শিরোনাম
প্রকাশ : বুধবার, ১৭ ফেব্রুয়ারি, ২০২১ ০০:০০ টা
আপলোড : ১৬ ফেব্রুয়ারি, ২০২১ ২২:২৩

কেশ কাটার সময়...

কেশ কাটার সময়...

হিসাব-নিকাশ করে কি আর চুল কাটানো যায়! মন চাইল চুল কাটালেন। আবার মন চাইল তো লম্বা করলেন চুল। ইচ্ছামতো চুল কাটাতে বাধা নেই। তবে মাথায় রাখুন কিছু ব্যাপার।

 

চুল কাটানোর হিসাব-নিকাশ

গুলশানের নিকেতনে শোভন মেকওভারের স্বত্বাধিকারী ও কসমোলজিস্ট শোভন সাহা জানান, ‘মাঝে মাঝে মেয়েদের চুলের কাটছাঁটে পরিবর্তন আনা জরুরি। এতে চুলের আগা ফাটা বা সরু হওয়ার প্রবণতা কমে আসবে। তবে কেশ কাটার আগে কিছু বিষয় খেয়াল রাখা উচিত। সেক্ষেত্রে এক্সপার্টের সাহায্য নিতে পারেন।’

* যাদের চুল লম্বা, তারা চুল ছোট করতে চাইলে একবার চুল কাটানোর এক মাসের মধ্যে চুল কাটালেও সমস্যা নেই।

* যাদের চুল ছোট করে কাটানো, তারা চুল বড় করতে চাইলে একবার চুল কাটানোর তিন মাস পর চুলের আগা কাটাতে পারেন। এভাবে চুল কাটানোর কয়েক মাস পর চুল লম্বা হবে।

 

হেয়ার স্টাইল বুঝে কেশ কাট

অনেকেই মনে করেন ট্রিমিং মানে আবার চুল কাটা। বিষয়টি তা নয়। সামান্য আগা ছাঁটানোর মাধ্যমে ট্রিম করানো হয়। সাধারণত তিন মাস পর পর চুলের আগা ছাঁটা উচিত। তবে লেয়ার কাট, ভলিউম লেয়ার, ভলিউম স্টেপ, ডিপ ইউ কাট থাকলে এক মাস অন্তর অন্তর ট্রিমিং করানো উচিত। এতে চুলের কাটের কোনো পরিবর্তন হবে না। তা না হলে আগা সরু হবে। চুল হারাবে সৌন্দর্য। রিবন্ডিং করানো চুল দ্রুত বাড়ে। এ ধরনের চুলের আগাও ফেটে যায় দ্রুত। প্রতি মাসে রিবন্ডিং করানো চুলের আগা ছাঁটানো উচিত। তবে হেয়ার কালার বা হাইলাইট করানো হলে দুই মাস অন্তর অন্তর ট্রিম করাতে হবে।

 

লেখা : নূরজাহান জেবিন