শিরোনাম
প্রকাশ : ১১ আগস্ট, ২০২০ ১২:১১
আপডেট : ১১ আগস্ট, ২০২০ ১৬:০৬

ঘরে ফেরে বক, বরাদ্দ ফ্রিজের পুঁটি মাছ

অনলাইন ডেস্ক

ঘরে ফেরে বক, বরাদ্দ ফ্রিজের পুঁটি মাছ
ফাইল ছবি

বকও পোষ মানে! বিশ্বাস হচ্ছে না? একটি বক নির্ভয়ে ঘুরে বেড়াচ্ছে ঘরে। রান্নাঘরে সিঙ্ক বা খাবার টেবিলে বাটিতে রাখা পুঁটি মাছ খেয়ে নিচ্ছে। বাড়ির বড়-ছোট সকলের হাত থেকে মাছ খাচ্ছে সেটি। কোলে বসছে। ঘাড়ে উঠছে। খেলা করছে তাদের সঙ্গে। মাছ খাওয়া শেষে উড়ে যাচ্ছে গাছে।

ঘটনাটি বাহ্মণবাড়িয়ার আখাউড়া উপজেলার প্রয়াত মুক্তিযোদ্ধা কামাখ্যারঞ্জন ঘোষের বাড়ির। এক ভিডিওতে দেখা গেছে এমন তথ্য। বাড়িটির চারটি আম আর দু’টি জামগাছে প্রায় চল্লিশ জোড়া বকের বাসা। নিরাপদ বলেই এই পাখিরা প্রায় দেড়যুগ ধরে এই বাড়ির গাছে বাসা বানায়।

এ বিষয়ে সাংবাদিক দুলাল ঘোষ জানান, গত ২৭ জুন বাড়ির উঠোনে বকছানাটি ছটফট করছিল। ছেলে দ্রুনাঞ্জন ও ভাইপো প্রতীক্ষা তুলে এনে ফ্রিজের বরফ দিয়ে তার সেবা করে। পরে গাছে তুলে দিতে চাইছিল। কিন্তু পাখিটির সেই শক্তি ছিল না। তার পর থেকেই বাড়ির একটি ঘরে তাকে আশ্রয় দেওয়া হয়। 

এখন করোনাভাইরাসের মধ্যেই ঝুঁকি নিয়েই সেটির জন্য মাছ এনে দেওয়া হচ্ছে। বকটি প্রথম দিকে নিজে খেতে পারত না। খাইয়ে দেওয়া হত। সপ্তাহখানেক পর থেকে নিজেই খেতে শুরু করে এবং বাড়ির মধ্যে ঘরেবাইরে ঘুরে বেড়াতে শুরু করে। এরপর গাছে তুলে দেওয়া হলেও বকটি ঘরে ফিরে আসত। এক দিন বকটি উড়ে গাছে ওঠে। সেই দিনটি ছিল ওই বাড়িতে উৎসব। তবে সকাল-দুপুর-বিকেলে, নিয়ম করে বকটি ঘরে ফিরে আসতে থাকে। পুঁটি মাছ খেয়ে উড়ে যায়।

দুলাল ঘোষ আরও জানান, দিন দুয়েক আগে বকটি সঙ্গী পেয়েছে। বাড়ির অদুরে তিতাস নদী আর নদী এলাকার বিলে যায়। তবে দিনে কোনো এক সময় ফিরে আসে। ফ্রিজে থাকা পুঁটি জলে ভিজিয়ে উপযোগী করে দিলে খেয়ে উড়ে যায়। বকটি উড়তে শিখলেও এক মাসের আশ্রয়, ঘরটিকে ভুলছে না। তার কথায়, ‘পাখিরা অকৃতজ্ঞ না।’

বিডি প্রতিদিন/এজে


আপনার মন্তব্য

এই বিভাগের আরও খবর