শিরোনাম
প্রকাশ : ৭ আগস্ট, ২০২০ ১২:১৫
আপডেট : ৭ আগস্ট, ২০২০ ১২:১৯

দৌলতদিয়ায় নদী পারাপারের অপেক্ষায় ৫ শতাধিক যানবাহন, ভোগান্তিতে যাত্রীরা

রাজবাড়ী প্রতিনিধি

দৌলতদিয়ায় নদী পারাপারের অপেক্ষায় ৫ শতাধিক যানবাহন, ভোগান্তিতে যাত্রীরা

রাজবাড়ীর দৌলতদিয়ায় ঢাকা-খুলনা মহাসড়কে পাঁচ শতাধিক যানবাহন নদী পারাপারের অপেক্ষায় রয়েছে। ঈদের ছুটি শেষে মানুষজন কর্মস্থলে ফিরতে শুরু করায় এমন যানজট তৈরি হয়েছে।

আজ শুক্রবার সকালে সরেজমিনে দৌলতদিয়া জিরো পয়েন্টে দেখা যায়, নদী পারের অপেক্ষায় রয়েছে শত শত যানবাহন। তবে ব্যক্তিগত ছোট গাড়িগুলো সরাসরি নদীতে ফেরিতে উঠে পার হচ্ছে।

দৌলতদিয়া-কুষ্টিয়া আঞ্চলিক মহাসড়কে গোয়ালন্দ মোড় হতে রাজবাড়ীর দিকে প্রায় সাড়ে তিন শতাধিক ট্রাক ও কাভার্ডভ্যান নদী পারের জন্য অপেক্ষা করছে। ঘণ্টার পর ঘন্টা সড়কে অবস্থান করায় চরম ভোগান্তিতে পড়েছে চালক ও শ্রমিকরা।

অপরদিকে ঢাকা-খুলনা মহাসড়কের দৌলতদিয়া জিরো পয়েন্ট থেকে দেড় কিলোমিটার পর্যন্ত প্রায় দেড় শতাধিক যাত্রীবাহী বাস নদী পারাপারের অপেক্ষায় রয়েছে। প্রচণ্ড গরমের মধ্যে দীর্ঘ সময় সড়কে অবস্থান করায় বাসে থাকা যাত্রীদের চরম ভোগান্তি পোহাতে হচ্ছে।

ঘাটে অতিরিক্ত যানবাহনের চাপের কারণ হিসেবে সংশ্লিষ্টরা বলছেন, কাঁঠালবাড়ী-শিমুলিয়া নৌরুটের ফেরি চলাচল এবং রাজবাড়ীর পদ্মা নদীতে তীব্র স্রোতের কারণে ফেরি চলাচল ব্যাহত হচ্ছে। এছাড়া ঈদের ছুটির পর প্রথম সাপ্তাহিক ছুটি থাকার কারণে যাত্রী ও যানবাহনের চাপ বাড়ছে।

দেশের বিভিন্ন স্থান থেকে আসা যাত্রী ও চালকেরা জানান, ঘাটের ব্যবস্থাপনা ভালো থাকলেও ফেরি স্বল্পতার কারণে তাদের ঘণ্টার পর ঘণ্টা অপেক্ষা করতে হচ্ছে। এতে নারী ও শিশুরা বেশি ভোগান্তিতে পড়েছে। 

যাত্রীরা ক্ষোভ প্রকাশ করে বলেন, ঈদের পরে শুক্রবার ঘাটে ভিড় থাকবে, এটা মাথায় নিয়ে দৌলতদিয়া-পাটুরিয়া নৌরুটে ফেরি বৃদ্ধি না করে সেটি কমিয়ে আনা হয়েছে। যে কারণে তাদের ভোগান্তি বৃদ্ধি পেয়েছে।

দৌলতদিয়া ফেরিঘাটের ব্যবস্থাপক মো. আবু আব্দুল্লাহ রনি বলেন, প্রাকৃতিক দুর্যোগের কারণে শিমুলিয়া-কাঁঠালবাড়ী নৌরুটে ফেরি চলাচল ব্যাহত হবার কারণে যাত্রী ও পরিবহনের চাপ বাড়ছে। এতে দৌলতদিয়া প্রান্তে গাড়ির দীর্ঘ লাইন তৈরি হয়েছে। তবে অগ্রাধিকার ভিত্তিতে আমরা যাত্রীবাহী পরিবহন পার করছি।

রাজবাড়ীর পুলিশ সুপার মো. মিজানুর রহমান জানান, যাত্রীদের যানমাল নিরাপত্তার জন্য ঘাটে অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে। ঈদ শেষে ঢাকা-খুলনা মহাসড়কে যানজটে যেন যাতায়াত বন্ধ না হয়ে যায়, পুলিশ সেই লক্ষ্যে কাজ করছে।

বিডি প্রতিদিন/এমআই


আপনার মন্তব্য

এই বিভাগের আরও খবর