শিরোনাম
প্রকাশ : ১৪ ডিসেম্বর, ২০১৯ ১৯:০০

'বুদ্ধিজীবীদের হত্যার বিচারের মাধ্যমে দেশে আইনের শাসন প্রতিষ্ঠা হয়েছে'

নিজস্ব প্রতিবেদক, বগুড়া:

'বুদ্ধিজীবীদের হত্যার বিচারের মাধ্যমে দেশে আইনের শাসন প্রতিষ্ঠা হয়েছে'

বগুড়া জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি মজিবর রহমান মজনু বলেছেন, স্বাধীনতার দ্বারপ্রান্তে এসে পাকিস্তানী হানাদার বাহিনীর সহযোগিতায় আল-বদর, আল-শামস পরিকল্পিতভাবে বুদ্ধিজীবীদের হত্যা করে। তাদের মূল টার্গেট ছিলো বাঙালি জাতিকে মেধাশূন্য করা। যার মাশুল বাঙালি জাতিকে এখনও দিতে হচ্ছে। স্বাধীনতার ৪২ বছর পর্যন্ত আমাদেরকে অপেক্ষা করতে হয়েছে শহিদ বুদ্ধিজীবিদের বিচারের জন্য।

শনিবার সকাল ৮টায় টেম্পল রোডস্থ দলীয় কার্যালয়ে বগুড়া জেলা আওয়ামী লীগের উদ্যোগে শহিদ বুদ্ধিজীবী দিবসের আলোচনা সভায় তিনি এসব কথা বলেন। সভায় আরো বক্তব্য রাখেন- জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক রাগেবুল আহসান রিপু, বগুড়া জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ডা. মকবুল হোসেন, টি জামান নিকেতা, তোফাজ্জল হোসেন দুলু, আবুল কালাম আজাদ, এড. মকবুল হোসেন মুকুল, এড. আমানুল্লাহ, শাহ আব্দুল খালেক, মঞ্জুরুল আলম মোহন, সাগর কুমার রায়, আসাদুর রহমান দুলু, প্রদীপ কুমার রায়, এড. তবিবর রহমান তবি, এড. জাকির হোসেন নবাব, সুলতান মাহমুদ খান রনি, শেরিন আনোয়ার জর্জিস, এড. শফিকুল আলম আক্কাস, আনিছুজ্জামান মিন্টু, শাহাদৎ আলম ঝুনু, এসএম রুহুল মোমিন তারিক, এসএম শাজাহান, এবিএম জহুরুল হক বুলবুল, মাশরাফী হিরো, আলরাজী জুয়েল, তপন চক্রবর্তী, এড. মন্তেজার রহমান মন্টু, রফি নেওয়াজ খান রবিন, আবু সুফিয়ান সফিক, ওবায়দুল হাসান ববি, অধ্যক্ষ খাদিজা খাতুন শেফালী, আলমগীর বাদশা, আব্দুস সালাম, শুভাশীষ পোদ্দার লিটন, আমিনুল ইসলাম ডাবলু, এড. লাইজিন আরা লিনা, ডালিয়া নাসরিন রিক্তা, মঞ্জুরুল হক মঞ্জু, নাইমুর রাজ্জাক তিতাস, অসীম কুমার রায়, রাশেকুজ্জামান রাজন প্রমুখ। 

এর আগে সকাল সাড়ে ৭টায় জাতীয়, দলীয় ও কালো পতাকা উত্তোলন এবং সকাল পৌনে ৮টায় বঙ্গবন্ধু ও জাতীয় চার নেতার প্রতিকৃতিতে পুষ্পমাল্য অর্পণ করা হয়।


বিডি প্রতিদিন/হিমেল


আপনার মন্তব্য