীকৃতি দেওয়ার জন্য বিয়ে করা জরুরি হয়ে পড়ে। যুদ্ধের মধ্যেই কোর্টে বিয়ে করেন তারা। স্বাধীনতা উত্তর এই সময়ে ১৯৭৪ সালে কবির ‘তোমাকে অভিবাদন প্রিয়তমা’ কাব্যগ্রন্থ বের হয়। সেই স্মৃতিচারণ করতে গিয়ে পিয়ারী বলেন, ‘এ কাব্যগ্রন্থের নাম কবিতাটি আমার উদ্দেশ্যেই লেখা। এ গ্রন্থের উৎসর্গে কাদরী লিখেছিল, ‘পিয়ারীকে, গানগুলো যেন পোষা হরিণের পাল, তোমার চরণ চিহ্নের অভিসারী’। আসলে কাদরী এ সময় যুদ্ধবিধ্বস্ত সদ্যস্বাধীন দেশের নাগরিক যন্ত্রণার মধ্যে একটি প্রেমকে কাছে পেয়েছিল। তাই এ কবিতায় প্রেমের সঙ্গে সমকালীন জীবনচিত্রকে উঠিয়ে এনেছে সে। যেমন- ভয় নেই/আমি এমন ব্যবস্থা করবো যাতে সেনাবাহিনী/গোলাপের গুচ্ছ কাঁধে নিয়ে/ মার্চপাস্ট করে চলে যাবে/এবং স্যালুট করবে/কেবল তোমাকে প্রিয়তমা।’

শহীদ কাদরীর সহধর্মিণী আর প্রিয়তমা হিসেবেই কেবল নয় নাজমুন নেসা পিয়ারী নিজের মহিমাতেও সমান উজ্জ্বল। একজন কবি এবং অনুবাদক হিসেবে অর্জন করেছেন দারুণ সাফল্য। তিন যুগেরও বেশি সময় ধরে জার্মানিতে বসবাস করছেন তিনি। মাঝে মাঝে দেশে আসেন। এবারের দেশভ্রমণে বাংলাদেশ প্রতিদিনের মুখোমুখি হয়েছিলেন। সেখানেই বলেছেন তার সব না বলা কথা।

স্বাধীনতার পর পরই অর্থাৎ ১৯৭৬ সালে ডয়েচে ভেলের বাংলা বিভাগে যোগদান করেন তিনি। সদ্যস্বাধীন বাংলাদেশের জন্য বাংলা বিভাগ চালু করা হয়। সেখানে একজন ফিমেল ভয়েস দরকার। তাদের চাহিদা ছিল লেখালেখি ও উপস্থাপনার গুণ থাকতে হবে। তখন এই সুযোগে আবেদন করেন পিয়ারী। নির্বাচিত হওয়ার পর তিন বছর বাংলা বিভাগে কাজ করেন তিনি। তারপর ইংরেজি বিভাগ, জার্মান বিভাগেও কাজ করেন। সেইসব দিনের স্মৃতিচারণ করতে গিয়ে পিয়ারী বলেন, ‘ওখানে একটি মঞ্চ অনুষ্ঠান হতো সেখানেও আমি ১৯৮০ সাল থেকে কাজ করি। অনুষ্ঠানটি ছিল, বাইরের দেশ থেকে এসে যারা জার্মানে বসবার করতেন তাদের নিয়ে। একেকদিন একেক শহরে এই অনুষ্ঠান হতো। এর মাধ্যমেও জার্মানে বসবাসরত প্রবাসীসহ সবার কাছে আমি পরিচিত হয়ে উঠি। এই পরিচিতির কারণে আমাকে কেউ কেউ ডয়েচে ভেলের ভিজিটিং কার্ডও বলতেন। পরে এখানকার পাবলিক রিলেশনে মার্কেটিংয়ের একটি পোস্ট খালি হলো। তখন আমি সেখানে মার্কেটিং এবং গণসংযোগ বিভাগের সম্পাদক হিসেবে যোগদান করি। মজার ব্যাপার হলো- আমিই প্রথম কোনো বিদেশি যে এই বিভাগে কাজ শুরু করি। এটা ছিল ১৯৯০ সালের কথা। ওখানে আমি ২০০৩ পর্যন্ত কাজ করেছি। তারপর আমি বার্লিনে চলে গেলাম। কিন্তু ডয়েচে ভেলে আমার ৭০ শতাংশ বেতন বরাদ্দ রাখল। এদিকে বার্লিনে ফরেন মিনিস্ট্রিতে যারা ডিপ্লোম্যাট আছেন তাদের বাংলা পড়ানো শুরু করলাম। এ ছাড়াও পাশাপাশি আমি লেখালেখিতে যুক্ত হলাম। তখন ২০০৫ সালে আমি এলফ্রিডে জেলিনেকের লেখা ‘পিয়ানো টিচার’ এর অনুবাদ করি। বইটির লেখিকা নোবেল পেয়েছিলেন। তাই দারুণ সাড়া পেয়েছিলাম। সব মিলিয়ে চারটি অনুবাদগ্রন্থ রয়েছে আমার।’

