শিরোনাম
প্রকাশ : ১৫ নভেম্বর, ২০১৯ ১৬:১৬

গৃহহীনদের স্বপ্নের নিবাস ‘পুষণী গুচ্ছগ্রাম’

সাইফুল ইসলাম বেগ, বিশ্বনাথ (সিলেট) :

গৃহহীনদের স্বপ্নের নিবাস ‘পুষণী গুচ্ছগ্রাম’

সিলেটের বিশ্বনাথ উপজেলার ছিন্নমূল মানুষ পাচ্ছে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ‘গুচ্ছগ্রাম প্রকল্পে’ আশ্রয়। মাথা গোঁজার ঠাঁই হিসেবে একটি করে ঘর পাচ্ছে তারা। সম্প্রতি উপজেলার খাজান্সি ইউনিয়নের গোবিন্দনগর গ্রামে সরকারি খাস জমিতে নির্মাণ করা হয়েছে ‘পোষণী গুচ্ছগ্রাম’। ওই গুচ্ছগ্রামে পুনর্বাসন করা হবে আশ্রয়হীন ২৫টি পরিবারকে। 

ইতিমধ্যে আশ্রয়হীন পরিবার বাছাইয়ের কাজ শেষ করেছে উপজেলা প্রশাসন। উর্ধতন অফিসের অনুমতি পেলেই হস্তান্তর করা হবে ঘর। সূত্র জানায়, সরকারের অর্থায়নে গুচ্ছগ্রাম-২য় পর্যায় (কাইমেট ভিকটিম রিহ্যাবিলিনেশন) প্রকল্পের আওতায় ৪৬ লক্ষ্য ৬৬ হাজার ৫শ’ টাকা ব্যয়ে তৈরি করা হয় এ গুচ্ছগ্রাম। ২০১৭ সালের নভেম্বরের শেষের দিকে প্রকল্পের কাজ শুরু হলেও নানা জটিলতায় দীর্ঘ সময় ব্যয় হয় নির্মাণ কাজে। সম্প্রতি ২৫টি গৃহহীন পরিবার বসবাসের উপযোগী করে প্রস্তুত করা এটি। 

সরেজমিন পোষণী গুচ্ছগ্রামে গিয়ে দেখা যায়, এক একর খাস জমিতে গড়ে ওঠেছে টিনশেডের নান্দনিক ঘরের সারি। প্রত্যেক ঘরে দু’টি করে কামরা। আছে মাল্টিপারপাস হল ও খেলার মাঠ। শুধু তাই নয় সুফলভোগী পরিবারগুলোর জন্য রয়েছে স্বাস্থ্য সম্মত স্যানিটেশন, উন্নত চুলা, সুপেয় পানির জন্যে নলকূপ। গ্রামে সবুজাভ পরিবেশ তৈরিতে রোপণ করা হয়েছে বিভিন্ন প্রজাতির ফলজ বনজ ও ঔষধি গাছের চারা। 

গুচ্ছগ্রামের বাছাই তালিকায় নাম থাকা মাহমুদা বেগম (৩৫)’র সাথে কথা হলে তিনি এ প্রতিবেদককে জানান, মানসিক ভারসাম্যহীন স্বামী ও ছোট ছোট তিন ছেলে নিয়ে অন্যের বাড়িতে আশ্রিত ছিলাম। দীর্ঘদিনের স্বপ্ন সুন্দর একটি ঘরের। আজ সে স্বপ্ন পূরণ করে দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। পরিচ্ছন্ন পরিবেশের একটি ঘর পেয়ে আমি মহাখুশি। 

স্থানীয় ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান তালুকদার গিয়াস উদ্দিন বলেন, এমন একটি আবাসন কেন্দ্র গড়ে ওঠায় আমরা অত্যন্ত খুশি। ২৫টি পরিবারের মুখে হাসি ফোটাবে গৃহহীনদের আশ্রয়স্থল এ গুচ্ছগ্রাম। প্রকল্পের সদস্য সচিব উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) ফাতেমা তুজ জোহরা বলেন, ‘প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার অবদান, গৃহহীনদের বাসস্থান’-এ স্লোগানকে সামনে রেখে সারাদেশের ন্যায় বিশ্বনাথ উপজেলায় ‘পোষণী গুচ্ছগ্রাম’ নির্মাণ করা হয়েছে। নিশ্চিত করা হয়েছে সুযোগ-সুবিধাও। উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা বর্ণালী পাল ‘বাংলাদেশ প্রতিদিন’কে বলেন, গৃহহীনদের ঘর বুঝিয়ে দেয়ার সকল প্রক্রিয়া সম্পন্ন করা হয়েছে। অচিরেই আনুষ্ঠানিকভাবে বাছাইকৃতদের মধ্যে ঘর হস্তান্তর করা হবে।

বিডি-প্রতিদিন/শফিক


আপনার মন্তব্য