শিরোনাম
প্রকাশ : ২২ সেপ্টেম্বর, ২০২০ ২০:১৫

বাটাজোর-শরিকল সড়ক বেহাল, দুর্ভোগ চরমে

রাহাত খান, বরিশাল:

বাটাজোর-শরিকল সড়ক বেহাল, দুর্ভোগ চরমে

বরিশালের গৌরনদী উপজেলার গুরুত্বপূর্ণ বাটাজোর-শরিকল পাকা সড়কটি এখন কাদামাটির সড়কে পরিণত হয়েছে। ৬ কিলোমিটার দীর্ঘ এই সড়কের পুরোটাই এখন কাদামাটিতে মাখামাখি। দীর্ঘদিন সংস্কার-মেরামত না হওয়ায় আগে থেকেই ব্যবহার অনুপযোগী সড়কের বিভিন্ন স্থানে গত কয়েক দিনের ভারী বর্ষায় এখন ছোট ছোট অসংখ্য গর্ত ও জলাশয়ের সৃষ্টি হয়েছে। 

ব্যবহার অনুপযোগী হওয়ায় এই সড়কে চলাচলকারী বাস সার্ভিস বন্ধ হয়ে গেছে। এছাড়া এই সড়কে নির্ভরশীল কয়েকশ’ ছোট ছোট যানবাহন চালকের রুজিও বন্ধ হয়ে গেছে। পথচারীরাও পড়েছেন চরম দুর্ভোগে। এতে এলাকাবাসীর মধ্যে তীব্র ক্ষোভের সৃষ্টি হয়েছে। তারা জরুরী ভিত্তিতে গুরুত্বপূর্ণ এই সড়কটি সংস্কারের দাবি জানিয়েছেন। 

শরিকল গ্রামের নাজিম উদ্দিন টিপু, চন্দ্রহার গ্রামের শিক্ষক কেএম সানাউল্লাহ্ হোসেন, শিক্ষক কেএম রিয়াজউদ্দিনসহ ভুক্তভোগী বাসিন্দারা বলেন, প্রতিদিন এই সড়ক দিয়ে গৌরনদী উপজেলার বাটাজোর, শরিকল, নলচিড়া ইউনিয়ন এবং বাবুগঞ্জ উপজেলার আগরপুর ও মুলাদীর নাজিরপুর ইউনিয়ন সহ আশপাশের কয়েক হাজার বাসিন্দা চলাচল করেন। এসব এলাকার মানুষের গৌরনদী উপজেলা সদর কিংবা জেলা সদরে যাতায়াতের একমাত্র ভরসা বাটাজোর-শরিকল সড়ক। এসব এলাকার লক্ষাধিক মানুষের যাতায়াতের সুবিধার্থে বরিশাল-শরিকল রুটে নিয়মিত বাস চলাচল করে আসছিলো। কিন্তু ব্যবহার অনুপযোগী হওয়ায় গত ৫ সেপ্টেম্বর থেকে এই সড়কের বাস চলাচল বন্ধ হয়ে গেছে। অনুপযোগী সড়কের কারনে ছোট ছোট যান চলাচলও বন্ধ হয়ে গেছে। এ কারনে এই সড়কের উপর নির্ভরশীল ছোট যানের শ্রমিকরা পড়েছেন বেকায়দায়। 

শরিকল ইউনিয়ন পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান মনজুর হোসেন মিলন বলেন, গত ৪ বছর আগে গুরুত্বপূর্ণ ওই সড়কটি সংস্কারের সময় স্থানীয় ক্ষমতাসীন দলের এক প্রভাবশালী ঠিকাদার নিন্মমানের সামগ্রী ব্যবহার করায় কয়েকদিনের মধ্যেই পুরো সড়কটি চলাচলে অনুপযোগী হয়ে পড়ে। পরে আর কোন সংস্কার কাজ না হওয়ায় বিটুমিন উঠে গিয়ে সড়কের মধ্যে ছোট-বড় অসংখ্য গর্তের সৃষ্টি হয়েছে। পাকা সড়কটি এখন কাদামাটিতে একাকার হয়ে গেছে। 

গৌরনদী উপজেলা প্রকৌশলী মো. অহিদুর রহমান বাটাজোর-শরিকল সড়ক বেহালের কথা স্বীকার করে বলেন, এলজিইডির অর্থায়নে রক্ষণাবেক্ষন প্রকল্পের আওতায় সড়কটি সংস্কারের জন্য আগামী মাসে টেন্ডার আহ্বান করা হচ্ছে। আগামী ডিসেম্বর নাগাদ সংস্কার কাজ শুরু হতে পারে বলে তিনি জানান।

বিডি প্রতিদিন/হিমেল


আপনার মন্তব্য