শিরোনাম
প্রকাশ : শনিবার, ১৯ অক্টোবর, ২০১৯ ০০:০০ টা
আপলোড : ১৮ অক্টোবর, ২০১৯ ২৩:৪৪

দুই চ্যাম্পিয়নের লড়াইয়ে শুরু

শেখ কামাল আন্তর্জাতিক ক্লাব কাপ

রাশেদুর রহমান, চট্টগ্রাম থেকে

চট্টগ্রাম শহরে ক্রিকেট এলে ভিন্ন মাত্রার উন্মাদনা চোখে পড়ে। স্থানে স্থানে আলোকসজ্জা হয়। পোস্টার ফেস্টুনে ভরে যায় শহরের অলি-গলি। চায়ের আড্ডায় চলে টিমগুলোর জয়-পরাজয় নিয়ে তুমুল বিতর্ক। ফুটবলের চিত্রটা পুরোপুরিই ভিন্ন। স্থানীয় লোকজনের কেউ কেউ জানে, একটা টুর্নামেন্ট হবে। তবে নামটা জানা নেই। কী ধরনের ফুটবল টুর্নামেন্ট তাও জানেন না অনেকে। অনেকে জানেই না। টুর্নামেন্টের একমাত্র ভেন্যু এম এ আজিজ স্টেডিয়ামের আশপাশে এলে অবশ্য ভিন্ন দৃশ্য চোখে পড়ে। অনেকটা দূরে থাকতেই কাঁচা রঙের ঘ্রাণ পাওয়া যায়। পুরো স্টেডিয়ামেই ঘষা-মাজা হয়েছে। নতুন রং চক চক করছে গ্যালারিতে। এম এ আজিজের এই প্রস্তুতির ছাপ শহরের বাকি অংশে নেই। উন্মাদনা থাকুক আর নাই থাকুক, আজ থেকে শুরু হচ্ছে শেখ কামাল আন্তর্জাতিক ক্লাব কাপের তৃতীয় আসর।

শেখ কামাল আন্তর্জাতিক ক্লাব কাপ টুর্নামেন্টের তৃতীয় আসর শুরু হচ্ছে আজ থেকে। আট দলের সব ম্যাচই অনুষ্ঠিত হবে এম এ আজিজ স্টেডিয়ামে। আজ টুর্নামেন্টের উদ্বোধনী ম্যাচে মুখোমুখি হবে গত দুই আসরের দুই চ্যাম্পিয়ন। ২০১৫ সালে প্রথম আসরে কলকাতার ক্লাব ইস্ট বেঙ্গলকে হারিয়ে চ্যাম্পিয়ন হয়েছিল স্বাগতিক দল চট্টগ্রাম আবাহনী। ২০১৭ সালে দ্বিতীয় আসরের ফাইনালে দক্ষিণ কোরিয়ার ক্লাব এফসি পোচেনকে হারিয়ে চ্যাম্পিয়ন হয় মালদ্বীপের টিসি স্পোর্টস। উদ্বোধনী দিনেই মুখোমুখি হচ্ছে দুই দল।

আগের দুইবারের তুলনায় এবার অনেক কঠিন টুর্নামেন্ট হতে যাচ্ছে বলে জানালেন অংশগ্রহণকারী দলগুলোর কোচ ও অধিনায়করা। এবার ‘এ’ গ্রুপে স্বাগতিক চট্টগ্রাম আবাহনী ও বর্তমান চ্যাম্পিয়ন মালদ্বীপের টিসি স্পোর্টস ছাড়াও আছে ভারতের মোহনবাগান ও লাওসের ইয়াং এলিফ্যান্ট। বি গ্রুপে মুখোমুখি হবে বাংলাদেশ প্রিমিয়ার লিগের বর্তমান চ্যাম্পিয়ন বসুন্ধরা কিংস, মালয়েশিয়ার তেরেনগানু এবং চেন্নাই সিটি। এই গ্রুপে ঢাকা আবাহনীর অংশগ্রহণের কথা থাকলেও তারা নিজেদের নাম প্রত্যাহার করেছে। আবাহনীর পরিবর্তে ভারতের গোকোলাম কেরালার অংশগ্রহণের কথা রয়েছে।

গতকাল অংশগ্রহণকারী আট দলের মধ্যে ছয়টি দল টুর্নামেন্টপূর্ব সংবাদ সম্মেলনে অংশগ্রহণ করে। চট্টগ্রাম আবাহনীর কোচ মারূফুল হক বলেন, ‘এই টুর্নামেন্টে প্রথমবার আমরা চ্যাম্পিয়ন হয়েছিলাম। এবার সেই ট্রফিটাই পুনরুদ্ধার করতে চাই।’ দলের প্রস্তুতি নিয়ে তিনি বলেন, ‘দলটা গোছাতে হচ্ছে নতুন করে। বেশ কয়েকজন বিদেশি ফুটবলার আছেন। এদের মধ্যে বিশ্বকাপ খেলার অভিজ্ঞতা যেমন আছে, তেমনি ইউরোপা কাপ খেলার অভিজ্ঞতাসম্পন্ন ফুটবলারও আছেন। সবাইকে নিয়েই ভালো একটা টিম গঠন করতে চাচ্ছি।’ তবে প্রস্তুতির সময় খুব একটা পাননি বলে কিছুটা আক্ষেপ আছে তার। অবশ্য দলের অধিনায়ক জামাল ভূঁইয়া জানালেন, ‘পেশাদার ফুটবলারদের সব পরিস্থিতির সঙ্গেই মানিয়ে নিতে হয়। সব সময়ই তো আর প্রস্তুতির সময় পাওয়া যায় না।’ চট্টগ্রাম আবাহনীতে এবার মন্টিনিগ্রো, আইভরি কোস্ট, ঘানা ও বসনিয়ার ফুটবলার যোগ হচ্ছে।

 


আপনার মন্তব্য