বাবা কেমিস্ট্রির প্রফেসর ছিলেন, জনপ্রিয় শিক্ষাবিদ। তিনি চাইতেন মেয়ে বিজ্ঞানে পড়াশোনা করুক। তাই ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে বায়ো কেমিস্ট্রিতে মাস্টার্স সম্পন্ন করেন। তারপর সিদ্ধেশ্বরী কলেজে দুয়েক বছর পড়িয়েছেন। তারপর ইডেন কলেজে কিছুদিন শিক্ষকতা করেন। তখন দুপুরের পর আর্ট গ্যালারিতে ছবি আঁকতে যেতেন তিনি। আঁকাআঁকির অভ্যাস তৈরি হওয়ার পর এঁকেছেন বইয়ের কভারও। ছাত্র অবস্থাতেই লেখালেখির সঙ্গে জড়িয়ে যান। তখন দৈনিক বাংলার মোড়ে সিকান্দার আবু জাফর, আহসান হাবিবের কাছে লেখা নিয়ে যেতেন। মাঝে মাঝে লেখা ছাপা হতো পত্রিকায়। এক কথায় সাংস্কৃতিক অঙ্গনে আমার বিচরণ ছিল সব সময়। কিন্তু জার্মানি চলে যাওয়ার পর ভেবেছিলেন এই ধারাটা ধরে রাখা কঠিন হবে। কিন্তু আস্তে আস্তে পাল্টে গেল দৃশ্যপট। সেখানে যাওয়ার পর আস্তে আস্তে বাংলা সাহিত্য নিয়ে কাজ করা শুরু করেন। ১৯৮০ সাল থেকে নিয়মিত বাংলা পত্রিকায় লিখেছেন। ইন্ডিপেন্ডেন্ট আর ইত্তেফাকে লেখা যেত নিয়মিত। এ ছাড়াও অবজারভার, হলিডে পত্রিকাতেও লিখেছেন। এর মধ্যে অবশ্য দেশের সঙ্গে খানিক যোগাযোগটা বজায় ছিল। পিয়ারী বলেন, ‘আমি জার্মানিতে থাকাকালীন একুশে ফেব্রুয়ারি উপলক্ষে শাড়ি নিয়ে যেতাম। শাড়িতে অ, আ, ক, খ লেখা থাকত। ওখানকার মানুষজন জানতে চাইত এই ডিজাইনের অর্থ কি? আমি তাদের কাছে ব্যাখ্যা করতাম আমাদের ভাষা আন্দোলনের ইতিহাস। আমার সব সময় উদ্দেশ্য ছিল বাংলাদেশের ইতিহাস ঐতিহ্য বিদেশের বুকে তুলে ধরা। এভাবে নিজের ভিতরে সব সময় দেশের কথা লালন করেছি। এখনো করি। তখন থেকেই বহু কালচারাল অনুষ্ঠান করতাম। বার্লিনে আসার পর ‘বেঙ্গল সেন্টার’ নামে একটি অর্গানাইজেশন করি। এটি উপলক্ষে আমি বিভিন্ন অনুষ্ঠান করি। যেমন ভাষা আন্দোলনের ৬০ বছর পূর্তিতে অনুষ্ঠান করেছি। দেশ থেকে বরেণ্য ব্যক্তিদের সে অনুষ্ঠানে নিয়ে গিয়েছিলাম। প্রফেসর আনিসুজ্জামান ছিলেন, হৈমন্তী শুক্লা, শামীম আরা নিপা আর তার নাচের দল এমনকি দেশের কাঁচা বাউল সংগীত শিল্পীদের নিয়ে গেছি এই অনুষ্ঠানে। প্রতি বছরই এমন আয়োজন করার চেষ্টা করি।’ 

