শিরোনাম
শনিবার, ২৩ অক্টোবর, ২০২১ ০০:০০ টা

সামাজিক বনায়নের জমি বিক্রির অভিযোগ

চকরিয়া (কক্সবাজার) প্রতিনিধি

চকরিয়া উপজেলার সামাজিক বনায়নের জমি বিক্রির অভিযোগ উঠেছে। স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যানের সহযোগিতায় মানিকপুর বন বিভাগের কিছু অসাধু কর্মকর্তা-কর্মচারী এ অনিয়মের সঙ্গে জড়িত বলে জানিয়েছেন স্থানীয়রা।

এ বিষয়ে ইউপি চেয়ারম্যান আজিমুল হক আজিম বলেন, ‘আমি বনায়নের প্লট বিক্রির সঙ্গে জড়িত নই। আমার নাম ব্যবহার করেন কেউ বনায়নের প্লট বিক্রি করে থাকতে পারে।’

ফঁসিয়াখালী রেঞ্জের দায়িত্বে থাকা সহকারী বন সংরক্ষক আশিকুর রহমান বলেন, সামাজিক বনায়নের জমি প্লট আকারে বিক্রি বা বাড়ি তৈরির নিয়ম নেই। কেউ বাড়িঘর নির্মাণ করলে তা উচ্ছেদ করা হবে। এ ঘটনায় বন বিভাগের কোনো কর্মী জড়িত থাকলে তার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।’

জানা যায়, কক্সবাজার উত্তর বনবিভাগের অধীনে ফাঁসিয়াখালী রেঞ্জের মানিকপুর বনবিটে ২০১৩-২০১৪ সালের বাফার জোনের ২৫ একর বনভূমি ৬৩ জন উপকারভোগীর মধ্যে বিতরণ করা হয়। এ সব ভূমিতে উপকারভোগীরা সরকারি নির্দেশনা মেনে বনজ ও ফলদ গাছ রোপণ করেন। সুরাজপুর-মানিকপুর ইউপি চেয়ারম্যান কিছু উপকারাভোগীকে ম্যানেজ করে প্লট আকারে এ ভূমি বিক্রি করছে বলে জানান স্থানীয়রা। এতে উপকারভোগীদের পাশাপাশি বনবিভাগের ভিশন বাস্তবায়ন বাধাগ্রস্ত হচ্ছে। বেহাত হচ্ছে বনবিভাগের জমি। সুরাজপুরের ভিলেজার পাড়ার বাসিন্দা মাহবুব আলম বলেন, চেয়ারম্যান বনবিভাগের জমি কিনতে আগ্রহ বাড়াতে সেখানে খুঁটি পুঁতে বিদ্যুৎ সংযোগ দিয়ে রেখেছেন। 

সর্বশেষ খবর