২৬ মার্চ, ২০২২ ২০:৩৭

এক যুগের অপেক্ষা শেষে দেশে নারী আম্পায়ারের যাত্রা শুরু

অনলাইন ডেস্ক

এক যুগের অপেক্ষা শেষে দেশে নারী আম্পায়ারের যাত্রা শুরু

সংগৃহীত ছবি

এক যুগের অপেক্ষা শেষে স্বাধীনতা দিবসে দেশের ক্রিকেটে যাত্রা শুরু হলো নারী আম্পায়ারদের। প্রতি বছরের ন্যায় এবারও দিবসটি উপলক্ষে ‘স্বাধীনতা কাপ’ প্রীতি ম্যাচের আয়োজন করে বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ড (বিসিবি)। এ বছর এ ম্যাচ পরিচালনার মাধ্যমে দেশে যাত্রা শুরু হয়েছে নারী আম্পায়ারের।

মিরপুর শেরে বাংলা জাতীয় ক্রিকেট স্টেডিয়ামের একাডেমি মাঠে আজ বিসিবি আয়োজিত বাংলাদেশ লাল এবং বাংলাদেশ সবুজ একাদশের মধ্যকার প্রীতি ম্যাচটি সৈয়দ মাহবুবুল্লাহর সাথে পরিচালনা করেন বাংলাদেশ মহিলা দলের সাবেক ক্রিকেটার সাথিরা জাকির জেসি।

১৯৭১ সালে বাংলাদেশ একটি স্বাধীন দেশ হিসাবে আত্মপ্রকাশ করে। আজ দেশের স্বাধীনতার  ৫১তম বছর। 

ম্যাচ পরিচালনার পর জেসি বলেন, ‘আমাদের দেশের কিছু ম্যাচে ইতোমধ্যেই নারী আম্পায়াররা দায়িত্ব পালন করেছেন কিন্তু কেউই তা জানতেন না।’

২০০৯ সাল থেকে ম্যাচ পরিচালনা করছেন অন্য একজন নারী আম্পায়ার ডলি। বিশেষ করে বিভাগীয় খেলায়, যা অনেকেই জানেন না।

২০০৯ সালে অন্যান্য নারী ক্রিকেটারদের সাথে আম্পায়ারিং কোর্স সম্পন্ন করেছিলেন জেমি। তিনি বলেন, ‘গত সপ্তাহে, আমি মিঠু ভাইকে (ইফতিখার আহমেদ মিঠু, আম্পায়ার কমিটির চেয়ারম্যান) বলেছিলাম যে আমি স্বাধীনতা কাপের ম্যাচ পরিচালনা করতে চাই। কারণ আমি অন্য জায়গা থেকে আম্পায়ারিং শুরু করলে কেউ জানতো না।’

তিনি আশা করেন, নারী আম্পায়ারদের বেশি-বেশি ম্যাচ পরিচালনার দায়িত্ব পালনের সুযোগ দিবে বিসিবি।
জেসি বলেন, ‘পাকিস্তানের মতো দেশে, নারী আম্পায়াররা নিয়মিত ম্যাচ পরিচালনা করে তবে এখানে আমরা এখনও যথেষ্ট সুযোগ পাই না। এখন যখন সবাই বাংলাদেশের নারী আম্পায়ারদের ব্যাপারে জানে, এই শুভ দিনে ধন্যবাদ, আমি আশা করি, আমরা একটি ভালো প্লাটফর্ম পাবো।’

২০ ওভারের ম্যাচে  বাংলাদেশ সবুজ একাদশকে ৭৪ রানে হারিয়েছে লাল  একাদশ। প্রথমে ব্যাট করার সিদ্ধান্ত নিয়ে ৮ উইকেটে ২৬৯ রান করে বাংলাদেশ লাল দল। রাজিন সালেহ ৩৭ বলে ৮৭ রান করেন। তিনটি চার এবং ১০ ছক্কায় নিজের ইনিংসটি সাজান তিনি। তুষার ইমরান ৩৮ বল খেলে পাঁচটি চার ও সাতটি ছক্কায় ৭৭ রান করেন। সবুজ দলের  পেসার হাসিবুল হোসেন শান্ত ৪৫ রানে ৫ উইকেট নেন।
জবাবে ১৮ দশমিক ৫ ওভারে ১৯৫ রানে অলআউট হয় বাংলাদেশ সবুজ দল।  

টপ এবং মিডল অর্ডার ব্যাটারদের ব্যর্থতার পর, ৯ নম্বর ব্যাটার জামাল বাবু ২০ বলে ৬২ রান করেন। ছয়টি চার ও পাঁচটি ছক্কা মারেন তিনি। লাল দলের পেসার মাহবুব আলম রবিন ৩০ রানে ৫ উইকেট নেন।

বাংলাদেশ লাল একাদশ : মেহরাব হোসেন অপি, হান্নান সরকার, তুষার ইমরান, সানওয়ার হোসেন, মিনহাজুল আবেদিন নান্নু, আনোয়া হোসেন, আবদুর রাজ্জাক, রাজিন সালেহ, তালহা জুবায়ের, সজল চৌধুরী, মাহবুবুল আলম রবিন, এনামুল হক মনি, এহসানুল হক হোসেন, নাজমুল হোসেন, নাজমুল হক, ইউসুফ বাবু।

ম্যানেজার : মোহাম্মদ আলী

বাংলাদেশ সবুজ একাদশ : জাভেদ ওমর বেলিম, সাইফুল ইসলাম, শাহরিয়ার হোসেন বিদ্যুৎ, শাহরিয়ার নাফীস আহমেদ, জামাল বাবু, খালেদ মাসুদ পাইলট, মোহাম্মদ রফিক, হাসিবুল হোসেন শান্ত, সৈয়দ রাসেল, হারুনুর রশিদ লিটন, জাহাঙ্গীর আলম, ডলার মাহমুদ, ফয়সাল হোসেন ডিকেন্স, মোহাম্মদ সেলিম, হাসানুজ্জামান ঝোড়।

ম্যানেজার : এএসএম রকিবুল হাসান।

বিডি প্রতিদিন/আরাফাত

এই বিভাগের আরও খবর

সর্বশেষ খবর