নিজের প্রবাস জীবন প্রসঙ্গে পিয়ারী বলেন,‘আমি জার্মানিতে চাকরি নিয়ে  গেছি। একটানা ৮ বছর থেকেছি সেখানে। সেজন্য আমার নাগরিকত্ব পেতে  কোনো ঝামেলা হয়নি। তবে এখন প্রায় প্রতি বছর দেশে আসা হয়। কখনো কখনো বছরে দুবারও দেশে আসি। নানা ধরনের সাংস্কৃতিক কাজ কর্ম করি। জার্মানিতে আমি একাই আছি। একমাত্র ছেলে থাকে নিউইয়র্কে। ওর স্কুল কলেজ ইউনিভার্সিটি ওখানেই। ছোট থাকতেই বাবার সঙ্গে চলে যায়।’

২০১৬ সালে প্রবাসী বাঙালি লেখকদের জন্য বাংলা একাডেমি প্রবর্তিত সৈয়দ ওয়ালীউল্লাহ্ সাহিত্য পুরস্কার লাভ করেন জার্মানি প্রবাসী কবি ও গবেষক নাজমুন নেসা পিয়ারী। ২০১৯ সালে অক্টোবরে ফোবানা সেন্ট্রাল কমিটির সদস্যরা মিলে ভোটাভুটির মাধ্যমে তাকে পুরস্কৃত করেছেন। সাংস্কৃতিক কর্মকান্ডে উল্লেখযোগ্য অবদান রাখার জন্য ফোবানা এই পুরস্কারটি দিয়েছে। ১৯৮০ সালে যখন রেডিওতে কাজ করেছেন, তখন শ্রোতা ক্লাব তাকে ‘ম্যান অব দ্য রেডিও’ পুরস্কার দেয়। কয়েক বছর আগে বিভিন্ন শ্রোতা ক্লাব মিলে তাকে ‘গোল্ডেন ভয়েস’ সম্মানে ভূষিত করেছে।

জীবনের এ পর্যায়ে এসে জীবনবোধ সম্পর্কে পিয়ারী বলেন, ‘আমার জীবনের উপলব্ধিতে যা পেয়েছি তা হলো, সব সময় আমাদের লড়াই করতে হয়। কখনো অতীত নিয়ে আমি আফসোস করি না। কারও বিরুদ্ধে নালিশ করা একদম অপছন্দ। নিজের কাজটায় মন থেকে করে যেতে  চেয়েছি। সব মিলিয়ে আমার জীবন নিয়ে কোনো আফসোস নেই। আমি ভালো আছি। আমার জীবনের প্রতিটি স্টেজকে মূল্যবান মনে হয়। মনে হয় একটি স্টেজ আমাকে আরেকটি স্টেজে পৌঁছে দিয়েছে। হয়তো যে জিনিসটি আমার জীবনে আসেনি, বা আমার হয়নি সেটার জন্য লড়াই করতে গিয়ে আরও ভালো কিছু পেয়েছি। তাই জীবন নিয়ে আমার সন্তুষ্টি অনেক।’ সামনের দিনগুলোতে আমি লেখালেখিটা আরও বেশি করতে চান পিয়ারী। সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের মাধ্যমে জার্মানিসহ বিশ্বের নানা প্রান্তে আরও দৃঢ়ভাবে তুলে ধরতে চান বাংলা ভাষা ও সংস্কৃতিকে।

সর্বশেষ খবর