শিরোনাম
প্রকাশ : বৃহস্পতিবার, ১৮ এপ্রিল, ২০১৯ ০০:০০ টা
আপলোড : ১৮ এপ্রিল, ২০১৯ ০১:৫৫

বৈধভাবে স্বাধীনতা ঘোষণা করেন বঙ্গবন্ধু

নিজস্ব প্রতিবেদক

বৈধভাবে স্বাধীনতা ঘোষণা করেন বঙ্গবন্ধু

বাংলাদেশের সংবিধানের অন্যতম প্রণেতা ব্যারিস্টার আমীর-উল ইসলাম বলেছেন, বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধের গণতান্ত্রিক ভিত্তি সর্বজনবিদিত। সম্পূর্ণ বৈধ ও গণতান্ত্রিক পন্থায় বাংলাদেশের স্বাধীনতা ঘোষণা করেছিলেন বঙ্গবন্ধু। রাজধানীর জাতীয় প্রেস ক্লাবের জহুর হোসেন চৌধুরী হলে সেক্টর কমান্ডারস ফোরাম-মুক্তিযুদ্ধ ’৭১ আয়োজিত ‘মুজিবনগর সরকার, প্রেক্ষাপট ও ইতিহাস’ শীর্ষক আলোচনা সভায় তিনি এসব কথা বলেন। ব্যারিস্টার আমীর-উল ইসলাম বলেন, ১৭ এপ্রিল বাংলাদেশের প্রথম সরকারের আনুষ্ঠানিক শপথ হয়েছিল।

সম্পূর্ণ বৈধ ও গণতান্ত্রিক পন্থায় নির্বাচিত সংসদ সদস্যদের নিয়ে এ সরকার গঠিত হয়েছিল, যা পরে ‘মুজিবনগর’ নামে পরিচিত হয়েছে। সেই সরকারে এ দেশের জনপ্রতিনিধিদের সমর্থনে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান প্রথম রাষ্ট্রপতি নির্বাচিত হন। সম্পূর্ণ বৈধ ও গণতান্ত্রিক পন্থায় বাংলাদেশের স্বাধীনতা ঘোষণা করেছিলেন বঙ্গবন্ধু। সেদিন বঙ্গবন্ধুর স্বাধীনতা ঘোষণাকে আনুষ্ঠানিকভাবে সরকারি স্বীকৃতি প্রদান করা হয়। সেখানেই বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে তার অনুপস্থিতিতে মুক্তিযুদ্ধের সর্বাধিনায়ক করা হয়। ৯ মাসব্যাপী যুদ্ধের মূল প্রেরণাশক্তি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন তিনি। এই মুজিব সরকারের নেতৃত্বেই পরিচালিত হয়েছে ৯ মাসের মুক্তিযুদ্ধ।

সভায় সভাপতিত্ব করেন ফোরামের চেয়ারম্যান মেজর জেনারেল কে এম শফিউল্লাহ। আলোচনায় অংশ নেন সেক্টর কমান্ডারস ফোরামের ভাইস চেয়ারম্যান লে. কর্নেল আবু ওসমান চৌধুরী, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক উপাচার্য ড. আ আ ম স আরেফিন সিদ্দিক, সাবেক সচিব ওয়ালিউল্লাহ, মুক্তিযুদ্ধ জাদুঘরের ট্রাস্টি ডা. সারোয়ার আলী, মুহাম্মদ শফিকুর রহমান এমপি প্রমুখ। আলোচনা সভায় মূল প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন সেক্টর কমান্ডারস ফোরামের মহাসচিব হারুন হাবীব।


আপনার মন্তব্য

এই বিভাগের আরও খবর