প্রকাশ : ১২ এপ্রিল, ২০২১ ১৪:০৯
প্রিন্ট করুন printer

নিয়োগ বাতিলসহ ৯ সিদ্ধান্ত বাস্তবায়নে রাবি উপাচার্যকে চিঠি

রাবি প্রতিনিধি

নিয়োগ বাতিলসহ ৯ সিদ্ধান্ত বাস্তবায়নে রাবি উপাচার্যকে চিঠি

রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের (রাবি) ভাবমূর্তি রক্ষায় সর্বসম্মতভাবে গৃহীত বিশ্ববিদ্যালয়ের মুক্তিযুদ্ধের চেতনা ও মূল্যবোধে বিশ্বাসী প্রগতিশীল শিক্ষক সমাজের স্টিয়ারিং কমিটির নেওয়া সিদ্ধান্ত বাস্তবায়নের জন্য উপাচার্য অধ্যাপক এম আবদুস সোবহানকে চিঠি দিয়েছে কমিটি।

গত ২৪ মার্চ সভায় গৃহীত সিদ্ধান্তগুলো বাস্তবায়নের জন্য রবিবার সকাল সাড়ে ১০টায় উপাচার্যকে চিঠি দেওয়া হয় বলে নিশ্চিত করেছেন প্রগতিশীল শিক্ষক সমাজের আহ্বায়ক অধ্যাপক হাবিবুর রহমান। উপাচার্যকে পাঠানো সেই চিঠির একটি কপি দুপুরে বাংলাদেশ প্রতিদিনের কাছে এসেছে।

সেই চিঠিতে প্রগতিশীল শিক্ষক সমাজ উল্লেখ করেছেন, রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের দুর্নীতিবিরোধী শিক্ষকদের আন্দোলনের পরিপ্রেক্ষিতে ২০২০ সালে বাংলাদেশ বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরী কমিশন (ইইজিসি) অভিযোগ প্রমাণের জন্য তদন্ত কমিটি গঠন করে। তদন্ত শেষে ইউজিসি বিশ্ববিদ্যালয়ে দুর্নীতি, স্বজনপ্রীতি, অনিয়ম, স্বেচ্ছাচারিতা এবং আর্থিক অনিয়মসহ ২৫টি অভিযোগের প্রমাণ পায়।

এরই পরিপ্রেক্ষিতে গত ১০ ও ১৩ ডিসেম্বর শিক্ষা মন্ত্রণালয় রাবির অন্যায় ও অপকর্মের সাথে জড়িত কতিপয় শিক্ষক ও কর্মকর্তাকে তলব এবং রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের সকল নিয়োগ বন্ধসহ নির্দেশনামূলক ১২টি পত্র প্রদান করে। এ কারণে গত ২৪ মার্চ মুক্তিযুদ্ধের চেতনা ও মূল্যবোধের বিশ্বাসী প্রগতিশীল শিক্ষক সমাজের স্টিয়ারিং কমিটির সভায় রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের সার্বিক পরিস্থিতিতে গভীর উদ্বেগ জানায় এবং বিশ্ববিদ্যালয়ের ভাবমূর্তি রক্ষায় সর্বসম্মতভাবে ৯টি সিদ্ধান্ত গৃহীত।

উপাচার্যকে বাস্তবায়নের জন্য পাঠানো সেই সিদ্ধান্তসমূহের মধ্যে উল্লেখযোগ্য হলো-শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের নির্দেশনা অনুসরণ করে নতুনভাবে শিক্ষক/কর্মকর্তা/কর্মচারী নিয়োগ নীতিমালা প্রস্তুত করার প্রয়োজনীয় উদ্যোগ গ্রহণ করা, শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের নিয়োগ নিষেধাজ্ঞা প্রত্যাহার না হওয়া পর্যন্ত সকল ধরনের নিয়োগ কার্যক্রম বন্ধ রাখা, গত ১০ ডিসেম্বর শিক্ষা মন্ত্রণালয় দেওয়া সব ধরনের নিয়োগ বন্ধ সংক্রান্ত নির্দেশনা উপেক্ষা করে গত ১২ ডিসেম্বর অনুষ্ঠিত ৫০৩তম সিন্ডিকেট সভায় গৃহীত সকল নিয়োগ বাতিল করা, ফলিত গণিত বিভাগে নিয়মবহির্ভূতভাবে একজন শিক্ষককে দেওয়া অ্যাডহক নিয়োগ বাতিল করা, জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশতবার্ষিক এবং স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী উদযাপন অনুষ্ঠানে মুক্তিযুদ্ধের চেতনা ও মূল্যবোধে বিশ্বাসী প্রগতিশীল শিক্ষক সমাজকে উপেক্ষা করার কারণ ব্যাখ্যা করা, শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের নির্দেশনা উপেক্ষা করে রেজিস্ট্রারকে অপসারণ না করে তার পদত্যাগপত্র গ্রহণের সিদ্ধান্ত বাতিল করে শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের নির্দেশনার আলোকে পূর্ববর্তী রেজিস্ট্রারকে অপসারণের ব্যবস্থা করা, বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষকদের বিরুদ্ধে তদন্ত কমিটির তদন্ত কার্যক্রম অতিসত্বর নিষ্পত্তি করার ব্যবস্থা করা।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে স্টিয়ারিং কমিটির আহ্বায়ক অধ্যাপক হাবিবুর রহমান বাংলাদেশ প্রতিদিনকে বলেন, বিশ্ববিদ্যালয়ের সার্বিক পরিস্থিতি আমরা উপাচার্যকে অবগত করেছি। আমাদের সভায় গৃহীত সিদ্ধান্তসমূহ বাস্তবায়নের জন্য উপাচার্যকে অনুরোধও করা হয়েছে।

বিডি প্রতিদিন/এমআই

এই বিভাগের আরও খবর