শিরোনাম
প্রকাশ : ৩১ অক্টোবর, ২০২০ ১৯:০০

সিলেটে চিকিৎসকের বাসা থেকে কিশোরীর লাশ উদ্ধার

নিজস্ব প্রতিবেদক, সিলেট

সিলেটে চিকিৎসকের বাসা থেকে কিশোরীর লাশ উদ্ধার

সিলেট নগরীর আখালিয়া এলাকায় এক চিকিৎসকের বাসা থেকে গৃহকর্মী কিশোরীর লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ। নিহত কিশোরীর পরিবারের দাবি তাকে হত্যা করা হয়েছে। আর গৃহকর্ত্রী চিকিৎসক বলছেন সে আত্মহত্যা করেছে। 

শনিবার বেলা ১টার দিকে আখালিয়া সুরমা আবাসিক এলাকার ৪নং রোডের ৩নং বাসা থেকে জান্নাত আক্তার লিনা (১৪) নামের ওই কিশোরীর লাশ উদ্ধার করা হয়। লিনা সিলেট জালালাবাদ রাগীব-রাবেয়া মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের গাইনী বিশেষজ্ঞ ডা. জামিলা খাতুনের ওই বাসায় গৃহকর্মীর কাজ করতো। সে সিলেটের কোম্পানীগঞ্জ উপজেলার বতুমারা গ্রামের আবদুল মালিকের মেয়ে। 

জানা গেছে, গত ৮ বছর ধরে ডা. জামিলা খাতুনের বাসায় থেকে লিনা পড়ালেখা ও গৃহকর্মীর কাজ করতো। গতকাল শনিবার সকাল সাড়ে ৮টায় বাসা থেকে বের হয়ে যান ডা. জামিলা। সকাল সাড়ে ১০টার দিকে তার মেয়ে ফোনে জানায় লিনা ঘরের সিলিং ফ্যানের সাথে ওড়না পেঁচিয়ে ফাঁস দিয়েছে। খবর পেয়ে বেলা ১টার দিকে পুলিশ গিয়ে লাশ উদ্ধার করে। 

এদিকে, জান্নাত আক্তার লিনার পরিবারের অভিযোগ- লিনাকে মারধর করা হয়েছে। পরে সে মারা গেলে আত্মহত্যা বলে দাবি করছেন ডাক্তার জামিলা ও তার পরিবারের সদস্যরা।

লিনার ভাই আল-আমিন বলেন, ‘আমার বোনের গলায় আঘাতের চিহ্ন আছে। ঘরের কাজে একটু ভুল হলেই তারা আমার বোনকে মারধর করতো। এর আগে এমন অভিযোগ আমার বোন অনেকবার করেছে। তাছাড়া ডাক্তার জামিলার ছোট ছেলে আমার বোনকে খুব বেশি অত্যাচার করতো।’

আল-আমিন বলেন, ‘শনিবার সকাল ১১টার দিকে তারা আমাদেরকে ফোন করে বলে আমার বোন আত্মহত্যা করেছে। আমার বোন খুব সহজ-সরল ও ভালো। সে কখনই এমন কাজ করতে পারে না। এ ঘটনায় আমরা মামলা করবো।’

এ ব্যাপারে ডাক্তার জামিলা খাতুন জানান, ‘আমি আমার সন্তানের মতোই লিনাকে স্নেহ করতাম। তার খালাও আমার বাসায় কাজ করে। সে বলতে পারবে আমার পরিবারের সবাই লিনাকে কত স্নেহ করতো।’

তিনি বলেন, ‘বাসা থেকে বের হওয়ার আগে লিনাই আমাকে অফিসের টিফিন রেডি করে দেয়। যাবার সময় বাসার গেইট খুলে বিদায় দেয়। অফিসের আসার পর সাড়ে ১০টার দিকে আমার মেয়ে আমাকে ফোন করে লিনার আত্মহত্যার খবর জানায়। তৎক্ষণাৎ আমি পুলিশে খবর দেই। তবে পুলিশ যাওয়ার আগে আমার মেয়ে ও বাসার অন্যান্যরা লিনার দেহ নামিয়ে নেয়।’

এ বিষয়ে সিলেট কোতোয়ালি থানার ওসি মো. সেলিম মিয়া মিঞা বলেন, খবর পেয়ে পুলিশ লাশ উদ্ধার করেছে। প্রাথমিকভাবে মনে হচ্ছে এটি আত্মহত্যাই। তবে ময়নাতদন্তের পর বিস্তারিত বলা যাবে। এ ঘটনায় একটি অপমৃত্যু মামলা দায়ের করা হয়েছে।’

বিডি প্রতিদিন/আবু জাফর

BP

আপনার মন্তব্য

এই বিভাগের আরও খবর