শিরোনাম
প্রকাশ : ১৮ অক্টোবর, ২০২০ ১২:২৩
আপডেট : ১৮ অক্টোবর, ২০২০ ১২:২৬

বেনাপোল কাস্টমসে হয়রানির প্রতিবাদে শুল্কায়ন কার্যক্রম বন্ধ

বেনাপোল প্রতিনিধি

বেনাপোল কাস্টমসে হয়রানির প্রতিবাদে শুল্কায়ন কার্যক্রম বন্ধ

বেনাপোল কাস্টমস কর্তৃক শুল্কায়ন ও পণ্য পরীক্ষণে হয়রানির প্রতিবাদে শুল্কায়ন কার্যক্রম বন্ধ করে দিয়েছে বেনাপোল সি এন্ড এফ এজেন্ট এসোসিয়েশন। শুল্কায়ন কার্যক্রম বন্ধ থাকার কারণে রাজস্ব আয় থেকে বঞ্চিত হচ্ছেন সরকার।

বেনাপোল সিএন্ডএফ স্টাফ অ্যাসোসিয়েশনের সাধারণ সম্পাদক সাজেদুর রহমান জানান, বেনাপোল কাস্টমসে কোন কাজ করার পরিবেশ নেই। সিএন্ডএফদের সাথে দুর্ব্যবহার নিত্য নৈমিত্তিক ব্যাপার। এ কারণে বৃহস্পতিবার দুপুর থেকে ৩ নম্বর গ্রুপ এবং ৪ নম্বর শুল্কায়ন গ্রুপের কাজ বন্ধ করে দিয়েছে সিএন্ডএফ কতৃর্পক্ষ।

এদিকে বেনাপোল কাস্টমস এর একটি পরীক্ষার গ্রুপ ইনভেস্টিগেশন রিসার্চ অ্যান্ড ম্যানেজমেন্ট (আইআরএম) কর্তৃক পণ্য পরীক্ষা নিয়ে নানা জটিলতার সৃষ্টি হয়েছে।

আমদানিকৃত একই পণ্য এখন ৩ বার পরীক্ষণ করতে হচ্ছে। প্রথমবার কাস্টমস পণ্য পরীক্ষণ করে আসার পর সে পণ্য আবার রাজস্ব কর্মকর্তা পরীক্ষণ করতে যাচ্ছেন। এরপর রাতে ডেপুটি কমিশনার আবারও সেই একই মাল পরীক্ষণ করছেন। তিনবার আলাদা আলাদাভাবে পরীক্ষণ করার কারণে লেবার খরচসহ অন্যান্য খরচ বেড়ে যাচ্ছে।

ফলে আমদানিকারকরা আর্থিকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে। একটি পণ্য পরীক্ষণ করে তার রিপোর্ট নিতে এখন সময় লাগছে ৭ থেকে ১০ দিন। অনেক সময় ১৫ দিনও সময় লেগে যাচ্ছে । এসব হয়রানির প্রতিবাদে কাজ বন্ধ রাখা হয়েছে।

তাছাড়া আমদানিকারকরা বেনাপোল বন্দর দিয়ে কাজ করতে নিরুৎসাহিত হচ্ছেন। 

বেনাপোলে সিএন্ডএফ ব্যবসায়ীরা জানান, কাস্টমস অফিসার কর্তৃক পদে পদে হয়রানির শিকার হচ্ছি। এর একটা সুরাহা হওয়া উচিত। কাস্টমস অফিসারদের দৌরাত্ম্যে আমরা উদ্বিগ্ন। সবকিছু মেনে নেয়া যায় না। তারা ইচ্ছামতো শুল্কায়নে কাজ করছেন।

বাংলাদেশের সকল কাস্টমস হাউসে ডাটাশিট ভ্যালু মানলেও ব্যতিক্রম শুধু বেনাপোলে। বেনাপোলে মিনিমাম ভ্যালু ডাটাশিট ভ্যালু বা রেফারেন্স ভ্যালু মানা হয় না। বেনাপোল কাস্টমস হাউজের কর্মকর্তারা রাজস্ব টার্গেট পূরণের লক্ষ্যে ইচ্ছামত পণ্যের শুল্কায়ন মূল্য নির্ধারণ করেন। ইচ্ছামত আমদানিকৃত পণ্যের মূল্য নির্ধারণ করায় আমদানিকারকরা আর্থিকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছেন।

আর এসব হয়রানির কারণে আমদানিকারকরা বেনাপোল বন্দর দিয়ে আমদানি ছেড়ে দিচ্ছেন।
বেনাপোল সিএন্ডএফ এজেন্ট অ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি মফিজুর রহমান জানান, বেনাপোল কাস্টমসে হয়রানির কোন শেষ নাই। মাল ঢোকা থেকে শুরু করে পরীক্ষণ ও শুল্কায়নে নানাবিধ ও হয়রানির শিকার হতে হচ্ছে। আমদানিকৃত একই পণ্য  বারবার পরীক্ষণ করতে হচ্ছে। পরীক্ষণ করে রিপোর্ট নিতে সময় লাগছে ১০ থেকে ১৫ দিন।

বিডি প্রতিদিন/ফারজানা


আপনার মন্তব্য

এই বিভাগের আরও খবর