শিরোনাম
প্রকাশ : ৭ ফেব্রুয়ারি, ২০২১ ২১:৪৫
প্রিন্ট করুন printer

চাল আত্মসাতের মামলায় মণিরামপুর উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান কারাগারে

নিজস্ব প্রতিবেদক, যশোর:

চাল আত্মসাতের মামলায় মণিরামপুর উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান কারাগারে

যশোরের মণিরামপুরে ত্রাণের ৫৪৯ বস্তা চাল আত্মসাতের মামলায় উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান উত্তম চক্রবর্তী বাচ্চুকে কারাগারে পাঠিয়েছেন আদালত। এ মামলায় রবিবার দুপুরে যশোর জেলা ও দায়রা জজ আদালতে আত্মসমর্পণ করলে বিচারক ইখতিয়ারুল ইসলাম মল্লিক তাকে কারাগারে পাঠানোর আদেশ দেন।

মামলার বিবরণ থেকে জানা গেছে, গত ৪ এপ্রিল খুলনার মহেশ্বরপাশা থেকে যশোরের মণিরামপুরের উদ্দেশে পাঁচ ট্রাক সরকারি ত্রাণের চাল আসে। যার মধ্যে এক ট্রাক চাল গোডাউনে লোড না দিয়েই স্থানীয় ভাই ভাই রাইচমিলে পাঠানো হয়। খবর পেয়ে পুলিশ সেখানে অভিযান চালিয়ে ৫৪৯ বস্তা চাল উদ্ধার এবং মিল মালিক ও ট্রাক ড্রাইভারকে আটক করে। এই চালের কোন বৈধ কাগজপত্র দেখাতে না পারায় এসআই তপন কুমার সিংহ বাদী হয়ে মণিরামপুর থানায় মামলা করেন। পরে আটক দুই জন আদালতে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দী দেন। ওই জবানবন্দিতে তারা এ ঘটনায় মণিরামপুর উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান উত্তম চক্রবর্তী বাচ্চুসহ কয়েকজনের জড়িত থাকার কথা প্রকাশ করেন। মামলার তদন্ত শেষে ছয়জনকে আসামি করে যশোর আদালতে অভিযোগপত্র দাখিল করা হয়। 

অভিযোগপত্রে উল্লেখ করা হয়, ৬৪৯ বস্তা চাল ত্রাণের। ওই চাল ভাইস চেয়ারম্যান উত্তমকুমার চক্রবর্তী বাচ্চু কালোবাজারে বিক্রি করে দেন। যার মূল্য চার লাখ ৮০ হাজার টাকা। মামলার অপর আসামিরা হলেন- মণিরামপুর উপজেলার জুড়ানপুর গ্রামের একুব্বর মোড়লের ছেলে কুদ্দুস, রবিন দাসের ছেলে জগদীশ দাস, তাহেরপুর গ্রামের মৃত সোলাইমান মোড়লের ছেলে শহিদুল ইসলাম, বিজয়রামপুর গ্রামের মৃত লুৎফর রহমানের ছেলে চালকল মালিক আব্দুল্লাহ আল মামুন ও খুলনার দৌলতপুরের মহেশ্বরপাশা গ্রামের রতন হাওলাদারের ছেলে ট্রাক চালক ফরিদ হাওলাদার। 

যশোরের পিপি ইদ্রিস আলী জানান, রবিবার দুপুরের দিকে মণিরামপুরের উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান উত্তম চক্রবর্তী বাচ্চু আদালতে আত্মসমর্পণ করে জামিন আবেদন করেন। শুনানি শেষে বিচারক জামিন নামঞ্জুর করে তাকে কারাগারে পাঠানোর নির্দেশ দেন। এরপর কোর্ট-পুলিশ তাকে কারাগারে পাঠায়। 

বিডি প্রতিদিন/ মজুমদার 

এই বিভাগের আরও খবর