শিরোনাম
প্রকাশ : ৩০ অক্টোবর, ২০২০ ২০:৩৯

আলফাডাঙ্গায় চা বিক্রেতাকে কুপিয়ে জখম, পরে প্রতিপক্ষের বাড়িঘর ভাঙচুর

বোয়ালমারী (ফরিদপুর) প্রতিনিধি

আলফাডাঙ্গায় চা বিক্রেতাকে কুপিয়ে জখম, পরে প্রতিপক্ষের বাড়িঘর ভাঙচুর
হামলায় আহত ইকরাম মিয়া।

ফরিদপুরের আলফাডাঙ্গা উপজেলায় এক চা বিক্রেতা ও তার ছেলেকে কুপিয়ে জখম করার ঘটনায় প্রতিপক্ষের বাড়িঘর ভাঙচুরের অভিযোগ উঠেছে। শুক্রবার সকালে উপজেলার আলফাডাঙ্গা সদর ইউনিয়নের বাড়ইপাড়া গ্রামে এ ঘটনা ঘটে।

পুলিশ ও স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, সদর ইউনিয়নের ৪ নম্বর ওয়ার্ডের বর্তমান ইউপি সদস্য অলিয়ার রহমান মিয়া ও সাবেক ইউপি সদস্য হিঙ্গুল মিয়ার মধ্যে দীর্ঘদিন ধরে বিরোধ চলে আসছে। বৃহস্পতিবার রাতে অলিয়ার রহমানের ভাই চা বিক্রেতা ইকরাম মিয়া (৬২) ও তার ছেলে ইয়াছিন মিয়া (২৫) বাজার থেকে বাড়ি ফেরার পথে বাড়ইপাড়া গ্রামের হামিদ সর্দারের বাড়ির দক্ষিণ পাশে প্রতিপক্ষের হামলার শিকার হয়ে মারাত্মক জখম হয়।

আহতদের চিৎকারে স্থানীয়রা তাদের উদ্ধার করে গোপালগঞ্জের কাশিয়ানী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করেন। তবে ইকরাম মিয়ার শারীরিক অবস্থা আশঙ্কাজনক হওয়ায় তাকে ফরিদপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে প্রেরণ করা হয়েছে।

এদিকে, হামলায় জড়িত থাকার অভিযোগে প্রতিপক্ষ হিঙ্গুল মিয়ার সমর্থক জয়েন উদ্দিন ফকিরের বাড়িসহ পাঁচটি বাড়িঘর ভাঙচুর করেছে অলিয়ার সমর্থকরা। পুলিশ ঘটনাস্থল থেকে জিঙ্গাসাবাদের জন্য পাঁচজনকে আটক করেছে।

ভাঙচুরকৃত বাড়ির মালিক জয়েন উদ্দিন ফকিরের স্ত্রী রাবেয়া বেগম (৪২) বলেন, ইকরাম গ্রুপের লোকজন আমাদের সন্দেহবসত হয়ে আমার বাড়িসহ চারটি বাড়িঘর ভাঙচুর করেছে। তাদের ওপর হামলার ঘটনায় আমরা জড়িত নই।

আহত ইকরাম মিয়ার ভাই অলিয়ার রহমান জানান, ভাই ও ভাতিজার ওপর হামলা চালিয়ে মারাত্বক জখম করেছে আমার গ্রামের প্রতিপক্ষ হিঙ্গুল মেম্বরের লোকজন। তাদের বাড়িতে আমরা কেউ হামলা চালায়নি বা বাড়িঘর ভাঙচুর করিনি। আমাদের নামে মামলা করার জন্য তারা নিজেরা বাড়িঘর ভাঙচুর করে নাটক সাজিয়েছে।

আলফাডাঙ্গা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) রেজাউল করীম জানান, বাড়িঘর ভাঙচুরের খবর পেয়ে ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছি। ঘটনাস্থল থেকে জিঙ্গাসাবাদের জন্য পাঁচজনকে আটক করা হয়েছে। তদন্তপূর্বক আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে। তবে শুক্রবার বিকেল ৪টা ৫৮ মিনিট পর্যন্তু থানায় কেউই লিখিত অভিযোগ দেয়নি।

বিডি প্রতিদিন/এমআই


আপনার মন্তব্য

এই বিভাগের আরও খবর