শিরোনাম
প্রকাশ : ২৫ ফেব্রুয়ারি, ২০২১ ২০:৩০
প্রিন্ট করুন printer

বৃদ্ধের সঙ্গে বিয়ে, পালিয়ে হাসপাতালের পর সেফ হোমে কিশোরী!

পটুয়াখালী প্রতিনিধি

বৃদ্ধের সঙ্গে বিয়ে, পালিয়ে হাসপাতালের পর সেফ হোমে কিশোরী!

বৃদ্ধের সঙ্গে বাল্যবিয়ে দেয়ার কথা উঠলে তা থেকে রক্ষা পেতে পটুয়াখালীর গলাচিপার এক দুর্গমচর থেকে পালিয়ে দশমিনায় চলে আসা এক কিশোরীকে গুরুতর আহতাবস্থায় হাসপাতালে ভর্তি করেছেন এলাকাবাসী ও পুলিশ। 

বৃহস্পতিবার বিকেলে ওই কিশোরী নাজমা বেগম (১৪) কে বরিশাল সেফ হোমে পাঠানোর ব্যবস্থা করা হচ্ছে বলে জানায় পুলিশ। চিকিৎসার পর ওই কিশোরী সুস্থ আছেন বলে জানান দশমিনা থানার ওসি।

স্থানীয়রা ও দশমিনা থানা পুলিশ সূত্রে জানা গেছে, গলাচিপা উপজেলার চর বিশ্বাস ইউনিয়নের চর বিশ্বাস গ্রামের মৃত শফিকুল ইসলামের মেয়ে নাজমা বেগম (১৪) বুধবার বিকালে দশমিনা উপজেলার চরহোসনাবাদ এলাকায় সড়কে অজ্ঞান হয়ে পড়েছিল। পরে স্থানীয়রা ও থানা পুলিশ কিশোরীকে উদ্ধার করে দশমিনা হাসপাতালে ভর্তি করেন।

হাসপাতালে ভর্তি কিশোরী পুলিশ ও সাংবাদিকদের নাজমা জানায়, তার পিতা শফিকুল ইসলাম মারা যাওয়ার পর মা অন্যত্র বিয়ে করলে সে তার মামাদের বাড়ি থেকে লেখাপড়া করত। তার মামা দুলাল সিকদার সম্প্রতি এক বৃদ্ধের সঙ্গে তার বিয়ের কথা পাকা-পাকি করে। এর প্রতিবাদ করায় তাকে মারধর করেন মামা। ওই কিশোরী আরও জানায়, এ ঘটনায় বাড়ি থেকে পালিয়ে দশমিনা চলে এসে চরহোসনাবাদ সড়কের পাশে অজ্ঞান হয়ে পড়েছিল। 
দশমিনা থানার ওসি মোহাম্মদ জসীম জানান, ওই কিশোরীর মা ও মামাদের সাথে যোগাযোগ করেছি। কিন্তু কিশোরী নাজমা তাদের সাথে যেতে রাজী নয় তাই তাকে কিছুক্ষণের মধ্যেই বরিশালের সেফ হোমে পাঠানো হচ্ছে। কিশোরীর স্বজনদেরও তাকে নিতে তেমন একটা আগ্রহ নেই। মেয়েটি এখন সুস্থ আছে। 

বিডি-প্রতিদিন/সালাহ উদ্দীন


আপনার মন্তব্য

এই বিভাগের আরও খবর