শিরোনাম
প্রকাশ : ১০ এপ্রিল, ২০২০ ২১:০০
আপডেট : ১০ এপ্রিল, ২০২০ ২১:০৬

করোনা আক্রান্ত ব্যক্তির জানাজায় অংশ নেয়ায় মুন্সীগঞ্জে ১০ বাড়ি লকডাউন

মুন্সীগঞ্জ প্রতিনিধি

করোনা আক্রান্ত ব্যক্তির জানাজায় অংশ নেয়ায় মুন্সীগঞ্জে ১০ বাড়ি লকডাউন

করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে মারা যাওয়া ব্যক্তির জানাজায় অংশ নেয়ায় মুন্সীগঞ্জের সিরাজদীখান উপজেলার পশ্চিম শিয়ালদি গ্রামের ১০টি বাড়ি লকডাউন করেছে প্রশাসন। শুক্রবার দুপুরে ১২টার দিকে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আশফিকুন নাহার উপস্থিত থেকে এসব ঝুঁকিপূর্ণ বাড়িগুলো লকডাউন ঘোষণা করেন।

তিনি জানান, নিহতের দাফন সম্পন্ন করতে যাওয়া গোর খোড়া ব্যক্তি ও নিহতের ভাইসহ নিকট আত্মীয়দের বাড়িগুলো লকডাউন করে লাল নিশানা টানিয়ে দেওয়া হয়েছে। এছাড়াও বাড়িঘরগুলোতে কাউকে প্রবেশ ও বাড়ি থেকে কেউ যাতে বাইরে বের হতে না পারে সে জন্য ব্যবস্থা নেয়া হয়েছে। 

এ বিষয়ে উপজেলার ইছাপুরা ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আব্দুল মতিন হাওলাদার জানান, বৃহস্পতিবার সকাল ১০টার দিকে উপজেলার ইছাপুরা এলাকার আল জামিয়াতুল ইসলামিয়া মুস্তফাগঞ্জ মাদ্রাসা প্রাঙ্গণে করোনা আক্রান্ত ব্যক্তি মো. আব্দুল্লাহ আল ফারুকীর জানাজা অনুষ্ঠিত হয়। জানাজায় সহস্রাধিক মুসল্লি অংশ নেন। পরে নিজ গ্রামের বেপারী বাড়ির কবরস্থানে তাকে দাফন করা হয়। ফারুকি ওই  মাদ্রাসার মুহতামিম ছিলেন। সে পশ্চিম শিয়ালদি গ্রামের মমতাজ উদ্দিন মুন্সীর ছেলে। 

ইউপি চেয়ারম্যান আরও জানান, বুধবার গুরুতর অসুস্থ হলে ঢাকার গেন্ডারিয়ার বাড়ি থেকে আব্দুল্লাহ আল ফারুকীকে প্রথমে ঢাকার একটি বেসরকারি হাসপাতালে নেওয়া হয়। ওই দিনই তাকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেওয়া হয়। এ সময় সেখানকার কর্তব্যরত চিকিৎসকরা করোনা উপসর্গ দেখতে পেলে তার নমুনা সংগ্রহ করেন। পরে সন্ধ্যা ৬টার দিকে তার শারীরিক অবস্থার অবনতি হলে তাকে রাজধানীর কুর্মিটোলা হাসপাতালে পাঠায় ঢামেকের চিকিৎসকরা। 

এদিকে, কুর্মিটোলা হাসপাতালে নেওয়ার পরপরই সেখানকার চিকিৎসকরা তাকে মৃত ঘোষণা করেন। এ সময় তার স্বজনরা আব্দুল্লাহর করোনা আক্রান্ত সন্দেহে নমুনা সংগ্রহ করার তথ্য গোপন করে লাশ নিয়ে চলে আসেন। পরবর্তীতে বৃহস্পতিবার সকালে নিজ গ্রামের বাড়িতে লাশ দাফন করেন। দাফনের বেশ কয়েক ঘণ্টা পর রাতের দিকে জানা যায় তিনি করোনায় আক্রান্ত ছিলেন। এ খবর পেয়ে উপজেলা প্রশাসন শুক্রবার দুপুরে নিহতের বাড়িসহ ১০বাড়ি লকডাউন করেছেন।


বিডি প্রতিদিন/ ওয়াসিফ


আপনার মন্তব্য