শিরোনাম
প্রকাশ : বুধবার, ১৭ ফেব্রুয়ারি, ২০২১ ০০:০০ টা
আপলোড : ১৭ ফেব্রুয়ারি, ২০২১ ০১:৩২

চার সংগঠনের সংবাদ সম্মেলন

জিয়ারটা নিলে অন্যদের খেতাবও কেড়ে নেওয়ার সুযোগ হতে পারে

নিজস্ব প্রতিবেদক

জিয়াউর রহমান শুধু মুক্তিযোদ্ধাই নন, তিনি সেক্টর কমান্ডার ছিলেন। স্বাধীনতার পর রাষ্ট্রই তাঁকে এ খেতাব দিয়েছিল। ৫০ বছর পর তাঁর রাজনৈতিক ভূমিকার কথা বলে ‘বীরউত্তম’ খেতাব বাতিল করলে তা আগামীতে আওয়ামী লীগ নেতাসহ প্রত্যেকেরই খেতাব কেড়ে নেওয়ার সুযোগ তৈরি করতে পারে। এ জন্য এ ধরনের সংকীর্ণ মানসিকতা থেকে সরকারকে সরে আসার আহ্বান জানিয়েছে চারটি সংগঠন। গতকাল জাতীয় প্রেস ক্লাবে এক সংবাদ সম্মেলনে এ আহ্বান জানানো হয়। বাংলাদেশের স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী একসঙ্গে পালনের ঘোষণা দিতে এ সংবাদ সম্মেলনের আয়োজন করে সংগঠনগুলো। এ সময় উপস্থিত ছিলেন গণসংহতি আন্দোলনের প্রধান সমন্বয়কারী জোনায়েদ সাকি, ভাসানী অনুসারী পরিষদের মহাসচিব শেখ রফিকুল ইসলাম বাবলু, ছাত্র-যুব ও শ্রমিক অধিকার পরিষদের সমন্বয়ক ও ডাকসুর সাবেক ভিপি নুরুল হক নূর এবং রাষ্ট্রচিন্তার সদস্য অ্যাডভোকেট হাসনাত কাইয়ুম।

ভাসানী অনুসারী পরিষদের প্রেসিডিয়াম মেম্বার ও মুক্তিযোদ্ধা সংসদের সাবেক মহাসচিব নইম জাহাঙ্গীর লিখিত বক্তব্য উপস্থাপন করেন। সুবর্ণজয়ন্তী উদ্যাপন কর্মসূচির মধ্যে রয়েছে- ১ মার্চ জাতীয় প্রেস ক্লাবে মুক্তিযোদ্ধা সম্মাননা, ১২ মার্চ কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে সুবর্ণজয়ন্তী সমাবেশ, ২৬ মার্চ স্ব-স্ব সংগঠনের উদ্যোগে স্বাধীনতা দিবস পালন এবং ১০ এপ্রিল স্বাধীনতার ঘোষণাপত্র দিবস পালন। এ ছাড়া দেশব্যাপী বছরজুড়ে বিভিন্ন কর্মসূচি নেওয়া হবে বলে জানানো হয়।

জোনায়েদ সাকি বলেন, রাষ্ট্র যাঁকে স্বীকৃতি দিয়েছে তাঁর পরবর্তী রাজনৈতিক ভূমিকার কথা বলে খেতাব কেড়ে নেওয়ার চেয়ে আর ভয়াবহ কিছু হতে পারে না। এটি বাস্তবায়ন হলে পরবর্তীতে প্রত্যেকেরই খেতাব কেড়ে নেওয়ার সুযোগ তৈরি হবে। আওয়ামী লীগ পরবর্তীতে ক্ষমতায় না থাকলে তাদের নেতাদেরও খেতাব কেড়ে নেওয়া হতে পারে। তিনি বলেন, রাষ্ট্রে বিভাজন তৈরি করতেই দেশি-বিদেশি ষড়যন্ত্রে এটা করা হচ্ছে। এটা আমরা কখনো সমর্থন করতে পারি না।

নুরুল হক নূর বলেন, জিয়াউর রহমান শুধু মুক্তিযোদ্ধাই নন, তিনি সেক্টর কমান্ডার ছিলেন। বীরউত্তম এমন একটি খেতাব যা যাকে তাকে দেওয়া হয়নি। তাঁর খেতাব বাতিলের এখতিয়ার জামুকার নেই। তিনি বলেন, জিয়াউর রহমানের খেতাব নিয়ে টানাটানি নোংরামি ছাড়া কিছুই নয়। মানুষ এ ঘটনায় সরকারের প্রতি ধিক্কার জানাচ্ছে। যারা তাঁর খেতাব নিয়ে প্রশ্ন তুলেছেন তাদের মুক্তিযোদ্ধা সনদ নিয়েই প্রশ্ন রয়েছে।

এই বিভাগের আরও খবর