শিরোনাম
প্রকাশ : মঙ্গলবার, ২৩ ফেব্রুয়ারি, ২০২১ ০০:০০ টা
আপলোড : ২২ ফেব্রুয়ারি, ২০২১ ২৩:২৬

ফুটবলে বেটিং চ্যালেঞ্জে বাফুফে

ক্রীড়া প্রতিবেদক

ফুটবলে বেটিং চ্যালেঞ্জে বাফুফে

পাতানো খেলা বাংলাদেশের ফুটবলে পুরনো মহামারী। যখন এ খেলার জনপ্রিয়তা তুঙ্গে ছিল তখন থেকেই পাতানোর অভিযোগ উঠছে। পেশাদার লিগেও এ অভিযোগের শেষ নেই। পাতানো শনাক্তের জন্য কমিটি আগেও ছিল। এখনো আছে। তদন্তও হয়েছে, কিন্তু ফলাফল শূন্য। এ তদন্ত পর্যন্তই শেষ। এবার পাতানোর বদলে আবিষ্কার হয়েছে স্পট ফিক্সিং বা অনলাইন বেটিং। যা ক্রিকেটেই পরিচিত ছিল। এ রোগ শেষ পর্যন্ত ফুটবলে ছড়াল। নিচের সারির দুই দল আরামবাগ ও ব্রাদার্স ইউনিয়নকে ঘিরে অভিযোগ উঠেছে। বাফুফে আরামবাগ ও ব্রাদার্সকে চিঠি পাঠিয়েছে।

আগে তদন্তের মধ্যেই সব শেষ হলেও এবার বাফুফে কঠিন চ্যালেঞ্জের মুখে। কারণ বিষয়টি এএফসির টেবিল পর্যন্ত পৌঁছিয়েছে। ফুটবলে এশিয়ার অভিভাবক সংস্থা ১২ মার্চের মধ্যে বিষয়টি জানাতে বলেছে। বাফুফে সাধারণ সম্পাদক আবু নাঈম সোহাগ জোর গলায় বলেছেন ক্লাব বা ব্যক্তি যারাই ফিক্সিংয়ে জড়িত থাকুক না কেন কঠোর ব্যবস্থা নেওয়া হবে। অভিযুক্ত দুই ক্লাব বাফুফের চিঠির জবাবও দিয়েছে। বলেছে, কোনোভাবেই তারা ফিক্সিংয়ের সঙ্গে জড়িত নয়। তবে দেশি বিদেশি কয়েকজনকে চিহ্নিত করে সন্দেহ করা হচ্ছে তারাই এ অপরাধের সঙ্গে জড়িত। তবে প্রশ্ন উঠেছে আরামবাগ ও ব্রাদার্স যেখানে রেলিগেশনের ফাঁদে সেখানে ইচ্ছা করে দলকে বিপদে ফেলবে কোন যুক্তিতে? যেটাই হোক এএফসির কাছে সেই অভিযোগ গেছে। যদি প্রমাণসহ পাঠানো হয় তাহলে তো সর্বনাশ! ব্যক্তি বা ক্লাব পাড় পাবার সুযোগ নেই। বাফুফে চেষ্টা করলেও বাঁচাতে পারবে না। এর আগে বাফুফে শুধু পাতানো ম্যাচ শনাক্তকরণ নিয়ে কাজ করেছে। কিন্তু স্পষ্ট ফিক্সিং বা বেটিংয়ে অভিযোগ একেবারে নতুন। এ ক্ষেত্রে বাফুফে কিভাবে তদন্ত করবে সেটাও প্রশ্ন হয়ে দাঁড়িয়েছে।

বাফুফের সাধারণ সম্পাদক সোহাগ বলেছেন, জোর তদন্ত চলবে, প্রমাণ মিললে কাউকে ছাড় দেওয়া হবে না। কথা হচ্ছে তদন্তটা হবে কীভাবে? বেটিং তো শুধু জুয়াড়ি বা খেলোয়াড় বা কর্মকর্তারা জড়িত থাকে। এক্ষেত্রে বাফুফে তো চিঠি পাঠিয়েছে দুই ক্লাবের কাছে। এখানে খেলোয়াড় বা কর্মকর্তারা যদি জড়িত থাকেন তাহলে ক্লাবের কী দোষ। লিগ কমিটির চেয়ারম্যান সালাম মুর্শেদীও স্বীকার করেছেন, শনাক্ত করাটা কঠিন। কাজটি করবে পাতানো শনাক্ত কমিটি। কথা হচ্ছে কমিটি কতটা দক্ষ এটাও দেখতে হবে। তাদের ওপর ছেড়ে দিল তো চলবে না। এএফসি সময়সীমা বেঁধে দিয়েছে। সত্যি বলতে বেটিং নিয়ে চ্যালেঞ্জ পড়ে গেছে বাফুফে।


আপনার মন্তব্য