শিরোনাম
প্রকাশ : বুধবার, ৫ ফেব্রুয়ারি, ২০২০ ০০:০০ টা
আপলোড : ৫ ফেব্রুয়ারি, ২০২০ ০১:৪৭

বঙ্গবন্ধু হত্যার মাস্টারমাইন্ডদের বিচার দাবি সংসদে

ধর্ষকদের ইনজেকশন দিয়ে যৌনক্ষমতা কমানোর পরামর্শ

নিজস্ব প্রতিবেদক

বঙ্গবন্ধু হত্যার মাস্টারমাইন্ডদের বিচার দাবি সংসদে

রাষ্ট্রপতির ভাষণের ওপর সাধারণ আলোচনায় অংশ নিয়ে সরকারি দলের সদস্যরা বঙ্গবন্ধুকে হত্যার পর যারা খুনিদের বিচার না করে পুরস্কৃত করেছে তাদেরও বিচারের দাবি জানিয়েছেন। তারা বলেন, বঙ্গবন্ধু হত্যার আত্মস্বীকৃত খুনিদের বিচার হলেও নেপথ্যের মূল মাস্টারমাইন্ডরা রয়েছে ধরাছোঁয়ার বাইরে। কিন্তু বঙ্গবন্ধু হত্যার নেপথ্যের মাস্টারমাইন্ডদের এখনো বিচারের আওতায় আনার সুযোগ রয়েছে। অনেক আমলা-বড় কর্মকর্তা বক্তব্য শেষে জয় বাংলা বলতে ভয় পান। তাই আইন করে জয় বাংলা স্লোগানকে জাতীয় স্লোগানের স্বীকৃতি দিয়ে সবাইকে জয় বাংলা বলতে বাধ্য করতে হবে।

স্পিকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরী ও ডেপুটি স্পিকার ফজলে রাব্বি মিয়ার সভাপতিত্বে সংসদে গতকাল রাষ্ট্রপতির ভাষণের  ওপর সাধারণ আলোচনায় অংশ নিয়ে তারা এসব দাবি জানান। এ সময় স্পিকারের আসনে থাকা ডেপুটি স্পিকার ফজলে রাব্বি মিয়া বলেন, সংসদে সর্বসম্মতভাবে প্রস্তাব আসা উচিত, যাতে অন্তত জাতীয় সংসদের সব সদস্য বক্তব্য শেষে জয় বাংলা বলেন। আর বঙ্গবন্ধুর নেতৃত্বে জয় বাংলা স্লোগান দিয়ে বাংলাদেশ স্বাধীন হয়েছে। তাই কে জয় বাংলা বলল, কি বলল না তাতে কিছু যায় আসে না। আলোচনায় অংশ নেন আওয়ামী লীগ সভাপতিম-লীর সদস্য সাবেক স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অ্যাডভোকেট সাহারা খাতুন, সাবেক আইনমন্ত্রী অ্যাডভোকেট আবদুল মতিন খসরু, রেলমন্ত্রী নুরুল ইসলাম সুজন, সরকারি দলের সৈয়দা জাকিয়া নূর, মোহাম্মদ এবাদুল করিম, আয়েশা ফেরদৌস, নাদিরা ইয়াসমীম জলি এবং বিরোধী দল জাতীয় পার্টির নুরুল ইসলাম তালুকদার ও আহসান আদিলুর রহমান। বঙ্গবন্ধু হত্যার নেপথ্যের মূলনায়ক এখনো ধরাছোঁয়ার বাইরে রয়েছে, বিচার হয়নি।

 সাবেক আইনমন্ত্রী মামলাজট কমাতে আরও দ্বিগুণ বিচারক নিয়োগের দাবি জানিয়ে বলেন, বিচারক সংকটের কারণে মামলাজট কমছে না। একটা মামলা ১০ বছর, ২০ বছর চলবে কেন? এর সুরাহা করা দরকার। তিনি বলেন, অনেক সচিব-আমলা এখনো জয় বাংলা বলতে ভয় ও লজ্জা পান। এটা হতে পারে না। রাষ্ট্রপতি থেকে পিওন পর্যন্ত সবার বক্তব্য শেষ জয় বাংলা বলতে হবে, এটা জাতীয় স্লোগান হওয়া উচিত।

বিএনপি-জামায়াত জোট রেলকে ধ্বংস করেছে দাবি করে রেলমন্ত্রী নুরুল ইসলাম সুজন বলেন, রেলওয়েতে ১৯৭৩-৭৪ সালে জনবল ছিল ৭০ হাজারের মতো। সেই জনবল কমে এখন ২৭ হাজারে পৌঁছেছে। বিএনপি ক্ষমতায় এসে এক দিনে ১০ হাজার কর্মী ছাঁটাই করে। তিনি আরও বলেন, বর্তমানে রেল চলে ৬০ কিলোমিটার বেগে। রেললাইন ও পুরনো ব্রিজগুলো সংস্কার করে ট্রেনের স্পিড ১০০ থেকে ১৩০ কিলোমিটারে উন্নীত করার পরিকল্পনা নেওয়া হয়েছে। এ ছাড়া ঢাকা-যশোর, নারায়ণগঞ্জ-জয়দেবপুর ও ঢাকা-কক্সবাজার রুটে ইলেকট্রিক ট্রেন পরিচালনারও পরিকল্পনা সরকারের রয়েছে। এ ছাড়া আগামী জুন থেকে ঢাকা-শিলিগুড়ি পর্যন্ত ট্রেন চলবে।

জাতীয় পার্টির নুরুল ইসলাম তালুকদার বলেন, দেশে ধর্ষণ বেড়েছে। শাস্তি বিলম্বিত হয়, তাই ধর্ষকদের শাস্তি হিসেবে ইনজেকশন দিয়ে যৌনক্ষমতা কমানো যেতে পারে। দেশে ব্যাপক উন্নয়ন হয়েছে। তবে ঘুষ ছাড়া সরকারি অফিসগুলোয় কোনো কিছু চলে না, এটা বন্ধ করতে হবে।


আপনার মন্তব্য

এই বিভাগের আরও খবর