শিরোনাম
প্রকাশ : ২৪ ফেব্রুয়ারি, ২০২১ ২০:২৩
প্রিন্ট করুন printer

হালদার পাড়ে হবে বঙ্গবন্ধুর ম্যুরাল

নিজস্ব প্রতিবেদক, চট্টগ্রাম:

হালদার পাড়ে হবে বঙ্গবন্ধুর ম্যুরাল

উপমহাদেশের অন্যতম প্রাকৃতিক মৎস্য প্রজনন কেন্দ্র এবং বঙ্গবন্ধু মৎস্য হেরিটেজ হালদা নদীর পাড়ে বসানো হবে জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের দৃষ্টিনন্দন ম্যুরাল। চট্টগ্রামের রাউজান উপজেলার মদুনাঘাট থেকে সর্ত্তার ঘাট পর্যন্ত সরকারি জায়গায় হালদা নদীর পাড়ে বঙ্গবন্ধুর ম্যুরালটি স্থাপন করা হবে। এটি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা উদ্বোধন করার কথা। গত বছরের ২১ ডিসেম্বর গেজেট প্রকাশের মাধ্যমে এ নদীকে বঙ্গবন্ধু মৎস্য হেরিটেজ ঘোষণা করে সরকার।

জানা যায়, হালদা নদীর মদুনাঘাট থেকে সর্ত্তার ঘাট পর্যন্ত এতটি অংশে বঙ্গবন্ধুর ম্যুরাল স্থাপন করা হবে। তবে ম্যুরালটি কেমন হবে কত আকারের হবে, সে বিষয়ে এখনো চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত হয়নি। মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ মন্ত্রণালয় ম্যুরালটি তৈরির ব্যাপারে সিদ্ধান্ত নিবে। ইতোমধ্যে চট্টগ্রাম জেলা প্রশাসকের নেতৃত্বে একটি কমিটি গঠন করা হয়েছে। কমিটিতে আছেন চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় হালদা রিভার রিসার্চ ল্যাবরেটরির সমন্বয়ক, হাটহাজারী ও রাউজান উপজেলা নির্বাহী অফিসার, জেলা মৎস্য কর্মকর্তা, পানি উন্নয়ন বোর্ডের তত্ত্বাবধায়ক প্রকৌশলী।

চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় হালদা রিভার রিসার্চ ল্যাবরেটরির সমন্বয়ক ও প্রাণিবিদ্যা বিভাগের অধ্যাপক ড. মনজুরুল কিবরিয়া বলেন, হালদা নদীকে বঙ্গবন্ধু মৎস্য হেরিটেজ ঘোষণা করার পর নদীর পাড়ে বঙ্গবন্ধুর একটি ম্যুরাল স্থাপনের সিদ্ধান্ত হয়। এটি বাস্তবায়নের প্রক্রিয়া চলছে। তিনি বলেন, নদীটিকে বঙ্গবন্ধু মৎস্য হেরিটেজ ঘোষণা করায় নদীটা বিশেষ মর্যাদা পাবে। একই সঙ্গে হালদা নদী আরও বেশি সুরক্ষিত থাকবে এবং একটি কর্তৃপক্ষ তৈরি হবে।    

হাটহাজারী উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোহাম্মদ রুহুল আমিন বলেন, জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ম্যুরালটি রাউজানের মদুনাঘাট থেকে সর্ত্তার ঘাট পর্যন্ত অংশে হবে। তবে এটি স্থাপনে ব্যয়, নকশা এখনো চূড়ান্ত হয়নি। তবে মুজিব বর্ষের মধ্যে এটি বাস্তবায়ন প্রক্রিয়া সম্পন্ন হবে।

জানা যায়, উপমহাদেশের অন্যতম প্রাকৃতিক মৎস্য প্রজনন ক্ষেত্র হালদা নদীটি খাগড়াছড়ি জেলার রামগড় উপজেলার ১ নং পাতাছড়া ইউনিয়নের হালদা ছড়া থেকে উৎপত্তি। কার্যত সেখান থেকেই এই হালদা নদীর উৎপত্তি হয়ে কালুরঘাটের কাছে হয়ে কর্ণফুলীতে গিয়ে মিলিত হয়েছে। চলতি পথে হালদায় ৩৬টি ছড়া ও খাল এসে যুক্ত হয়েছে। এর মধ্যে খালের সংখ্যা ১৯টি। ১০৬ কিলোমিটার দীর্ঘ এ নদীতে প্রাকৃতিকভাবে চার প্রজাতির মা মাছ ডিম ছাড়ে। এই নদী থেকে দৈনিক ১৮ কোটি লিটার পানিও সরবরাহ করে চট্টগ্রাম ওয়াসা। প্রতিবছর মা মাছ এখানে অবাধে রেণু (ডিম) ফোটাতে নিরাপদ স্থান হিসেবে বেছে নেয়। প্রাকৃতিকভাবে মা-মাছ ডিম ছাড়ে বলে দুই পাড়ের মানুষ অর্থনৈতিকভাবে সমৃদ্ধ করছে নদীকে। জাতীয় অর্থনীতিতে এর অবদান ৮০০ কোটি টাকা। তবে হালদা নদীর উৎপত্তিস্থল থেকে কর্ণফুলী নদীর মোহনা পর্যন্ত এলাকায় নদীর পাড়ে অপরিকল্পিতভাবে গড়ে ওঠে শিল্প-কারখানা। ফলে প্রতিনিয়তই কারখানার দূষিত বর্জ্যে হালদায় মাছ মারা যাওয়ার ঘটনা ঘটে। তাছাড়া নিয়মিত ডলফিন ও মা মাছ শিকার এবং অবৈধভাবে বালি উত্তোলনের ঘটনাও ঘটে। 

বিডি প্রতিদিন/ মজুমদার 


আপনার মন্তব্য

এই বিভাগের আরও খবর