শিরোনাম
প্রকাশ : সোমবার, ২১ নভেম্বর, ২০১৬ ০০:০০ টা
আপলোড : ২১ নভেম্বর, ২০১৬ ০৩:১০

ছায়ানটের সুফিয়া কামাল স্মরণ

সাংস্কৃতিক প্রতিবেদক

ছায়ানটের সুফিয়া কামাল স্মরণ

স্মারক বক্তৃতা, কথামালা ও তিন কবির গানের মধ্য দিয়ে সুফিয়া কামালকে স্মরণ করেছে তারই হাতে গড়া সাংস্কৃতিক প্রতিষ্ঠান ছায়ানট। তিন কবি অতুল প্রসাদ সেন, রজনীকান্ত সেন এবং দ্বিজেন্দ্রলাল রায়ের গান দিয়ে সাজানো হয় জননী সাহসিকা সুফিয়া কামাল স্মরণের এই আয়োজন।

গতকাল সন্ধ্যায় ছায়ানট মিলনায়তনে অনুষ্ঠিত এই আয়োজনে সম্মেলক ও একক কণ্ঠে শিল্পীরা সুরের মুগ্ধতায় বিমোহিত করেন অনুষ্ঠানস্থলে আগতদের।

দ্বিজেন্দ্রলাল রায়ের ‘ধন ধান্যে পুষ্পে ভরা আমাদের এই বসুন্ধরা’ গানটির সম্মেলক পরিবেশনার মধ্য দিয়েই শুরু হয় মৃত্যুবার্ষিকীর এই আয়োজন। এরপর একক কণ্ঠে সুমা রায় পরিবেশন করেন ‘আজি নূতন রতনে’, জান্নাত-ই-ফেরদৌসী পরিবেশন করেন ‘তুমি যে হে প্রাণের বধূ’, ঝুমা খন্দকার গেয়ে শোনান ‘আজি বাঁধিনু তোমার তীরে’, সত্যম কুমার দেবনাথ পরিবেশন করেন ‘পাগলা মনটারে তুই বাঁধ’, বিজন চন্দ্র মিস্ত্রী গেয়ে শোনান ‘আমায় রাখতে যদি’, ইফফাত আর দেওয়ানের কণ্ঠে গীত হয় ‘কত গানতো হলো গাওয়া’, খায়রুল আনাম শাকিল পরিবেশন করেন ‘মম মনের বিজনে’, মো. সিফায়েত উল্লাহ মুকুল গেয়ে শোনান ‘ওগো নিঠুর দরদি’,  ইত্যাদি। এ ছাড়া ছায়ানটের শিল্পীরা সম্মেলক কণ্ঠে আরও পরিবেশন করেন ‘একবার গাল ভরা মা ডাকে’ ও ‘যদি পার হতে তোর’ ইত্যাদি। সবশেষে জাতীয় সংগীত পরিবেশনের মধ্য দিয়ে সুফিয়া কামাল স্মরণের এই আয়োজনের সমাপ্তি ঘটে। এর আগে সংক্ষিপ্ত কথন পর্বে সুফিয়া কামালকে নিয়ে কথা বলেন মুক্তিযুদ্ধ জাদুঘরের ট্রাস্টি ও প্রাবন্ধিক মফিদুল হক।

মফিদুল হক বলেন, সুফিয়া কামালকে একক পরিচয়ে সীমিত করা অসম্ভব। দুর্ভাগ্য তাকে আজীবন তাড়া করেছে। নানা সংগ্রামের মধ্য দিয়ে তার পথচলা। বেগম রোকেয়ার সঙ্গে বাল্যকালেই তার পরিচয়, তার অনুপ্রেরণায় সুফিয়া কামাল সামাজিক আন্দোলনে যুক্ত হন।


আপনার মন্তব্য

এই বিভাগের আরও খবর