শিরোনাম
প্রকাশ : শনিবার, ১৩ মার্চ, ২০২১ ০০:০০ টা
আপলোড : ১২ মার্চ, ২০২১ ২৩:৩৩

ভোগান্তিতে পিডিবির ৩৫ হাজার গ্রাহক

ফারুক আল শারাহ, লাকসাম

ভোগান্তিতে পিডিবির ৩৫ হাজার গ্রাহক

কুমিল্লা-নোয়াখালী আঞ্চলিক মহাসড়ক চার লেনে উন্নীতকরণ কাজের জন্য বিদ্যুতের খুঁটি স্থানান্তরের নামে লাকসামে প্রতি সপ্তাহের ‘শুক্রবার’ সকাল থেকে সন্ধ্যা পর্যন্ত বাংলাদেশ বিদ্যুৎ উন্নয়ন বোর্ডের (পিডিবি) বিদ্যুৎ সরবরাহ বন্ধ রাখা হচ্ছে। এতে ৩৫ হাজার সোর্স লাইন গ্রাহক চরম ভোগান্তিতে পড়ছেন। বিগত তিন মাস থেকে এ অবস্থা চলে আসলেও কবে নাগাদ পরিস্থিতি স্বাভাবিক হবে তা জানেন না গ্রাহকরা। লাকসাম বিদ্যুৎ উন্নয়ন বোর্ড (পিডিবি) কর্তৃপক্ষ সূত্রে জানা যায়, কুমিল্লা-নোয়াখালী আঞ্চলিক মহাসড়ককে চার লেন উন্নীতকরণের কাজ চলছে। এতে কুমিল্লা থেকে লাকসাম পর্যন্ত ৩৩ কেভি লাইনের ২৮ কিলোমিটার এলাকায় যেখানে সড়কের পাশে খুঁটি রয়েছে তা স্থানান্তর করতে হচ্ছে। এজন্য সপ্তাহের ছুটির দিন ‘শুক্রবার’ বিদ্যুৎ সরবরাহ বন্ধ রাখা হচ্ছে। গত কয়েক মাসের প্রতি শুক্রবারের ধারাবাহিকতায় গতকাল শুক্রবারও লাকসামে বিদ্যুৎ সরবরাহ বন্ধ ছিল।  পিডিবি কর্তৃপক্ষ সপ্তাহের বৃহস্পতিবার বিকালে মাইকিং করে ও ফেসবুক পেজে ‘শুক্রবার’ সকাল ৮টা থেকে বিকাল ৫টা পর্যন্ত বিদ্যুৎ সরবরাহ বন্ধ রাখার ঘোষণা দিয়ে আসছে। অনেক সময় সন্ধ্যা গড়িয়ে গেলেও বিদ্যুতের দেখা মেলে না। গ্রাহকদের অভিযোগ, ২০২০ সালের ডিসেম্বর থেকে প্রতি শুক্রবার দিনভর বিদ্যুৎ সরবরাহ বন্ধ রাখা হচ্ছে। সড়ক উন্নয়নের নামে প্রতি শুক্রবার সকাল থেকে সন্ধ্যা পর্যন্ত বিদ্যুৎ সরবরাহ বন্ধ রাখা যৌক্তিক সিদ্ধান্ত হতে পারে না। পরিস্থিতি দেখে মনে হচ্ছে সরকারি প্রতিষ্ঠানের মতো ‘শুক্রবার’ যেন বিদ্যুতেরও সাপ্তাহিক ছুটি! এটা যেন নিয়মে পরিণত হয়েছে। লাকসাম ক্লিনিক মালিক সমিতির সাধারণ সম্পাদক আলহাজ ফিরোজ মাহমুদ জানান, লাকসাম একটি ব্যবসায়িক কেন্দ্র। এখানে ছোট ও মাঝারি শিল্প কারখানার পাশাপাশি বেশ কয়েকটি ক্লিনিক, ব্যাংক-বীমা, শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান ও হাজার হাজার ব্যবসা প্রতিষ্ঠান রয়েছে। বেসরকারি ক্লিনিকগুলোর জন্য প্রতি সপ্তাহের শুক্রবার খুব গুরুত্বপূর্ণ। দিনটি সরকারি ছুটি হওয়ায় রাজধানী ঢাকাসহ দেশের গুরুত্বপূর্ণ স্থান থেকে বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকরা এখানে এসে রোগীদের চিকিৎসা দিয়ে থাকেন। দিনভর বিদ্যুৎ না থাকায় ক্লিনিকগুলোয় যথা সময়ে রোগীদের পরীক্ষা-নিরীক্ষা হয় না। এতে চিকিৎসক ও রোগীরা অস্বস্তিবোধ করেন।

 বিদ্যুৎ সরবরাহ সমস্যার কারণে ক্লিনিকের পাশাপাশি শিল্পকারখানা, ব্যবসা প্রতিষ্ঠান ও বাসাবাড়ির মালিক ও ভাড়াটিয়াদের চরম দুর্ভোগ পোহাতে হয়।

গ্রাহকদের দুর্ভোগ লাঘবে দ্রুত কার্যকর পদক্ষেপ নেওয়ার দাবি জানান তিনি। বাংলাদেশ বিদ্যুৎ উন্নয়ন বোর্ড (পিডিবি) লাকসাম বিক্রয় ও বিতরণ কেন্দ্রের নির্বাহী প্রকৌশলী ইকরাম হাসান চৌধুরী বাংলাদেশ প্রতিদিনকে বলেন, কুমিল্লা থেকে লাকসাম পর্যন্ত ২৮ কিলোমিটার এলাকাজুড়ে চার লেন সড়কের পাশে বিদ্যুতের খুঁটি সরানোর জন্য শুক্রবার বিদ্যুৎ সরবরাহ বন্ধ রাখতে হচ্ছে। চলমান কার্যক্রম প্রায় সম্পন্নের পথে। বিদ্যুৎ সরবরাহ পরিস্থিতি দ্রুত স্বাভাবিক হবে বলে তিনি আশা প্রকাশ করেন।