শিরোনাম
প্রকাশ : ১৯ এপ্রিল, ২০২১ ১৭:০৬
আপডেট : ১৯ এপ্রিল, ২০২১ ১৯:২১
প্রিন্ট করুন printer

একদিনেই মৃত্যু ৫, আক্রান্ত ২৯৩

চট্টগ্রামে করোনা সংক্রমণ ঠেকাতে রেড-ইয়োলো জোন

নিজস্ব প্রতিবেদক, চট্টগ্রাম:

চট্টগ্রামে করোনা সংক্রমণ ঠেকাতে রেড-ইয়োলো জোন

চট্টগ্রামে করোনাভাইরাসের ক্রমবর্ধমান সংক্রমণ ঠেকাতে এলাকাভিত্তিক রেড জোন ও ইয়োলো জোন ঘোষণা করছে চট্টগ্রাম মেট্রোপলিটন পুলিশ (সিএমপি)। সোমবার সকাল ১১টার দিকে নগরের জয়নগর আবাসিক  এবং চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ (চমেক) হাসপাতাল স্টাফ কোয়ার্টার এলাকাকে পুলিশ রেড জোন ঘোষণা করে ব্যানার টাঙিয়ে দেয়। এদুটি এলাকায় পুরোপুরি লকডাউন কার্যকর করা হচ্ছে। তাছাড়া নগরে এলাকাভিত্তিক রেড ও ইয়োলো জোন ঘোষণা করে লকডাউন কার্যকর করতে মাঠে নামছে পুলিশ।  

চট্টগ্রামে গত রবিবার একদিনেই মৃত্যু হয় ৫ জনের ও নতুন আক্রান্ত হয় ২৯৩ জন।

জানা যায়, আইইডিসিআর এর নির্দেশনা অনুযায়ী প্রতি এক লাখ মানুষের মধ্যে ৬০ শতাংশের বেশি করোনার সংক্রমণ হলে ওই এলাকাকে রেড জোন এবং ৩ থেকে ৫৯ জন হলে ইয়োলো জোন হিসেবে চিহ্নিত করা হয়। চকবাজার এলাকার জয়নগর আবাসিক এবং চমেক হাসপাতাল স্টাফ কোয়ার্টার এলাকায় করোনা আক্রান্তের সংখ্যা ৬০ শতাংশের বেশি। সে বিবেচনায় এ দুটি এলাকাকে রেড জোন হিসেবে চিহ্নিত করা হয়েছে। রেড জোনের বাসিন্দরা অতিজরুরি প্রয়োজন ছাড়া এলাকার বাইরে যেতে পারবেন না। নিত্যপ্রয়োজনীয় জিনিস প্রয়োজন হলে, পুলিশ তাদের সহযোগিতা করবে।

চকবাজার থানার ওসি (অপারেশন) সরওয়ার আজম বলেন, আইইডিসিআর এর নির্দেশনা মতে চকবাজারের দুটি এলকায় সংক্রমণ হওয়ায় রেড জোন ঘোষণা করা হয়েছে। রেড জোন বাস্তবায়নে পুলিশ প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ গ্রহণ করেছে।

জানা যায়, গত বছর চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশনের ১০টি এলাকাকে রেড জোন হিসেবে চিহ্নিত করা হয়। এর মধ্যে- চট্টগ্রাম বন্দরের ৩৭ ও ৩৮ নম্বর ওয়ার্ড, পতেঙ্গার ৩৯ নম্বর ওয়ার্ড, পাহাড়তলির ১০ নম্বর ওয়ার্ড, কোতোয়ালির ১৬, ২০, ২১ ও ২২ নম্বর ওয়ার্ড, খুলশীর ১৪ নম্বর ওয়ার্ড, হালিশহর এলাকার ২৬ নম্বর ওয়ার্ড রয়েছে। পরে গত বছরের ১৬ জুন পরীক্ষামূলকভাবে প্রথমবারের মতো উত্তর কাট্টলী এলাকা লকডাউন করা হয়।

সিভিল সার্জন কার্যালয় সূত্রে জানা যায়, চট্টগ্রামে গত রবিবার একদিনে করোনায় আক্রান্ত হয়ে মারা গেছেন ৫ জন এবং নতুন করে শনাক্ত হয়েছেন ২৯৩ জন। গতকাল পর্যন্ত চট্টগ্রামে মোট আক্রান্ত হন ৪৭ হাজার ২২৭ জন। এর মধ্যে মহানগরে ৩৭ হাজার ২৯৫ জন এবং উপজেলায় ৯ হাজার ৩০২ জন। ইতোমধ্যে মারা গেছেন ৪৬৪ জন। এর মধ্যে মহানগরে ৩৪৩ জন ও উপজেলায় ১২১ জন। বর্তমানে চট্টগ্রামে সরকারি-বেসরকারি ৭টি ল্যাবে নমুনা  পরীক্ষা চলছে।

চট্টগ্রামের সিভিল সার্জন ডা. সেখ ফজলে রাব্বি বলেন, চট্টগ্রামে গত রবিবার ২৪ ঘণ্টায় নতুন করে ২৯৩ জন আক্রান্ত শনাক্ত হয়েছেন। নমুনা পরীক্ষা করা হয়েছে ১ হাজার ১৩৮টি। আক্রান্তদের মধ্যে নগরে ২৪৯ জন এবং উপজেলায় ৪৪ জন। তাছাড়া গত রবিবার একদিনে ৫ জন মারা যান।

বিডি প্রতিদিন/ মজুমদার 

এই বিভাগের আরও খবর