শিরোনাম
প্রকাশ : ২৭ ফেব্রুয়ারি, ২০২০ ২২:৩০

প্রতিপক্ষকে ফাঁসাতে গিয়ে ফেঁসে গেলেন অভিযোগকারী

নিজস্ব প্রতিবেদক, বরিশাল:

প্রতিপক্ষকে ফাঁসাতে গিয়ে ফেঁসে গেলেন অভিযোগকারী

বরিশালে দেড়লাখ টাকা ছিনতাইয়ের মিথ্যে অভিযোগে প্রতিপক্ষকে ফাঁসাতে থানায় মামলা করতে গিয়ে ফেঁসে গেছেন অভিযোগকারী নিজেই। তবে ঘটনার রহস্য উম্মোচন করতে গিয়ে ছিনতাইয়ের অভিযোগ মিথ্যে প্রমাণিত হলেও মারামারি সংঘটিত হওয়ার বিষয়টি সামনে আসায় থানা পুলিশ উভয় পক্ষের বিরুদ্ধেই আইনগত ব্যবস্থা নেয়ার কথা বলেছে। 

বৃহষ্পতিবার দুপুরে বরিশাল নগরীর লুৎফর রহমান সড়কে মেট্রোপলিটন পুলিশের উপ-কমিশনার কার্যালয়ে এক প্রেস ব্রিফিংয়ে উপ-কমিশনার (উত্তর) মো. খাইরুল আলম বলেন, বিমান বন্দর থানাধীন হরিনাফুলিয়ার নতুন হাটখোলা এলাকার হারুন মোল্লার ছেলে গরু ব্যবসায়ী পান্নু মোল্লা একটি ছিনতাইয়ের অভিযোগ নিয়ে আসে।
লিখিত অভিযোগে তিনি দাবী করেন, বুধবার সকাল সাড়ে ৮টার দিকে সে গরু কেনার জন্য বাসা থেকে বের হয়ে সোনামিয়ার পোল সংলগ্ন আউয়াল সিকদারের বাড়ি যাচ্ছিলেন। পথিমধ্যে খান বাড়ির পোল এলাকায় পৌঁছালে ৩ ব্যক্তি মোটর সাইকেলযোগে এসে তার গতিরোধ করে এবং তাকে কিল-ঘুষি মারে। পরে একজন পকেট থেকে চাকু বের করে ভয় দেখিয়ে সাথে থাকা গরু কেনার ১ লাখ ৫৫ হাজার টাকা ছিনিয়ে নেয়। ছিনতাইয় কারীদের মধ্যে মো. মাসুম (২৫) নামে একজনকে চিনতে পারে সে। মাসুম বিমান বন্দর থানাধীন কটুরাকাঠি এলাকার বাদল খানের ছেলে এবং পেশায় মুদি দোকানী। 

উপ-কমিশনার আরো বলেন, অভিযোগের বিষয়টি যাচাই-বাছাই করতে নেমে কথিত ছিনতাইকারী মাসুমকে আটক করা হয়। কিন্তু আটকের পর মাসুম দাবী করে তার খালাতো ভাই শাহাদাত অটোরিক্সা চালিয়ে জীবিকা নির্বাহ করে। প্রায় ১৫ দিন পূর্বে শাহাদাতের অটোরিক্সায় অভিযোগকারী পান্নু সোনামিয়ার পোল এলাকা থেকে নতুনহাটে যান। সে সময় ভাড়া ৮ টাকা চাইলে পান্নু মোল্লা ৩ টাকা বেশী ভাড়া চাওয়া হয় বলে অভিযোগ তোলে। অটোরিক্সা চালক-শ্রমিক সমিতি নতুন ভাড়া নির্ধারন করেছে জানালেও সে ৮ টাকা ভাড়া দিতে অস্বীকার করে। এ নিয়ে কথাকাটাকাটি হলে চালক শাহাদাতকে মারধর করে পান্নু। শাহাদাত ওই ঘটনা তার খালাতো ভাই মুদি ব্যবসায়ী মো. মাসুমকে জানায়। এরপর মাসুম ও শাহাদাত মিলে বিষয়টি জিজ্ঞাসাবাদ করার জন্য পান্নুর কাছে গেলে উল্টো পান্নু লোকজন নিয়ে তাদের উভয়কে মারধর করে। এ ঘটনায় ক্ষুব্ধ হয়ে মাসুম ব্যবসায়ী পান্নুকে মারধরের পরিকল্পনা করে। সেই পরিকল্পনা অনুযায়ী গত বুধবার সকালে নিজ এলাকায় পান্নুকে পেয়ে মাসুম তার সহযোগীদের নিয়ে মারধর করে। তবে ছুরি দিয়ে ভয় দেখানো কিংবা টাকা পয়সা ছিনতাইয়ের কোন ঘটনা ঘটেনি।

মাসুমের দেয়া তথ্যানুযায়ী অভিযোগকারী পান্নুকে জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়। পাশাপাশি টাকার উৎস (উত্তোলিত ব্যাংক বা ব্যক্তির তথ্য) সম্পর্কে তথ্য চাওয়া হয়। এর পরপরই পান্নু তার দেয়া অভিযোগে উল্লেখকৃত ছিনতাইয়ের ঘটনা মিথ্যে বলে স্বীকার করে। মারধরের প্রতিশোধ নিতে অন্য মানুষের কথায় তিনি মিথ্যে ছিনতাইয়ের অভিযোগ নিয়ে থানায় যাওয়ার কথা স্বীকার করেন। 

উপ-কমিশনার বলেন, প্রাথমিক তদন্তে মারামারি সংঘঠিত হওয়া এবং বাদীর মিথ্যে ছিনতাইয়ের অভিযোগ দেয়ার বিষয়টি প্রমানিত হয়েছে। তাই মেট্রো অধ্যাদেশ অনুযায়ী পুলিশই উভয়ের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহন করবে। 

বিডি প্রতিদিন/মজুমদার


আপনার মন্তব্য